kalerkantho

রবিবার । ২১ জুলাই ২০১৯। ৬ শ্রাবণ ১৪২৬। ১৭ জিলকদ ১৪৪০

সহযোগিতার আশ্বাস চীনা সংসদীয় প্রতিনিধি দলের

রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে চীনকে পাশে চায় বাংলাদেশ : ডেপুটি স্পিকার

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৬ জুন, ২০১৯ ২০:৫৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে চীনকে পাশে চায় বাংলাদেশ : ডেপুটি স্পিকার

বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের শান্তিপূর্ণ প্রত্যাবাসনে চীনের সহযোগিতা চেয়েছেন ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট মো. ফজলে রাব্বী মিয়া। জবাবে এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন বাংলাদেশ সফররত চীনা সংসদীয় প্রতিনিধি দল।

আজ রবিবার সকালে বাংলাদেশ চীন সিল্করোড ফোরাম আয়োজিত ‘চীন-বাংলাদেশ ফ্রেন্ড অব সিল্করোড ক্লাব এ্যান্ড দ্যা সিল্ক রোড কমিউনিটি বিল্ডিং ইনিশিয়েটিভ ইন বাংলাদেশ লঞ্চিং সিরেমনি’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে তারা এসকল কথা বলেন। সাবেক শিল্পমন্ত্রী দিলীপ বড়ুয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে ১৩তম ন্যাশনাল পিপলস কংগ্রেস অব চায়না’র (এনপিসি) স্টান্ডিং কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান ও চাইনিজ এসোসিয়েশন ফর ইন্টারন্যাশনাল আন্ডারষ্টান্ডিং-এর প্রেসিডেন্ট মি. জি বিংজুয়ান-এর নেতৃত্বে ১৬ সদস্যের প্রতিনিধিদল ছাড়াও চীনের রাষ্ট্রদূত, সংসদ সদস্য ও বিভিন্ন  সংস্থার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

এসময় ‘সিল্করোড অর্থনৈতিক বেল্ট’ নির্মাণের উদ্যোগের প্রশংসা করে ডেপুটি স্পিকার বলেন, এই সড়কের মাধ্যমে আঞ্চলিক সহযোগিতা বৃদ্ধি পাবে। সিল্করোড কার্যকরের মাধ্যমে বাংলাদেশের সাথে থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুর, ইন্দোনেশিয়া, হংকং ও চীনের সাথে যোগাযোগ সহজতর হবে। এতে এ অঞ্চলের মধ্যকার ব্যবসা-বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বৃদ্ধি পাবে। জনগণের সাথে জনগণের সম্পর্ক আরো সুদূঢ় হবে। তিনি আঞ্চলিক সহযোগিতার উপর গুরুত্বারোপ করেন।

জবাবে চীনের প্রতিনিধি দলের প্রধান বাংলাদেশকে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বন্ধু প্রতীম দেশ হিসেবে উল্লেখ করে বলেন, পারস্পরিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে প্রতিবেশী দুই দেশের মধ্যে সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে। আঞ্চলিক সংযোগ বৃদ্ধি এ অঞ্চলের সকল দেশের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি বয়ে আনবে। 

তিনি বলেন, বাংলাদেশের সাথে চীনের উন্নয়ন অংশীদারিত্ব দিনদিন শক্তিশালী হচ্ছে। ভবিষ্যতে উন্নয়ন সহযোগিতা আরো বাড়বে। এ সময় তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্ব গুণ ও জনগণের প্রতি ভালবাসার ভূয়সী প্রশংসা করেন।

বঙ্গবন্ধু স্মৃতি যাদুঘর পরিদর্শন : মি. জি বিং জুয়ান-এর নেতৃত্বে ১৬ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল রবিবার বিকেলে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি যাদুঘর পরিদর্শন করেন। পরিদর্শন কালে তাঁরা বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা অর্জনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অসামান্য অবদান ও ত্যাগের বিষয়টি উল্লেখ করেন। এ সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কন্যা সায়মা ওয়াজেদ পুতুল উপস্থিত ছিলেন। তিনি চীনা প্রতিনিধিদলের নিকট বঙ্গবন্ধুর সংগ্রামী জীবনের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন। 

এর আগে চীনা সংসদীয় দলের প্রতিনিধিরা দুপুরে সংসদ ভবনের কেবিনেট কক্ষে ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট মো. ফজলে রাব্বী মিয়ার সঙ্গে বৈঠক করেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা