kalerkantho

ভবন নয় যেন এডিসের ডিপো, নির্মাণাধীন এক ভবনেই ১৫ ডেঙ্গু রোগী

বিশেষ প্রতিনিধি   

২১ আগস্ট, ২০১৯ ২০:১২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ভবন নয় যেন এডিসের ডিপো, নির্মাণাধীন এক ভবনেই ১৫ ডেঙ্গু রোগী

আট বছরের শিশু আদিব আহমদ। বনশ্রীতে আইডিয়াল স্কুলের প্রথম শ্রেণির ছাত্র। পিতা-মাতা সাংবাদিক ও চিকিৎসক। পিতা-মাতার সঙ্গে থাকে রাজধানীর পূর্ব রামপুরায় বনশ্রী এলাকায় তিতাস রোডে ২১৫/৫/১-৩ হোল্ডিং এর 'লুমিনাস স্বপ্ন চূড়া' নামে নির্মাণাধীন ১০ তলা ভবনের ৮ম তলায়। আদিব গত ৫ আগস্ট ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়। আদিব সেরে উঠতে না উঠতেই তার মা দন্ত চিকিৎসক সৈয়দা ফারজানা আফরিন গত ১৭ আগস্ট ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়েছেন। তিনি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। 

শুধুই আদিব বা ডা. আফরিন নন, খোঁজ নিয়ে জানা গেছে ওই ভবনে এ পর্যন্ত কমপক্ষে ১৫ জন ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়েছেন। গা শিউরে ওঠার মতো এই খবরে সংশ্লিষ্টরা বলেছেন, ভবনটি এডিস মশার একটি ডিপোতে পরিণত হয়েছে। কেউ কেউ বলছেন, ভবনটি এডিস মশা উৎপাদনের ফ্যাক্টরি। নির্মাণাধীন এল সাইজের ওই ভবনে ৭২টি ফ্ল্যাট রয়েছে। এর মধ্যে ৩২টি ফ্ল্যাটে ডাক্তার, আইনজীবী, প্রকৌশলী, শিক্ষক, সাংবাদিক, ব্যবসায়ীসহ নানা পেশার লোক বসবাস শুরু করেছেন।

এদিকে এত রোগীর খবর পেয়ে আজই ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের একটি টিম ওই ভবনে মশার ওষুধ ছিটিয়েছে। 

ভবনের বাসিন্দা বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার (বাসস) সিনিয়র রিপোর্টার দিদারুল আলম জানান, ওই ভবনের ডেভলপারের নিয়োজিত প্রকৌশলী রেজওয়ান আগস্ট মাসের প্রথম সপ্তাহে ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হন। আরেক বাসিন্দা আমাদের সময় পত্রিকার সিনিয়র সাংবাদিক আবুল হাসান হৃদয়ের ৩ বছরের ছেলে ফিদেল গত ৯ আগস্ট ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়। ওই ভবনের বাসিন্দা আইটি ব্যবসায়ী সুমনের স্ত্রী ও সন্তানসহ ৩ জন, সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মজিবর রহমানের ৩ সন্তান ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন। 

বাসিন্দারা জানান, নির্মাণাধীন এই ভবনটির ভেতরে, ছাদে এবং আশ পাশে এডিস মশার প্রজনন কেন্দ্র। ভবনের ছাদের সব সময় পানি জমে থাকায় অনেক আগাছা, লতাপাতা জম্ম হচ্ছে। ভেতরে সিঁড়ির গোড়ায় এবং লিফট বসানোর জন্য ফেলে রাখা খালি জায়গায় অনেক আর্বজনা পড়ে রয়েছে। 

২০১৪ সালের মধ্যে এই ভবনটির নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করে ফ্ল্যাট মালিকদের বুঝিয়ে দেওয়ার কথা থাকলে ডেভেলপার কম্পানি ভবনটির নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করছে না। ফলে ভবনটি এখন এডিস মশার উৎপাদন কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা