kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৩ জুলাই ২০১৯। ৮ শ্রাবণ ১৪২৬। ১৯ জিলকদ ১৪৪০

আপত্তিকর ভাষায় দুদকের চিঠি, সাংবাদিকদের প্রতিবাদ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৬ জুন, ২০১৯ ১২:১৬ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



আপত্তিকর ভাষায় দুদকের চিঠি, সাংবাদিকদের প্রতিবাদ

মঙ্গলবার অনলাইন নিউজ পোর্টাল বাংলা ট্রিবিউনের বিশেষ প্রতিনিধি দীপু সারোয়ার ও বেসরকারি টেলিভিশন এটিএন নিউজের জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ইমরান হোসেন সুমনকে প্রকাশিত সংবাদের বিষয়ে বক্তব্য দিতে তলব করেছিল দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। এ চিঠির প্রতিবাদে আজ বুধবার সকালে দুদক কার্যালয়ের সামনে সাংবাদিকরা বিক্ষোভ করেন। তবে চিঠিতে 'আপত্তিকর' ভাষা ব্যবহার করায় সাংবাদিকদের প্রতিবাদের মুখে সে চিঠি প্রত্যাহার করে নেয়া হবে বলে জানিয়েছে দুদক।

দুদকের অনুসন্ধান কর্মকর্তা ও পরিচালক শেখ মোহাম্মদ ফানাফিল্যা কালের কণ্ঠকে বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, আমরা চিঠিটির আপত্তিকর সব শব্দ প্রত্যাহার করে নিচ্ছি এবং এ ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করছি। আমরা তাঁকে পুনরায় চিঠি প্রদান করব।

এদিকে এ চিঠির প্রতিবাদে আজ বুধবার সকালে দুদক কার্যালয়ের সামনে সাংবাদিকরা বিক্ষোভ করেন। রাজধানীর সেগুন বাগিচায় দুদক কার্যালয়ের প্রধান গেটের সামনে অবস্থা নিয়ে ঢাকায় কর্মরত বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের প্রায় শতাধিক সংবাদকর্মী বিক্ষোভ করছেন। অঘোষিত এ বিক্ষোভ কর্মসূচি থেকে দুদককে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান করা হয়। দুদকের দুর্নীতি নিয়ে প্রতিবেদন করার কারণেই দুই সাংবাদিককে নোটিশ দিয়ে পক্ষান্তরে রাষ্ট্রীয় সংস্থাটি ‘হুমকি’ দিচ্ছে বলে অভিযোগ করছেন গণমাধ্যকর্মীরা।

বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (ক্র্যাব) সাংগঠনিক সম্পাদক রাশেদ নিজাম গণমাধ্যমকে বলেন, এটা কোনো চিঠির ভাষা হতে পারে না। তারা (দুদক) সাংবাদিকদের কাছ থেকে অনুসন্ধানের বিষয়ে সহযোগিতা চাইতে পারতো। কিন্তু তারা যে ভাষায় চিঠি দিয়েছে তা গ্রহণযোগ্য নয়। এ চিঠির জন্য তাদেরকে (দুদক) ক্ষমা চাইতে হবে।

অনলাইন নিউজ পোর্টাল বাংলা ট্রিবিউনের বিশেষ প্রতিনিধি দীপু সারোয়ার ও বেসরকারি টেলিভিশন এটিএন নিউজের জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ইমরান হোসেন সুমনকে প্রকাশিত সংবাদের বিষয়ে বক্তব্য দিতে তলব করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। মঙ্গলবার (২৫ জুন) সংস্থাটির পরিচালক ও অনুসন্ধান দলের প্রধান শেখ মো. ফানাফিল্যা স্বাক্ষরিত পৃথক চিঠিতে তাদের আজ (২৬ জুন, বুধবার) সকাল সাড়ে ১০টায় দুদকের প্রধান কার্যালয়ে হাজির হতে বলা হয়।

দুদকের দুটি চিঠিতেই অভিযোগের সংক্ষিপ্ত বিবরণী হিসেবে উল্লেখ করা হয়, দুদকের পরিচালক খন্দকার এনামুল বাছিরের বিরুদ্ধে ডিআইজি মিজানুর রহমানের কাছ থেকে ৪০ লাখ টাকা ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ প্রসঙ্গে আপনার সাক্ষ্যগ্রহণ ও শ্রবণ একান্ত প্রয়োজন। এতে আরও বলা হয়, ‘উল্লিখিত অভিযোগের বিষয়ে আগামী ২৬/০৬/২০১৯ খ্রি. তারিখ ১০.৩০ ঘটিকায় নিম্নস্বাক্ষরকারীর কার্যালয়ে উপস্থিত হয়ে বক্তব্য প্রদানের জন্য আপনাকে অনুরোধ করা হলো। অন্যথায় আইনানুগ কার্যধারা গৃহীত হবে।’

মন্তব্য