kalerkantho

'দেশের অনেক স্থানের চামড়া যথাযথভাবে সংরক্ষণ করা হয়েছে'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৭ আগস্ট, ২০১৯ ১৮:২৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



'দেশের অনেক স্থানের চামড়া যথাযথভাবে সংরক্ষণ করা হয়েছে'

শিল্প সচিব মো. আব্দুল হালিম বলেছেন, চামড়া যথাযথভাবে সংরক্ষণ না করার ফলে কিছু কিছু স্থানে মৌসুমী চামড়া ব্যবসায়ীরা কাঁচা চামড়া নষ্ট করে ফেলেছেন। তবে এটি সমগ্র দেশের চিত্র নয়। অন্যান্য স্থানের চামড়া যথাযথভাবে সংরক্ষণ করা হয়েছে। এ বিষয়ে বিভাগীয় প্রশাসন ও জেলা প্রশাসনের মাধ্যমে মাঠ পর্যায়ে নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে।

আজ শনিবার সাভারের চামড়া শিল্পনগরীতে চামড়া শিল্প সংক্রান্ত বিভিন্ন অংশীজনদের সঙ্গে আয়োজিত এক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন।

মো. আব্দুল হালিম বলেন, সাভার ট্যানারি শিল্পনগরীর সিইটিপি সম্পূর্ণ চালু রয়েছে। কোরবানির সময় ট্যানারিগুলো সারা বছরের সরবরাহের অর্ধেক চামড়া সংগ্রহ করে। তাই আগামী দু’তিন মাস এই শিল্প নগরী ট্যানারিগুলো পূর্ণ গতিতে চলবে।

পিক সিজনে উৎপাদিত চামড়ার আন্তর্জাতিক মান বজায় রাখার স্বার্থে সব ট্যানারিকে একসঙ্গে কাজ না করে নিজেদের মধ্যে সময় নির্ধারণ করে কাজ করার আহ্বানও জানান শিল্প সচিব।

সভায় বিসিকের চেয়াররম্যান মোশ্তাক হাসান, প্রকল্প পরিচালক প্রকৌশলী জিতেন্দ্রনাথ পাল, বুয়েটের পুরকৌশল বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. আব্দুল জলিল, বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মো. সাখাওয়াত উল্লাহ, বাংলাদেশ ফিনিশড লেদার, লেদার গুডস অ্যান্ড ফুটওয়্যার এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ দিলজাহান ভূঁইয়া ও উপদেষ্টা এম এ আউয়াল উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মো. সাখাওয়াত উল্লাহ বলেন, অতীতের যেকোনো সময়ের তুলনায় সাভার ট্যানারি শিল্প নগরী ভালোভাবে কাজ করছে। শিল্প নগরীর সিইটিপির চারটি ইউনিটই যথাযথভাবে কাজ করছে।

শিগগিরই লেদার ওয়ার্কিং গ্রুপের মানদণ্ড অর্জন করা সম্ভব হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করে সাখাওয়াত উল্লাহ বলেন, চামড়ার গুণগত মান ভালো থাকলে সরকার নির্ধারিত মূল্যে ট্যানারিগুলো চামড়া ক্রয় করবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা