kalerkantho

রবিবার। ১৮ আগস্ট ২০১৯। ৩ ভাদ্র ১৪২৬। ১৬ জিলহজ ১৪৪০

জি এম কাদের এখন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৯ জুলাই, ২০১৯ ০৯:১১ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



জি এম কাদের এখন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান

হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মৃত্যুর পর জি এম কাদের এখন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে জাপা চেয়ারম্যানের বনানীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে দলের চেয়ারম্যান হিসেবে তিনি বক্তব্য দেন। এর আগে তাঁকে সংগঠনের চেয়ারম্যান হিসেবে পরিচয় করিয়ে দেন পার্টির মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা।

গত ৪ মে জাপার প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ তাঁর বারিধারার বাসভবন প্রেসিডেন্ট পার্কে এক জরুরি সংবাদ সম্মেলনে শেষবারের মতো পার্টির গঠনতন্ত্রের ২০/১/ক ধারা মোতাবেক ছোট ভাই জি এম কাদেরকে পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব অর্পণসহ তাঁকে নিজের অনুপস্থিতে জাতীয় পার্টির ভবিষ্যৎ চেয়ারম্যান উল্লেখ করে এক চিঠি প্রকাশ করেন।’ ওই চিঠিই জি এম কাদেরের চেয়ারম্যান হওয়ার মূল ভিত্তি।

সংবাদ সম্মেলনে জি এম কাদের বলেন, ‘জাতীয় পার্টিতে কোনো বিরোধ নেই। আমরা সবাই ঐক্যবদ্ধ আছি।’ তিনি বলেন, ‘দলীয় গঠনতন্ত্র মোতাবেক দলীয় ফোরামে আলোচনা করে এইচ এম এরশাদের শূন্য আসনে দলীয় প্রার্থী ঠিক করা হবে। এ ছাড়া বিরোধীদলীয় নেতার বিষয়টি আমরা দলীয় সিদ্ধান্ত নিয়ে স্পিকারকে জানিয়ে দেব।’

এ সময় জি এম কাদের মিডিয়াকর্মীসহ দেশের মানুষের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান এরশাদের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ ও জানাজায় অংশ নেওয়ায়। বিশেষভাবে কৃতজ্ঞতা জানান সরকার, প্রধানমন্ত্রী, দেশের সেনাবাহিনী, বাংলাদেশে অবস্থানরত বিভিন্ন দেশের কূটনীতিক, সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালের চিকিৎসদের প্রতি।

জি এম কাদের বলেন, ‘এরশাদের মরদেহ দাফন করার জন্য দুটি প্রস্তাব ছিল ঢাকায় সামরিক কবরস্থান ও রংপুরে। রংপুরবাসীর প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে আমরা রংপুরে দাফনের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। দ্রুত আমরা একটি স্মরণসভার আয়োজন করব।’

মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা বলেন, ‘অসুস্থ হওয়ার আগে এইচ এম এরশাদ সাংগঠনিক নির্দেশে গোলাম মোহাম্মদ (জি এম) কাদের এমপিকে পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান এবং তাঁর অবর্তমানে পার্টির চেয়ারম্যান হিসেবে ঘোষণা করেন। তাই জি এম কাদের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছেন। গণমাধ্যমের প্রতি এখন থেকে জি এম কাদেরকে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হিসেবে উল্লেখ করার অনুরোধ জানাই।’

এ সময় উপস্থিত ছিলেন সংসদ সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদ ও সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা; সুনীল শুভ রায়, এস এম ফয়সাল চিশতী, মো. আজম খান, এ টি ইউ তাজ রহমান, মেজর (অব.) খালেদ আখতার, শফিকুল ইসলাম সেন্টু, অ্যাডভোকেট রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া, ফখরুজ্জামান জাহাঙ্গীর, জাফর ইকবাল সিদ্দিকী, উপদেষ্টা ড. নুরুল আজহার, ভাইস চেয়ারম্যান অধ্যাপক ইকবাল হোসেন রাজু, হাসিবুল ইসলাম জয়, আমির উদ্দিন আহমেদ ডালু প্রমুখ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা