kalerkantho

জাবিতে হোটেল মালিককে ছাত্রলীগ কর্মীর মারধর

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

১৮ আগস্ট, ২০১৯ ২১:৩১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



জাবিতে হোটেল মালিককে ছাত্রলীগ কর্মীর মারধর

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) এক হোটেলের মালিককে মারধরের অভিযোগ উঠেছে জাবি শাখা ছাত্রলীগের এক কর্মীর বিরুদ্ধে। মারধরকারী ছাত্রলীগের ঐ কর্মীর নাম সুমন জোয়ার্দার। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের ৪৪তম ব্যাচের ও বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর হলের আবাসিক শিক্ষার্থী।

রবিবার বিকেল সাড়ে ৪টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের বটতলার ‘সুজন রেস্টুরেন্ট অ্যান্ড ক্যাটারিং সার্ভিস’ হোটেলে এ মারধরের ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ‘বিকালে সুমন জোয়ার্দার তার বান্ধবীকে সঙ্গে নিয়ে সুজন রেস্টুরেন্ট অ্যান্ড ক্যাটারিং সার্ভিসে যান। এ সময় তিনি হোটেলের মালিক মো. সুজনকে বাইরে থেকে আনা মাংস গরম করে দিতে বলেন। সুজন এতে অস্বীকৃতি জানালে তাকে দেখে নেওয়ার হুমকি দিয়ে সেখান থেকে চলে যায় সুমন জোয়ার্দার। এর কিছুক্ষণ পর সুমন তার আবাসিক হলের ৭-৮ জন ছাত্রলীগের কর্মীকে সঙ্গে নিয়ে ওই হোটেলে যান। এরপর তারা কাঠের চেলা (টুকরো) দিয়ে সুজনকে মারধর করেন।

মারধরকারী ছাত্রলীগ কর্মী সুমন জোয়ার্দার বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি জুয়েল রানার অনুসারী হিসেবে ক্যাম্পাসে পরিচিত।

হোটেলের মালিক মো. সুজন বলেন, ‘সুমন এসে মাংস গরম দিতে বলেন। তখন আমরা চুলা গুছিয়ে ফেলেছি। তাই গরম করে দিতে পারবো না বলে জানাই। তারপরও জোরাজুরি করলে আমি একটু রেগে গিয়ে বলি, গরম করে দিতে পারবো না। ওই অবস্থায় খাওয়া শেষ করে বান্ধবীকে নিয়ে চলে যান তিনি। পরে হলের সাত-আটজন জুনিয়রকে নিয়ে এসে কাঠের টুকরা দিয়ে আমাকে মারধর করেন।’

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে সুমন জোয়ার্দার বলেন, ‘বারবার অনুরোধ করার পরও মাংস গরম করে না দেওয়ায় রেগে গিয়েছিলাম। তারপর যা করার তাই করেছি।’

এ ব্যাপারে শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি জুয়েল রানা বলেন, ‘মাত্র জানতে পারলাম, এমন ঘটনা দুঃখজনক। এ বিষয়ে বিস্তারিত খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেবো।’

এ প্রসঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর আ স ম ফিরোজ উল হাসান বলেন, ‘এ ধরনের কোনো অভিযোগ পাইনি। মারধরের ঘটনা ঘটলে আমরা খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেবো।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা