kalerkantho

রাজীবের মৃত্যুর তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল হয়নি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৩ আগস্ট, ২০১৯ ০৩:১৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাজীবের মৃত্যুর তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল হয়নি

তিতুমীর কলেজের ছাত্র রাজীব হোসেনের হাত বিচ্ছিন্ন ও পরবর্তীতে তার মৃত্যুর ঘটনায় করা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন গতকাল বৃহস্পতিবারও জমা হয়নি। তাই তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য নতুন করে দিন ধার্য করতে হয়েছে ঢাকা মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতকে।

এদিন তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের দিন ধার্য ছিল। তদন্ত কর্মকর্তা কোনো প্রতিবেদন দাখিল না করায় মহানগর হাকিম সরাফুজ্জামান আগামী ২৬ সেপ্টেম্বরের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের সময়সীমা নির্ধারণ করেন। গত ৮ জুলাই একই আদালত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য গতকাল দিন ধার্য করেছিলেন।

গত বছর ৩ এপ্রিল দুপুরে বিআরটিসির একটি দোতলা বাসের পেছনের ফটকে দাঁড়িয়ে যাচ্ছিলেন মহাখালীর সরকারি তিতুমীর কলেজের স্নাতক দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র রাজীব হোসেন। বাসটি হোটেল সোনারগাঁওয়ের বিপরীতে পান্থকুঞ্জ পার্কের সামনে পৌঁছালে হঠাৎ পেছন থেকে স্বজন পরিবহনের বাসটি বিআরটিসি বাসটির গা ঘেঁষে অতিক্রম করে। দুই বাসের চাপে গাড়ির পেছনে দাঁড়িয়ে থাকা রাজীবের হাত শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

ওই ঘটনার পর পথচারীরা রাজীবকে পান্থপথের শমরিতা হাসপাতালে ভর্তি করেন। এরপর তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নেওয়া হয়। রাজীবের ডান হাত কুনইয়ের ওপর থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়। তার মাথায়ও আঘাত লাগে। পরবর্তীতে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় গত বছর ১৭ এপ্রিল তিনি মারা যান। তার মৃত্যুর পর এ সংক্রান্ত মামলাটি দুর্ঘটনাজনিত হত্যা মামলায় রূপ নেয়।

ঘটনার এক বছর তিন মাস পার হলেও রাজীবের নিহত হওয়ার ঘটনায় দায়ের এই মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল হয়নি। ঘটনার পর স্বজন পরিবহনের চালক খোরশেদ আলমকে ও বিআরটিসির গাড়ি চালাক ওয়াহিদকে গ্রেপ্তার করা হয়। বেপরোয়াভাবে গাড়ি চালানোসহ দুর্ঘটনা ঘটানো ও রাজীবের মৃত্যুতে ক্ষতিপূরণ দিতে বিআরটিসি ও স্বজন পরিবহনকে ইতিমধ্যে হাইকোর্ট নির্দেশ দিয়েছেন। কিন্তু প্রতিবেদন দাখিল না হওয়ায় চালকদের দ্রুত বিচার করা শুরু করা যাচ্ছে না।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা