kalerkantho

শুক্রবার । ২৩ আগস্ট ২০১৯। ৮ ভাদ্র ১৪২৬। ২১ জিলহজ ১৪৪০

তাহের দিবস পালিত

রাষ্ট্রের অনাচার মোকাবেলার সংগ্রামে তাহের চির প্রেরণা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২২ জুলাই, ২০১৯ ০২:১৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাষ্ট্রের অনাচার মোকাবেলার সংগ্রামে তাহের চির প্রেরণা

লুটপাট, সম্পদ পাচার, সন্ত্রাসসহ রাষ্ট্রের নানা অনাচার মোকাবেলার সংগ্রামে শহীদ কর্নেল তাহের চিরকাল প্রেরণার উত্স হয়ে থাকবেন। তাহেরের মতো দেশপ্রেমিক, নিশঙ্কচিত্তের মানুষ ইতিহাসে বিরল। তাঁর শোষণমুক্তির সংগ্রাম কঠোরভাবে চর্চার মধ্য দিয়ে সমাজ থেকে বৈষম্য দূর করতে হবে। কর্নেল আবু তাহের বীর-উত্তমের ফাঁসিকাষ্ঠে আত্মদানের ৪৩তম বার্ষিকী উপলক্ষে গতকাল রবিবার বিকেলে জাসদ ও বাংলাদেশ জাসদ আয়োজিত পৃথক আলোচনাসভায় বক্তারা এসব কথা বলেন।  

বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে জাসদ আয়োজিত আলোচনাসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন বলেন, মুক্তিযুদ্ধের পর বাংলাদেশকে স্বাভাবিকভাবেই একটি অস্থির সময়ের মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে যে আকাঙ্ক্ষার সৃষ্টি হয়েছিল, যে সমতাভিত্তিক রাষ্ট্র গঠনের স্বপ্ন সৃষ্টি হয়েছিল তাহের তা বাস্তবায়নে লড়াই করে গেছেন।

জাসদের সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার বলেন, শহীদ কর্নেল তাহের মহান মুক্তিযুদ্ধে এবং পরে ১৯৭৫ সালের সিপাহি-জনতার অভ্যুত্থানের মধ্য দিয়ে একটি শোষণমুক্ত সমাজতান্ত্রিক সমাজ ও রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার প্রচেষ্টা চালিয়ে ছিলেন।

বাংলাদেশ শিশু কল্যাণ পরিষদ মিলনায়তনে বাংলাদেশ জাসদের আলোচনাসভায় দলটির সভাপতি শরিফ নুরুল আম্বিয়া বলেন, তাহের একজন মহান দেশপ্রেমিক, নির্ভীক ও বিরল ব্যক্তিত্বের মানুষ ছিলেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা