kalerkantho

শুক্রবার । ১৫ নভেম্বর ২০১৯। ৩০ কার্তিক ১৪২৬। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায়

খালেদা জিয়ার আবারো হাইকোর্টে জামিন আবেদন

# এই আবেদন নজিরবিহীন- দুদক আইনজীবী # নতুন যুক্তিতে আবেদন করার সুযোগ আছে- খালেদা জিয়ার আইনজীবী

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ২১:২১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



খালেদা জিয়ার আবারো হাইকোর্টে জামিন আবেদন

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া আবারো হাইকোর্টে জামিনের আবেদন করেছেন। আজ মঙ্গলবার হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এই জামিন আবেদন দাখিল করা হয়। 

এ বিষয়ে খালেদা জিয়ার আইনজীবী ব্যারিস্টার কায়সার কামাল সাংবাদিকদের বলেন, খালেদা জিয়া তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী। তিনি খুবই অসুস্থ। হাসপাতালে ভর্তি। তার উন্নত চিকিৎসার স্বার্থে জামিনের আবেদন করা হয়েছে। আগামী সপ্তাহে হাইকোর্টে জামিনের আবেদনটি শুনানির জন্য উপস্থাপন করা হবে বলে তিনি জানান।

একবার হাইকোর্টে খারিজ হওয়ার পর আপিল বিভাগে আপিল না করে নতুন করে জামিনের আবেন করা নজীরবিহীন বলে মন্তব্য করেছেন দুদকের আইনজীবী অ্যাডভোকেট খুরশীদ আলম খান। তিনি বলেছেন, হাইকোর্টের শুনানির সময় এই বিষয়টি আদালতের নজরে আনা হবে।

তিনি বলেন, হাইকোর্ট পূর্ণাঙ্গ শুনানি শেষে জামিন প্রশ্নে রায় দিয়েছেন রায়ে তার জামিনের আবেদন খারিজ করা হয়। নিয়ম অনুযায়ী হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে তাদের আপিল বিভাগে আপিল করার কথা। কিন্তু তা না করে হাইকোর্টেই আবার আবেদন করা হলো। 

খালেদা জিয়ার আইনজীবী অ্যাডভোকেট আমিনুল ইসলাম কালের কণ্ঠকে বলেন, আইন মেনেই আবেদন করা হয়েছে। আইনে বলা আছে, একবার খারিজ হলে নুতন কোনো যুক্তি থাকলে সেক্ষেত্রে আবেদন করার সুযোগ রয়েছে। খালেদা জিয়ার খুবই অসুস্থ। হাসপাতালে ভর্তি। একারণেই আবার হাইকোর্টে জামিনের আবেদন করা হয়েছে। 

এর আগে গত ৩১ জুন বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি এস এম কুদ্দুস জামানের হাইকোর্ট বেঞ্চ খালেদা জিয়ার জামিনের আবেদন খারিজ করে রায় দেন।

সুপ্রিম কোর্ট ও নিম্ন আদালত মিলে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে এখন ১৭টি মামলা বিচারাধীন। এরমধ্যে দুটি মামলায় (জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলা) জামিন পেলেই খালেদা জিয়া কারাগার থেকে মুক্তি পাবেন। এই দুই মামলায় তার ১৭ বছরের কারাদণ্ড হয়েছে। এরমধ্যে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ১০ বছরের সাজার বিরুদ্ধে করা আপিল আপিল বিভাগে বিচারাধীন। আর জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় নিম্ন আদালতের ৭ বছরের সাজার বিরুদ্ধে করা আপিল হাইকোর্টে বিচারাধীন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা