kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৩ জুলাই ২০১৯। ৮ শ্রাবণ ১৪২৬। ১৯ জিলকদ ১৪৪০

চুমু দিয়ে তরুণীকে ব্রনের চিকিৎসা, পপুলার ছাড়তে হল চিকিৎসককে

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৭ জুন, ২০১৯ ২০:০৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চুমু দিয়ে তরুণীকে ব্রনের চিকিৎসা, পপুলার ছাড়তে হল চিকিৎসককে

- আপনি আমাকে কি মনে করে কিস করলেন?
- আমি তো কিস করি নাই, ওইখানে একটা দাগ আছে তো!
- ওইটা কি মুখ দিয়ে ঠোট দিয়ে দেখতে হয়?
- ওইখানে ইনফেকশন আছে কি না সেটা দেখেছি।

কথাগুলো একজন চিকিৎসক ও তার রোগীর। রাজধানীর ধানমন্ডি পপুলার হাসপাতালের চর্ম ও যৌনরোগ বিশেষজ্ঞ এবং লেজার কসমেটিক সার্জন ডা. মো. শওকত হায়দারের কাছে ব্রনের চিকিৎসা করাতে যান ডেফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই শিক্ষার্থী। ব্রনের ইনফেকশন চেক করতে গিয়ে ওই ছাত্রীর গালে চুমু খান চিকিৎসক এবং ইনজেকশন দেয়ার নাম করে বিভিন্ন স্পর্শকাতর স্থানে হাত দেন। এই ঘটনায় পপুলার হাসপাতালের প্রশাসনিক কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন ওই শিক্ষার্থী। পরে চিকিৎসককে এ হাসপাতাল থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই ছাত্রী এবং চিকিৎসকের মধ্যকার ফোনালাপটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে যায়।

জানা যায়, গত শনিবার (১৫ জুন) ডা. মো. শওকত হায়দারের কাছে যাযন বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই ছাত্রী। এসময় ব্রনের স্থায়ী সমাধানে ইনজেকশন দেয়ার কথা বলেন ডা. শওকত। এরপর ইনজেকশন দেয়ার নাম করে ছাত্রীর বিভিন্ন স্পর্শকাতর স্থানে হাত দেন। এ রকম আচরণে দ্রুত ছাত্রীটি বের হওয়ার চেষ্টা করে। এ সময় আবার গালে ব্রন ইনফেকশনের নাম করে ডা. শওকত হায়দার ওই ছাত্রীর গালে চুমু খান। এ ঘটনার পর মানসিকভাবে ভেঙে পড়েন ওই ছাত্রী। তিনি পরিবারের সঙ্গে আলোচনা করে ওই চিকিৎসকের বিরুদ্ধে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন।

হাসপাতালটির মহাব্যবস্থাপক সুকুমার রায় বলেন, ডা. শওকত হায়দার আমাদের এখানে বসে রোগী দেখতেন। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠায় কর্তৃপক্ষ এখন থেকে এখানে আর না আসতে বলে দিয়েছে।

মন্তব্য