kalerkantho

শুক্রবার । ২৩ আগস্ট ২০১৯। ৮ ভাদ্র ১৪২৬। ২১ জিলহজ ১৪৪০

বন্যার পানি কোথাও বাড়ছে কোথাও কমছে, দুর্ভোগ কমছে না

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২১ জুলাই, ২০১৯ ০৯:১২ | পড়া যাবে ৮ মিনিটে



বন্যার পানি কোথাও বাড়ছে কোথাও কমছে, দুর্ভোগ কমছে না

ফরিদপুর সদর, চরভদ্রাসন ও সদরপুর উপজেলায় পদ্মা নদী ও আড়িয়ালখাঁ নদে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। গাইবান্ধায় ব্রহ্মপুত্র ও ঘাঘট নদীর পানি ধীরগতিতে হ্রাস পেলেও করতোয়া নদীর পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে ৭৫টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। ময়মনসিংহে পানিতে ডুবে তিন শিশু এবং জামালপুরে পানিতে ডুবে ও সাপের ছোবলে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। রাজবাড়ীতে পদ্মার পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ে খড়িয়া গ্রামের ১০টি পরিবারের ভিটেমাটি পদ্মার গর্ভে বিলীন হয়েছে। শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলায়ও চলছে পদ্মার ভাঙন। প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোথাও কোথাও ত্রাণ বিতরণ করা হলেও তা ছিল অপ্রতুল। জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলার আওনা ইউনিয়নের একটি গ্রামে ত্রাণের চাল মাপে কম দেওয়ার প্রতিবাদ করায় ত্রাণ বিতরণকারী যুবলীগ নেতা আনোয়ার হোসেন রাঙার নেতৃত্বে তাঁর লোকজনের পিটুনির শিকার হয়েছে ত্রাণ নিতে আসা বন্যার্ত নারীসহ সাতজন। কালের কণ্ঠের নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর :

ফরিদপুরের তিন উপজেলায় পানি বৃদ্ধি অব্যাহত

ফরিদপুর সদর, চরভদ্রাসন ও সদরপুর উপজেলায় পদ্মা নদী ও আড়িয়ালখাঁ নদে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। সদরপুরের চরমানাইর ইউনিয়নে আড়িয়ালখাঁ নদে ভাঙনও চলছে। গতকাল গোয়ালন্দ পয়েন্টে পদ্মা নদীর পানি বিপত্সীমার ৬৬ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে বইছিল। চরভদ্রাসন উপজেলার চার ইউনিয়নের কয়েকশ পরিবার পানিবন্দি। এখানে ৪০টি পরিবারকে শুকনো খাবার দেওয়া হয়েছে।

চরমানাইর ইউনিয়নের জাজিরা কান্দি ফাজিল মাদরাসা ভবনটি আড়িয়ালখাঁ নদের ভাঙনে বিলীন হয়ে গেছে।

গাইবান্ধায় করতোয়ায় পানি বৃদ্ধি

গাইবান্ধায় বন্যার পানি কমতে শুরু করেছে। ব্রহ্মপুত্র ও ঘাঘট নদীর পানি ধীরগতিতে হ্রাস পেলেও করতোয়া নদীর পানি এখন বৃদ্ধি পাচ্ছে। ফলে গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার মহিমাগঞ্জ এলাকায় বাঙালী নদীর পানির তোড়ে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ভেঙে যাওয়ায় নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে। এদিকে বন্যার পানিতে ডুবে গত তিন দিনে গোবিন্দগঞ্জের মহিমাগঞ্জ সুগার মিল এলাকায় মনু মিয়ার মেয়ে মুন্নি (৭) এবং সাঘাটা উপজেলার মুক্তিনগর ইউনিয়নের জাহেদুল ইসলামের মেয়ে জান্নাতী খাতুন (১০) মারা গেছে। এ নিয়ে জেলায় বন্যার পানিতে ডুবে পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে।

রেললাইনের ওপর দিয়ে পানিপ্রবাহ অব্যাহত থাকায় লালমনিরহাট-সান্তাহার রুটে গাইবান্ধার ত্রিমোহিনী রেলস্টেশন থেকে বোনারপাড়া জংশন পর্যন্ত ট্রেন চলাচল গত বুধবার থেকে চার দিন বন্ধ রয়েছে। জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, ১৮০টি আশ্রয়কেন্দ্রে ৭৪ হাজার ১০৪ জন আশ্রয় নিয়েছে। গাইবান্ধা পৌর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে পৌর ও সদর উপজেলার বানভাসি মানুষের জন্য গতকাল শুকনো খাবার হিসেবে রুটি তৈরির কর্মসূচি উদ্বোধন করেন জাতীয় সংসদের হুইপ মাহাবুব আরা বেগম গিনি।

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে ৭৫টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ

বন্যার কারণে সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে ৭৫টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। অব্যাহত বৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা ঢলে এক সপ্তাহ ধরে জগন্নাথপুর পৌর এলাকাসহ উপজেলার কলকলিয়া চিলাউড়া হলদিপুর, রানীগঞ্জ, সৈয়দপুর-শাহারপাড়া, আশারকান্দি ও পাইলগাঁও ইউনিয়নসহ উপজেলার নিম্নাঞ্চলের ৪০টি গ্রামের মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।

জামালপুর-টাঙ্গাইল-ঢাকা মহাসড়কে পানি, তিনজনের মৃত্যু

জামালপুরে যমুনা নদীর পানি ২৪ ঘণ্টায় ২৬ সেন্টিমিটার কমলেও গতকাল বিকেলে বিপত্সীমার ১৩০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল। পানি কমলেও যমুনা নদী তীরবর্তী দেওয়ানগঞ্জ এবং ইসলামপুর উপজেলার বন্যাকবলিত এলাকায় বন্যার্তরা দুর্ভোগে রয়েছে। গতকাল ভোর থেকে জামালপুর-টাঙ্গাইল-ঢাকা মহাসড়ক ঝুঁকিতে রয়েছে। জেলার বিভিন্ন স্থানে পানিতে ডুবে এবং সাপের ছোবলে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে একজন বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী ছেলে (১০) রয়েছে।   

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, জেলার সাতটি উপজেলায় এখনো আট লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি অবস্থায় চরম দুর্ভোগে রয়েছে।

গতকাল দুপুর ১টার দিকে সরিষাবাড়ী উপজেলার আওনা ইউনিয়নের পশ্চিম দৌলতপুর গ্রামে বন্যার্তদের মাঝে বিতরণের সময় ত্রাণের চাল মাপে কম দেওয়ার প্রতিবাদ করায় ত্রাণ বিতরণকারী প্রভাবশালী স্থানীয় যুবলীগ নেতা আনোয়ার হোসেন রাঙার নেতৃত্বে ত্রাণ নিতে আসা লোকজনের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। হামলাকারীদের লাঠিপেটায় চায়না বেগম নামের একজন বন্যার্ত নারীসহ সাতজন গুরুতর আহত হয়েছে।

লৌহজংয়ে ফের পদ্মার থাবা, ১০টি ভিটাবাড়ি বিলীন

তিন দিনের ব্যবধানে মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার খড়িয়া গ্রামের ১০টি পরিবারের ভিটামাটি পদ্মা নদীর গর্ভে বিলীন হয়েছে। ভাঙনের ঝুঁকিতে রয়েছে আরো অন্তত ২০টি পরিবার ও খড়িয়া মসজিদ। নদীভাঙনের শিকার কুমারভোগ ইউপি সদস্য জাকির হোসেন জানান, গত দুই দিনে অন্তত ৬০ হাত জায়গা নদীর গর্ভে তলিয়ে গেছে। একই গ্রামের বাসিন্দা অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য রফিজউদ্দিন জানান, নদীর পারে মাসের পর মাস ভারী জাহাজ ও ট্রলার ভেড়ানোর কারণে ভাঙনের মাত্রা বেশি হয়েছে।

ময়মনসিংহের হালুয়াঘাটে পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু

ময়মনসিংহের হালুয়াঘাট উপজেলায় বন্যার পানিতে ডুবে দুই শিশু এবং ফুলপুরে ডুবে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। গতকাল দুপুরে হালুয়াঘাটের আমতৈল ইউনিয়নে নিহত জিহাদ হুসাইন (৯) ও তানজিদ (৬) চাচাতো ভাই। স্থানীয় বাজারে চুল কেটে বাড়ি ফেরার পথে রাস্তার পাশে বন্যার পানিতে পড়ে যায় তারা। স্রোতে একজনকে ভাসিয়ে নিতে থাকলে অন্যজন উদ্ধারে এগিয়ে গেলে সে-ও ভেসে যায়। পরে তাদের লাশ উদ্ধার করা হয়। ফুলপুর উপজেলায় সোনিয়া আক্তারের (১১) লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। নগুয়া গ্রামে গতকাল বিকালে পাঁচ বান্ধবী মিলে বন্যার পানি দেখতে গিয়ে তারা রাস্তার পাশে খালের পানিতে প্রবল সে াতের মধ্যে  পড়ে যায়। এ ঘটনায় আহত চারজনকে ফুলপুর উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করা  হয়েছে।

রাজবাড়ীর ২০ সহস্রাধিক মানুষ পানিবন্দি

হু হু করে বাড়ছে রাজবাড়ীর পদ্মা নদীর অংশের পানি। ফলে রাজবাড়ী সদর, কালুখালী ও গোয়ালন্দ উপজেলার নিম্নাঞ্চলের ২০ হাজারেরও বেশি মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। জেলার কালুখালীর রতনদিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মেহেদী হাচিনা পারভীন জানান, তাঁর ইউনিয়নের মাহেন্দ্রপুর, লস্কারদিয়া নারায়ণপুর, বিজয়নগর, মাধবপুর, চর রাজপুর, আলোকদিয়া, হরিণবাড়িয়া, বল্লবপুর, ভাগলপুর, গঙ্গানন্দপুর গ্রামগুলোর ২০ হাজারের মতো মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। সদর উপজেলার বরাট ইউনিয়নের নয়নসুখ এলাকার ২০৫টি পরিবারকে গতকাল শুকনা খাবার বিতরণ করেছেন জেলা প্রশাসক।

শরীয়তপুরে বাড়ছে পদ্মার ভাঙন

শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার পূর্ব নাওডোবা ইউনিয়নে পদ্মা নদীর পার ভাঙতে শুরু করেছে। উকিল উদ্দিন মুন্সীরকান্দি গ্রামের ভাঙনের মাত্রা সবচেয়ে বেশি। গত পাঁচ দিনের ব্যবধানে পদ্মা নদীর ভাঙনে উকিল উদ্দিন মুন্সীরকান্দি গ্রামের ভাঙনের কবলে পড়ে বিলীন হয়েছে পদ্মাপারের ১০ বিঘা ফসলি জমি। ভিটামাটি ছেড়ে নিরাপদ স্থানে সরে গেছে আটটি পরিবার। পানি ঢুকে পড়ায় চারটি বিদ্যালয়ের পাঠদান সাময়িকভাবে বন্ধ রাখা হয়েছে।

‘সাইয্য চাই না, বানডা ঠিক কইরা দেন’

‘আমরা সাইয্য চাই না, বানডা ঠিক কইরা দেন’, কথাগুলো বলছিলেন বেতমারি গ্রামের রংগি বেগম (৪৬)। শেরপুর সদরের বেতমারি-ঘুঘুরকান্দি ইউনিয়নের বেতমারি গ্রামে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বেড়িবাঁধ প্রায় ২০০ ফুটের মতো ভেঙে প্রবল বেগে বন্যার পানি আশপাশের এলাকায় প্রবেশ করে। ভাঙন এলাকায় বাঁশ, কলাগাছ এবং অন্যান্য কিছু ফেলে ভাঙনের তীব্রতা কমানোর চেষ্টা করছিলেন মো. হারুন মিয়াসহ (৩৫) আরো কয়েকজন। তিনি বলেন, ‘বেরিবান ছুইট্টা আমগরে গরু-বাছুর সব ভাসাই নিয়া গেছেগা। বাড়িঘর সব কিছু ভাইংগা গেছে।’

পুরনো ব্রহ্মপুত্র নদের পানি গতকাল শেরপুর ফেরিঘাট পয়েন্টে বিপত্সীমার ১৭ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় জেলায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতি ঘটে। ব্রহ্মপুত্রের পানি আরো তিন দিন বাড়বে বলে জানিয়েছেন পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা।

শুক্রবার রাতে বন্যার পানিতে নিখোঁজ হওয়ার আট ঘণ্টা পর সদর উপজেলার চরপক্ষিমারি ইউনিয়নের নতুন ভাগলগড় গ্রামের সামেদুল ইসলামের ছেলে সপ্তম শ্রেণির ছাত্র রুবেল হোসেনের (১৩) লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এ নিয়ে চলতি বন্যার পানিতে ডুবে শেরপুর জেলায় ছয় শিশুসহ আটজনের মৃত্যুর ঘটনা ঘটল।

সিরাজগঞ্জে পানি কমলেও মানুষের দুর্ভোগ কমেনি

সিরাজগঞ্জে যমুনা নদীর পানি কমলেও বেড়েছে দুর্ভোগ। ২৪ ঘণ্টায় যমুনা নদীর পানি ৯ সেন্টিমিটার কমে বিপত্সীমার ৯০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। জেলার ছোট ও বড় ১০টি শাখা নদীতেও পানি ঢুকে নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত  হচ্ছে। এতে পানিবন্দি হয়ে পড়েছে হাজার হাজার মানুষ। তলিয়ে গেচ্ছে নিম্নাঞ্চলের ফসলি জমি। দেখা দিচ্ছে গোখাদ্য সংকট।

জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা আব্দুর রহিম বলেন, এ পর্যন্ত জেলার পাঁচটি উপজেলার ৩৫টি ইউনিয়নের ১৮১টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এসব গ্রামের ২১ হাজার ৫৫২ পরিবারের লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। বন্যার্তদের বিতরণের জন্য ৪৯৪ টন চাল এবং আট লাখ টাকা মজুদ রয়েছে।

কমলগঞ্জে ১০টি সড়কের ছয় কিলোমিটার ভেঙে গেছে

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলায় বন্যায় গ্রামীণ ১০টি সড়কের প্রায় ছয় কিলোমিটার এলাকা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এসব সড়কের বিভিন্ন অংশে বিশাল গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। কয়েকটি সড়কের কোনো কোনো অংশ একেবারেই ভেঙে গেছে। এতে যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা