kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৮ জুলাই ২০১৯। ৩ শ্রাবণ ১৪২৬। ১৪ জিলকদ ১৪৪০

বগুড়া-৬ উপনির্বাচন বিএনপির প্রেস্টিজ ইস্যু, আওয়ামী লীগের জন্য পরীক্ষা

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা ও বগুড়া    

২৪ জুন, ২০১৯ ০৮:৫৭ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বগুড়া-৬ উপনির্বাচন বিএনপির প্রেস্টিজ ইস্যু, আওয়ামী লীগের জন্য পরীক্ষা

বগুড়া-৬ (সদর) আসনে উপনির্বাচন আজ সোমবার। নির্বাচনে সাতজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও লড়াইয়ের আভাস মূলত আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মধ্যে। তবে জোটভুক্ত দল হিসেবে জাতীয় পার্টিও লড়াইয়ের মাঠে থাকছে। বরাবর ধানের শীষের দখলে থাকা আসনটি রক্ষা করা বিএনপির জন্য প্রেস্টিজ ইস্যু হয়ে দাঁড়িয়েছে। আবার জোট বাদ দিয়ে এককভাবে দলীয় প্রার্থী দেওয়ায় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের জন্যও এটি একটি পরীক্ষা।

গতকাল রবিবার জেলা নির্বাচন অফিস সূত্র জানায়, এই আসনের প্রতিটি কেন্দ্রে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ চলবে।

নির্বাচন কমিশনের তথ্য অনুসারে, বগুড়া-৬ উপনির্বাচনে ১৪১টি কেন্দ্রের ৯৬৫টি কক্ষে ভোটগ্রহণ করা হবে। প্রতিটি কেন্দ্রে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য থাকবে ১৯ জন। নির্বাচনী এলাকায় স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে র‌্যাবের ১৪টি ও পুলিশের ১৩টি দল এবং বিজিবির ১৩টি প্লাটুন দায়িত্ব পালন করছে। এ ছাড়া ৯ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও একজন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নির্বাচনী এলাকায় দায়িত্ব পালন করছেন। নির্বাচন কমিশনের বিশেষ পর্যবেক্ষক রয়েছেন তিনজন।

গত ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বগুড়া-৬ আসনে নির্বাচিত হন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি নির্ধারিত সময়ে শপথ না নেওয়ায় আসনটি শূন্য ঘোষণা করা হয়। এখন উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগের টি জামান নিকেতা (নৌকা), বিএনপির গোলাম মোহাম্মদ সিরাজ (ধানের শীষ), জাতীয় পার্টির নুরুল ইসলাম ওমর (লাঙল), মুসলিম লীগের রফিকুল ইসলাম (হারিকেন), বাংলাদেশের কংগ্রেসের মুনসুর রহমান (ডাব) ও মিনহাজ মণ্ডল (আপেল) প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

ভোটারদের অভিযোগ, শুরু থেকেই এই আসনে নির্বাচনী প্রচারণা ছিল শহরমুখী। তাই ভোটের খুব একটা আমেজ নেই গ্রামাঞ্চলে। এই আসনের সব কটি কেন্দ্রে এবার ভোট হবে ইভিএমে। এরই মধ্যে মক ভোটিং হয়ে গেছে। তবে খুব একটা সাড়া মেলেনি ভোটারদের। সাধারণ ভোটাররা প্রথমে খুব একটা আগ্রহ না দেখালেও শেষ সময়ে বলছেন যে ভোট দেবেন দেখেশুনে।

বিএনপির দুর্গ হিসেবে পরিচিত এই আসনে বিএনপির নেতাকর্মীরাই বলছেন, দুই দফা সরকারবিরোধী আন্দোলনে ব্যর্থতা আর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর হতাশা জেঁকে বসেছে বিএনপিতে। দলের শীর্ষ নেতাদের বক্তব্যে সমন্বয়হীনতা স্পষ্ট। এসব নিয়ে নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ আছে। তবে দলের শৃঙ্খলার কথা ভেবে সরাসরি মুখ খুলছে না কেউ।

এদিকে বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আলহাজ মমতাজ উদ্দিনের মৃত্যুর পর কিছুটা শূন্যতা সৃষ্টি হয় দলে। শেষ পর্যন্ত সংকট কাটিয়ে নির্বাচনমুখী হয়ে মাঠে থাকে দলের সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা। তারা বলছে, সাধারণ ভোটাদের মন জয় করে ভোটে জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী।

তবে এই নির্বাচনে বগুড়ার অন্যতম শক্তিশালী রাজনৈতিক সংগঠন জামায়াতের ভূমিকা নিয়ে রহস্য সৃষ্টি হয়েছে। রাজনৈতিক মামলা ও বৈরী রাজনৈতিক পরিস্থিতির কারণে দলটির বেশির ভাগ সিনিয়র নেতাই হয় কারাগারে নয়তো আত্মগোপনে। তবে সাংগঠনিক তৎপরতা গোপনে ঠিকই চলছে। শুরু থেকেই জামায়াত বগুড়া উপনির্বাচন থেকে নিজেদের গুটিয়ে রেখেছে।

এ ছাড়াও আজ সোমবার বগুড়া-৬ আসনের উপনির্বাচন ছাড়াও দেশের আটটি পৌরসভায় মেয়র ও কাউন্সিলরদের শূন্য পদে নির্বাচন হতে যাচ্ছে। মেয়রের শূন্য পদে নির্বাচন হবে হবিগঞ্জ পৌরসভায়। আর মৌলভীবাজারের বড়লেখা, চট্টগ্রামের সাতকানিয়া, ঝিনাইদহের শৈলকুপা, পটুয়াখালীর কলাপাড়া, ময়মনসিংহের গৌরীপুর, যশোরের অভয়নগর ও ফরিদপুরের মধুখালীতে একটি করে সাধারণ বা সংরক্ষিত ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে নির্বাচন হবে।

খবরটি ইউনিকোড থেকে বিজয়ে নিতে ব্যবহার করুন কালের কণ্ঠের বাংলা কনভার্টার-
https://www.kalerkantho.com/home/converter

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা