kalerkantho

মঙ্গলবার। ২০ আগস্ট ২০১৯। ৫ ভাদ্র ১৪২৬। ১৮ জিলহজ ১৪৪০

সংসদীয় কমিটির সুপারিশ

৫০ জনকে সরকারি খরচে হজে পাঠানো হচ্ছে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৬ জুলাই, ২০১৯ ১৯:২৪ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



৫০ জনকে সরকারি খরচে হজে পাঠানো হচ্ছে

ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্যরা প্রত্যেকে পাঁচজনকে সরকারি খরচে হজে পাঠাচ্ছন কমিটিতে সভাপতিসহ ১০জন সদস্য রয়েছেন। অর্থাৎ সরকারি খরচে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সুপারিশে ৫০ জন হজ করার সুযোগ পাচ্ছেন। 

মঙ্গলবার বিকেলে জাতীয় সংসদ ভবনে সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এ তথ্য জানানো হয়। সংসদীয় কমিটির সভাপতি হাফেজ রুহুল আমীন মাদানীর সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য নজিবুল বশর মাইজভান্ডারী, শওকত হাচানুর রহমান (রিমন), মনোরঞ্জন শীল গোপাল, মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী, এইচ এম ইব্রাহিম, জিন্নাতুল বাকিয়া, মোসা. তাহমিনা বেগম এবং রত্না আহমেদ উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকে বিশেষ আমন্ত্রণে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট শেখ মো. আব্দুল্লাহ অংশ নেন।

বৈঠক শেষে কমিটির সভাপতি হাফেজ রুহুল আমীন মাদানী সাংবাদিকদের জানান, কমিটির সদস্যদের মনোনীত হাজীদের পাঠানোর কার্যক্রম ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে। চলতি বছরেই পর্যায়ক্রমে তারা হজে যাবেন। বৈঠকে হজযাত্রীদের সকল প্রকার সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করার তাগিদ দেওয়া হয়েছে বলেও তিনি জানান।

বৈঠকে জানানো হয়, মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) সকাল ৮টা পর্যন্ত বাংলাদেশ বিমানের ৭৪টি ও সৌদি এয়ারলাইন্সের ৭৬টি ফ্লাইটে মোট ৫৪ হাজার ৭৬৫ জন হজযাত্রী সৌদি আরব পৌছেছেন। এবছর এক লাখ ২৭ হাজার জন হজ করবেন। তারমধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজ করবেন ৬ হাজার ৯২৩ জন হজ করবেন। আর বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় এক লাখ ২০ হাজার জন। এছাড়া ৫০০ জন ওয়ারকিং মেম্বর রয়েছেন। এদের মধ্যে ১৪ জুলাই পর্যন্ত ভিসা হয়েছে সরকারি ব্যবস্থাপনায় ৬ হাজার ৪৬৯ জন, বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ৭০ হাজার ১৫৯ জনের। আর ওয়ার্কিং মেম্বরদের মধ্যে ৪৪৮ জনসহ মোট ৭৭ হাজার ৭৬ জনের। 

বৈঠকে আরো জানানো হয়, এবছর হজ সংক্রান্ত বিভিন্ন দল গঠণ করা হয়েছে। তারমধ্যে ১০ সদস্য বিশিষ্ট হজ প্রতিনিধি দল, ২৪৯ সদস্য বিশিষ্ট হজ চিকিৎসক দল, ৫৭ সদস্য বিশিষ্ট হজ প্রশাসনিক দল, ৫৮ সদস্য বিশিষ্ট ওলামা মাশায়েখ দল, ১৮ সদস্য বিশিষ্ট কারিগরি দল এবং ১১৮ সদস্য বিশিষ্ট হজ সহায়ক দল রয়েছে। গঠিত দলগুলো থেকে প্রথম পর্যায়ে ১৭১জন সদস্যকে ইতোমধ্যে সরকারি খরচে সৌদি আরবে পাঠানো হয়েছে। 

এদিকে হজ সহায়তাকারী হিসেবে মালি, গাড়ি চালকসহ ও অন্যান্যদের নাম তালিকাভুক্ত হওয়ায় সমালোচনার ঝড় উঠলেও কমিটিতে এসব নিয়ে কোনো আলোচনা হয়নি। এবিষয়ে কমিটি সভাপতি হাফেজ রুহুল আমীন মাদানী বলেন, বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করার ইচ্ছে ছিল। কিন্তু অন্যান্য আলোচনা করার পর আর সময় হয়নি। তিনি আরো বলেন, হজ সহায়তাকারী হিসেবে মেডিকেল টিমে দেখা গেছে মালি, গাড়ি চালক, পাচক গেছে। বিষয়টি ঠিক হয়নি। মেডিকেল টিমের অনেকেই ছিল যারা বাদ পড়েছেন, তাদের মধ্যে থেকে নেওয়া যেত। এটা আসলে কেউ না কেউ ঢুকিয়েছেন। যেহেতু চলে গেছে এখন তো আর কিছু করার নেই। আগামীতে যেন না ঘটে সে বিষয়ে মন্ত্রণালয়কে অবহিত করা হবে। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা