kalerkantho

চামড়া সংরক্ষণে সরকারি উদ্যোগের দাবি

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৮ আগস্ট, ২০১৯ ০৮:৪৬ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



চামড়া সংরক্ষণে সরকারি উদ্যোগের দাবি

কোরবানির ঈদের সময় দেশে বিপুলসংখ্যক উন্নতমানের কাঁচা চামড়া পাওয়া গেলেও সরকারিভাবে তা সংরক্ষণের কোনো উপায় নেই। ব্যবসায়ীরা বিচ্ছিন্নভাবে কিছু চামড়া সংরক্ষণ করেন, তবে পুঁজি সংকটসহ নানা কারণে তার পরিমাণ খুব বেশি নয়। এবার বিপুলসংখ্যক মূল্যবান চামড়া নষ্ট হয়ে যাওয়ায় দাবি উঠেছে চামড়া সংরক্ষণে নির্ভরযোগ্য ব্যবস্থা গড়ে তোলার। এটি করা সম্ভব হলে দেশের চামড়া শিল্প সারা বছরই উন্নতমানের চামড়া পাবে, যা দিয়ে দেশের রপ্তানি বাজার আরো বেগবান হবে।

সম্প্রতি অনেকটা খোলা আকাশের নিচে পড়ে থাকা মূল্যবান কাঁচা চামড়া বেচাকেনা নিয়ে দ্বন্দ্ব চরমে উঠেছে আড়তদার ও ট্যানারি মালিকদের মধ্যে। ট্যানারি মালিকরা প্রস্তুতিও নিয়েছিল চামড়া কেনার জন্য, কিন্তু হঠাৎ বিগড়ে গেছে আড়তদাররা। তাদের দাবি, ট্যানারি মালিকদের কাছ থেকে বকেয়া ৪০০ কোটি টাকা হাতে না পাওয়া পর্যন্ত চামড়া বিক্রি করবে না। অন্যদিকে ট্যানারি মালিকরা বলছে, তাদের পুঁজির সংকট রয়েছে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, প্রতিবছরই একই ঘটনা ঘটছে। অথচ সরকারের পক্ষ থেকে এ বিষয়ে বড় ধরনের পদক্ষেপ নিতে দেখা যায় না। সোয়া কোটি পশুর চামড়া প্রক্রিয়াকরণ করার কোনো পরিকল্পনা এখনো নেওয়া হয়নি। সরকারের পক্ষ থেকে চামড়া রাখার মতো কোনো স্থান ঠিক করা হয়নি। সারা দেশে বিসিকের প্লট থাকলেও সেখানেও চামড়া রাখার কোনো ধরনের পরিকল্পনা নেওয়া হয়নি। যতটুকু হয়েছে ব্যক্তি খাতের হাত ধরে।

পোস্তার আড়তদার মতিউর রহমান বলেন, ৪০ বছর ধরে তিনি এই ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। চামড়ার এমন ধস কখনো দেখেননি। তাই এই শিল্পকে রক্ষায় শিগগিরই সরকারের নীতিমালায় পরিবর্তন আনা জরুরি বলে মনে করেন তিনি। মতিউর রহমান বলেন, ট্যানারি মালিকদের ভয়ংকর এই ছোবল থেকে দেশের চামড়াশিল্পকে রক্ষায় লোকাল এলসি নীতিমালা করা যেতে পারে। তাদের প্রণোদনা না দিয়ে স্থানীয় পৌরসভা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে তিন-চার কেজি করে লবণ সরবরাহ করে স্থানীয়ভাবেই দু-এক দিন চামড়া সংরক্ষণ করা যেতে পারে। শুধু ঢাকায় নয়, সারা দেশে চামড়া সংরক্ষণের উদ্যোগ নিতে পারে সরকার।

কোরবানির পশুর চামড়া সংরক্ষণে ভবিষ্যতে হিমাগার স্থাপনে সরকারি পরিকল্পনার কথা জানিয়ে শিল্পসচিব আবদুল হালিম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘চামড়া সংরক্ষণে ভূমিকা রাখতে জেলা প্রশাসকদের ভূমিকা বাড়ানো হবে। পশু জবাই, পশুর চামড়া সংরক্ষণে প্রশিক্ষণ দেওয়া বাড়াতে সরকারি উদ্যোগ বাড়ানো হচ্ছে। কোরবানির পশুর চামড়ার দর নির্ধারণ করে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। কোরবানির পশুর চামড়া সঠিকভাবে সংরক্ষণে পর্যাপ্ত লবণ প্রয়োজন হয়। এবারের কোরবানির ঈদের আগেই লবণের পর্যাপ্ত সরবরাহ নিশ্চিত করতে শিল্প মন্ত্রণালয় থেকে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করি।’ তিনি বলেন, ‘আগামীকাল (আজ রবিবার) বাণিজ্য মন্ত্রণালয় জরুরি বৈঠক ডেকেছে। আমরা যাব। আমাদের কথা আমরা বলব।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা