kalerkantho

মঙ্গলবার। ১৬ জুলাই ২০১৯। ১ শ্রাবণ ১৪২৬। ১২ জিলকদ ১৪৪০

কারাবন্দিদের সকালের নাশতার মেন্যু পরিবর্তন

কেরানীগঞ্জ প্রতিনিধি   

১৬ জুন, ২০১৯ ১৬:৩৪ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



কারাবন্দিদের সকালের নাশতার মেন্যু পরিবর্তন

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, দেশের কারাগারগুলোকে এখন আধুনিক সংশোধনাগারে পরিণত করা হয়েছে। তাই কারাগারে বন্দীদের নানা প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। পছন্দমতো যে যে কাজ পারে তাকে সেই কাজের প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। কারাগারে প্রায় ৩৮টি কাজের ওপর বন্দিদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। কারাগার থেকে মুক্তি পেয়ে যাতে তারা বাস্তব জীবনে কিছু করে খেতে পারে এবং স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে পারে সে জন্য তাদের এই প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়েছে। 

আজ রবিবার সকালে কেরানীগঞ্জে কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দিদের সকালের নাশতার মেন্যু পরিবর্তন উদ্ধোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন। মন্ত্রী আরো বলেন, ব্রিটিশ শাসন আমলে আমাদের এ অঞ্চলে কারাগার ব্যবস্থা চালু হয়। দীর্ঘদিন যাবৎ কারাবন্দিদের সকালের খাবারে মেন্যু হিসেবে সাজাপ্রাপ্ত বন্দিদের জন্য বরাদ্দ ছিল ১১৬.৬৪ গ্রাম আটার রুটি ও ১৪.৫৮ গ্রাম আখের গুড় এবং বিচারাধীন বন্দির জন্য ৮৭.৪৮ গ্রাম আটার রুটি ও ১৪.৫৮ গ্রাম আখের গুড় বরাদ্দ ছিল যা বন্দিদের জন্য অপ্রতুল ছিল। বন্দিদের স্বাস্থ্য ও পুষ্টির কথা বিবেচনা করে বর্তমান সরকার বন্দিদের জন্য সকালের নাশতার খাবারের মেন্যু পরিবর্তন করেছে। বর্তমানে বন্দিদের স্বাস্থ্যসম্মত সুষম খাবার হিসেবে সকালের নাশতায় সপ্তাহে ৪ দিন রুটি-সবজি, ১ দিন হালুয়া-রুটি ও ২ দিন সবজি-খিচুড়ি দেওয়া হবে। এ খাবার আজ থেকেই একযোগে সারা দেশের কারাগারগুলোতে বন্দিদের দেওয়া হবে। 

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, আমরা করাগারগুলোতে বন্দিদের মানসিক অবস্থা ভালো রাখার ব্যবস্থা করছি। বন্দিরা যাতে তাদের আপনজনদের সাথে কথা বলতে পারে সে জন্য  প্রিজন লিংক অর্থাৎ স্বজন নামে একটি মোবাইল সেবা চালু করেছি। এই সেবাটি পাইলট প্রকল্প হিসেবে হাতে নেওয়া হয়েছে। মন্ত্রী বলেন, সারা দেশের কারাগারগুলোতে বর্তমানে বন্দিদের সংখ্যা এখন মোট ৮১১৮৩ জন। আগে যা ছিল ৯০,০০০। আমরা সারা দেশে কারাগারগুলোতে বন্দিদের সংখ্যা এখন আরো কমিয়ে আনার চেষ্টা করছি। 

কেরানীগঞ্জ কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দিদের সকালের নাশতার মেন্যু পরিবর্তন উদ্বোধনকালে অন্যদের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন স্বরাষ্ট্রসচিব শহিদুল ইসলাম, আইজি প্রিজন মোস্তফা কামাল পাশা, অতিরিক্ত আইজি প্রিজন আবরার হোসেন, ঢাকা জেলা প্রশাসক আবু ছালে মোহাম্মদ ফেরদৌস খান, ডিআইজি প্রিজন টিপু সুলতান, কেরানীগঞ্জ সার্কেল অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রামানন্দ সরকার, কেরানীগঞ্জ কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার ইকবাল হোসেন চৌধুরী, দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার ওসি মোহাম্মদ শাহজামান ও কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ওসি শাকের মোহাম্মদ যুবায়ের প্রমুখ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা