kalerkantho

রবিবার। ১৮ আগস্ট ২০১৯। ৩ ভাদ্র ১৪২৬। ১৬ জিলহজ ১৪৪০

বাড্ডায় নারীকে পিটিয়ে হত্যায় জড়িতদের শাস্তি দাবি

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২২ জুলাই, ২০১৯ ১৫:০৭ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বাড্ডায় নারীকে পিটিয়ে হত্যায় জড়িতদের শাস্তি দাবি

রাজধানীর বাড্ডায় তাসলিমা বেগম রেনু নামের নারীকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবি জানিয়েছেন সরকারি তিতুমীর কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। আজ সোমবার দুপুরে রাজধানীর মহাখালীর ওয়্যারলেস গেইটের কাছে কলেজের প্রধান ফটকে আয়োজিত মানববন্ধনে এ দাবি জানানো হয়।

রেনু ওই কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সাবেক শিক্ষার্থী।

মানববন্ধনে কলেজের অধ্যক্ষ আশরাফ হোসেন বলেন, দেশের সহজ সরল মানুষকে অবৈজ্ঞানিক কথাবার্তায় উত্তেজিত করা হচ্ছে। এর খেসারত দিতে হচ্ছে সাধারণ মানুষকে। একদিকে জনজীবন অতীষ্ঠ করার চেষ্টা চলছে, অন্যদিকে উন্নয়নকে প্রশ্নবিদ্ধ করার চক্রান্ত চলছে। তিনি বলেন, যারা সরকারের সাফল্য ও উন্নয়ন কর্মকাণ্ড সহ্য করতে পারছে না তারাই এমন গুজব ছড়িয়ে দেশটাকে অস্থিতিশীল করছে। পদ্মাসেতু নির্মাণের শুরু থেকেই নানা ষড়যন্ত্র চলছিল; এখনও তা চলমান আছে।'

কর্মসূচিতে তিতুমীর কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি রিপন মিয়া ও সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল হক জুয়েল মোড়ল, বিভিন্ন গণমাধ্যমে কর্মরত তিতুমীর কলেজের সাবেক ও বর্তমান শিক্ষার্থী ও বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীরা অংশ নেন।

গত শনিবার (২০ জুলাই) সকাল সাড়ে ৮টার দিকে তাসলিমা বাড্ডা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যান। স্কুলের সামনের গেইটে অভিভাবকরা তাঁর কাছে ভেতরে যাওয়ার কারণ জানতে চান। তাসলিমা জানান, তাঁর সন্তানকে স্কুলে ভর্তি করবেন। এ সময় অভিভাবকদের কাছে তাঁর কথাবার্তা সন্দেহজনক মনে হলে তাঁরা তাঁকে ধরে প্রধান শিক্ষিকার কাছে নিয়ে যান। সেখানে তাঁর নাম-পরিচয় জানতে চাওয়া হয়।

এদিকে, স্কুলে ছেলেধরা এসেছে-এমন খবর ছড়িয়ে পড়ে এলাকায়। সেখানে বাঁশের বাজারসহ আশপাশের এলাকার লোকজন ভিড় করে। কিছুক্ষণ পর তাসলিমা প্রধান শিক্ষিকার কক্ষ থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় জড়ো হওয়া লোকজন তাঁকে ধরে স্কুলের সামনেই পিটুনি দিতে শুরু করে। একপর্যায়ে তিনি নিথর হয়ে পড়েন। খবর পেয়ে পুলিশ তাঁকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে চিকিৎসকরা তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

ওই ঘটনায় অজ্ঞাতপরিচয় আসামিদের বিরুদ্ধে বাড্ডা থানায় হত্যা মামলা করা হয়। তাসলিমার ভাগ্নে সৈয়দ নাসির উদ্দিন টিটু বাদী হয়ে এ মামলা করেন।

জানা গেছে, আড়াই বছর আগে তাসলিমা বেগম রেনুর সঙ্গে তাঁর স্বামীর তালাক হয়। ওই ঘটনার পর থেকে তিনি মানসিকভাবে ভেঙে পড়েন। তাঁর ১১ বছরের একটি ছেলে ও চার বছরের একটি মেয়ে রয়েছে। ছেলে তাঁর স্বামীর কাছে থাকে, আর মেয়েটি থাকে তাঁর সঙ্গে। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা