kalerkantho

দুই পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বৈঠক শুরু

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২০ আগস্ট, ২০১৯ ১২:২০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



দুই পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বৈঠক শুরু

ঢাকা সফররত ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এস জয়শঙ্করের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক শুরু হয়েছে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনের। সফরের দ্বিতীয় দিন আজ  মঙ্গলবার (২০ আগস্ট) বেলা ১১টায় রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন যমুনায় এই বৈঠক শুরু হয়।

গতকাল সোমবার রাত ৯টায় ঢাকায় পৌঁছান জয়শঙ্কর। হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নেমে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, 'আমি ঢাকায় আসতে পেরে আনন্দিত। পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে এটিই আমার প্রথম সফর। আমি আগামীকাল (আজ মঙ্গলবার) অত্যন্ত ফলপ্রসূ দিন প্রত্যাশা করছি। আমাদের খুব ভালো ও খুব জোরালো সম্পর্ক আছে। এই সম্পর্ককে আরো এগিয়ে নিতে আমাদের অনেক বিষয় আলোচনার আছে।'

ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে স্বাগত জানিয়ে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন সাংবাদিকদের বলেন, জয়শঙ্কর সফরে আসায় তিনি অত্যন্ত আনন্দিত।

তিস্তার পানিবণ্টন ইস্যুতে আলোচনা হবে কি না জানতে চাইলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মঙ্গলবার নিজেই সাংবাদিকদের এ বিষয়ে জানাবেন। ড. মোমেন সাংবাদিকদের বলেন, 'আমাদের অনেক প্রত্যাশা। এগুলো আমরা কাল (আজ মঙ্গলবার) আপনাদের সঙ্গে আলাপ করব।'

জানা গেছে, ভারতের মোদি সরকারের দ্বিতীয় মেয়াদে বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ক আরো জোরদারে কাজ করতেই ঢাকা সফর করছেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। নয়াদিল্লি থেকে বাংলাদেশ বিমানের নিয়মিত ফ্লাইটে তিনি ঢাকায় পৌঁছেন।

সফরসূচি অনুযায়ী, ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আজ সকালে ঢাকায় বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা জানাবেন। এরপর সকাল ১১টায় রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন যমুনায় বাংলাদেশ ও ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের নেতৃত্বে দুই দেশের বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। বৈঠক শেষে দুই পররাষ্ট্রমন্ত্রী যৌথ সংবাদ সম্মেলন করবেন। এরপর জয়শঙ্কর তাঁর সম্মানে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেন আয়োজিত মধ্যাহ্নভোজে যোগ দেবেন।

ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আজ বিকেলে গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন। রাতে তিনি ভারতীয় হাইকমিশনার আয়োজিত নৈশভোজে অংশ নেবেন। আগামীকাল বুধবার সকালে কাঠমাণ্ডুর উদ্দেশে তিনি ঢাকা ছাড়বেন।

গত মে মাসে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পর জয়শঙ্করের এটিই প্রথম বাংলাদেশ সফর। কূটনৈতিক সূত্রগুলো বলছে, এটি সৌজন্য সফর। এই সফরে বিদ্যমান জোরালো সম্পর্ক আগামী দিনগুলোতে আরো জোরদারের বিষয়ে আলোচনা হবে। আগামী অক্টোবর মাসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সম্ভাব্য নয়াদিল্লি সফর নিয়েও আলোচনা হবে আজ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কূটনীতিক গতকাল কালের কণ্ঠকে বলেন, দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের সব দিক নিয়ে আলোচনা হতে পারে দুই পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বৈঠকে। তাঁরা বিদ্যমান সম্পর্ক ও সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের অগ্রগতি পর্যালোচনার পাশাপাশি আগামী দিনগুলোতে সম্পর্কের রূপরেখা নিয়ে আলোচনা করবেন। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা