kalerkantho

মঙ্গলবার। ১৬ জুলাই ২০১৯। ১ শ্রাবণ ১৪২৬। ১২ জিলকদ ১৪৪০

কৃষকদের মাঝে লবণ খরা ও বন্যা সহনশীল ধান বীজ বিতরণ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৬ জুন, ২০১৯ ০১:২৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কৃষকদের মাঝে লবণ খরা ও বন্যা সহনশীল ধান বীজ বিতরণ

বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা লিডার্সের উদ্যোগে আমন মৌসুমে কৃষকদের মাঝে লবণ খরা ও বন্যা সহনশীল ধান বীজ বিতরণ করা হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে সাতক্ষীরা জেলার শ্যামনগর উপজেলার মুন্সিগঞ্জস্থ লিডার্সের প্রধান কার্যালয়ে অনুষ্ঠানিকভাবে দুই হাজার ৯৬০ কেজি ধান বীজ প্রদান করা হয়। এর মধ্যে বিআর-২৩, ব্রি-৪১, ব্রি-৫২, ব্রি-৫৪ ও ব্রি-৭৩ জাতের ধান বীজ ছিল।
 
লিডার্সের কার্যকরী পরিষদের সভাপতি বিধুস্রবা মন্ডলের সভাপতিত্বে বীজ বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন স্থানীয় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এস এম আতাউল হক দোলন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন লিডার্সের নির্বাহী পরিচালক মোহন কুমার মন্ডল। 
 
বক্তৃতা করেন লিডার্সের কার্যকরী পরিষদের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মাস্টার নজরুল ইসলাম, কার্যকরী পরিষদের সদস্য মানবেন্দ্র দেবনাথ ও রনজিৎ বর্মন। অনুষ্ঠানের পূর্বে কৃষকদের বীজ তলা তৈরি ও বপন কৌশল নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা পারভেজ জামান।
 
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে আতাউল হক দোলন বলেন, জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় অভিযোজিত কৃষি ব্যবস্থায় আনার জন্য কৃষকদের মাঝে ফ্রি ধান বীজ বিতরণ করায় লিডার্সের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই। কারণ উপকূলীয় এলাকায় জীবনযাত্রা স্বাভাবিক রাখতে কৃষিকে বাঁচিয়ে রাখতে হবে। সরকারি প্রতিষ্ঠান কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের পাশাপশি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান অভিযোজিত কৃষির জন্য কাজ করছে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।
 
নির্বাহী পরিচালক মোহন কুমার মন্ডল বলেন, জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় করে টিকে থাকতে হলে অভিযোজিত কৃষির বিকল্প নেই। তাই অভিযোজিত কৃষি চর্চার জন্য উপকূলীয় এলাকায় ধান বীজ ও সবজির বীজ দেওয়া হচ্ছে। এই বীজ বিএডিসি হতে সংগ্রহ করা হয়েছে। যে বীজ ডিলারদের কাছে পাওয়া যাবে না। তিনি এই বীজ খাদ্য হিসাবে ব্যবহার না করে সঠিক ভাবে বীজতলা তৈরির পর বীজগুলো বপনের আহবান জানান।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা