kalerkantho

বুধবার । ২১ আগস্ট ২০১৯। ৬ ভাদ্র ১৪২৬। ১৯ জিলহজ ১৪৪০

'দেশে খুন-ধর্ষণের মহোৎসব চলছে, দেখার কেউ নেই'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৩ জুলাই, ২০১৯ ১৫:৩৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



'দেশে খুন-ধর্ষণের মহোৎসব চলছে, দেখার কেউ নেই'

বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান ও কৃষকদলের আহ্বায়ক শামসুজ্জামান দুদু বলেছেন, দেশে খুন-ধর্ষণের মহোৎসব চলছে, গণপিটুনিতে মানুষ হত্যা শুরু হয়েছে- কেউ দেখার নেই। যদি তাই হয় তবে সরকারেরই বা কী দরকার আছে? এই সরকার তো এমনিতেই অবৈধ, ভোটারবিহীন, দুর্নীতিগ্রস্ত সরকার। এই সরকার বাংলাদেশের গণতন্ত্রকে বিলুপ্ত করে, মাটি দিয়ে, কবরস্থ করেছে।

আজ মঙ্গলবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও বন্যার্ত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর সুযোগ দেওয়ার দাবিতে এক মানববন্ধনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

দুদু বলেন, দেশে আজ কোনো সরকার আছে বলে দেশবাসী মনে করে না। তিন বছরের শিশু থেকে বৃদ্ধ পর্যন্ত- কেউ ধর্ষণের হাত থেকে রেহাই পাচ্ছে না। গণপিটুনির নামে দেশজুড়ে মানুষ হত্যার মহোৎসব শুরু হয়েছে। গত ১৫ দিনে শেয়ার মার্কেট থেকে ৩৭ হাজার কোটি টাকা উধাও হয়ে গেছে। এমন দুঃসহ অবস্থায় রাষ্ট্র পরিচালনায় কাকে অযোগ্য বলবো- প্রধানমন্ত্রী, অর্থমন্ত্রী, আইনমন্ত্রী নাকি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে?

আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের দেওয়া বক্তব্যের সমালোচনা করে তিনি বলেন, গত এক শতাব্দিতে এরকম একজন অযোগ্য আইনমন্ত্রী বাংলাদেশের জনগণ প্রত্যক্ষ করেনি। আজ রাস্তায় বের হতে ভয় লাগে। কেউ জানেনা কখন কাকে কোথায় পিটিয়ে হত্যা করা হয়। অথচ আইনমন্ত্রী এসব ঘটনাকে বিরোধী দলের ওপর চাপানোর চেষ্টা করছেন।

দুদু আরো বলেন, বাংলাদেশের গণতন্ত্র ও বেগম খালেদা জিয়াকে যদি মুক্ত করতে হয় আন্দোলন ও প্রতিবাদ ছাড়া দ্বিতীয় কোনো পথ নাই। বিচারহীনতার যে সংস্কৃতি দেশে চলছে, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর যে একচোখা নীতি তাতে করে আইনি পথে বেগম জিয়া মুক্তি পাবেন সিনিয়র আইনজীবীরাও তা মনে করেন না।

মানববন্ধনে এলডিপির প্রেসিডিয়াম সদস্য ইসমাইল হোসেন বেঙ্গল, বিএনপির সহ-শিক্ষাবিষয়ক সম্পাদক ফরিদা মনি শহীদুল্লাহ, কৃষক দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য লায়ন মিয়া মোহাম্মদ আনোয়ার ও কে এম রকিবুল ইসলাম রিপন প্রমুখ বক্তব্য দেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা