kalerkantho

মঙ্গলবার। ১৬ জুলাই ২০১৯। ১ শ্রাবণ ১৪২৬। ১২ জিলকদ ১৪৪০

প্রস্তাবিত বাজেট প্রত্যাখ্যান করছি : ড. কামাল

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৫ জুন, ২০১৯ ১৩:৩৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



প্রস্তাবিত বাজেট প্রত্যাখ্যান করছি : ড. কামাল

ফাইল ছবি

প্রস্তাবিত ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট জনগণের কোনো উপকার আসবে না দাবি করে এ বাজেট প্রত্যাখ্যান করেছেন গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন। 

আজ শনিবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবে প্রস্তাবিত ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট ঘোষণা পরবর্তী প্রতিক্রিয়া জানাতে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

ড. কামাল বলেন, এটি একটি অদূরদর্শী ও দুর্বলভাবে প্রণীত বাজেট যাতে দেশের প্রকৃত সমস্যা মোকাবিলায় কোনো ধরনের চেষ্টা নেই। তাই এবারের বাজেটকে আমরা সম্পূর্ণরূপে প্রত্যাখ্যান করছি।

এই বাজেট পাস হলে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিকদের সঙ্গে আলোচনা করে পরবর্তী কর্মসূচি নির্ধারণ করা হবে বলে জানান তিনি।

এর আগে সংবাদ সম্মেলনে মূল বক্তব্য উপস্থাপন করেন দলের সাধারণ সম্পাদক ড. রেজা কিবরিয়া।

তিনি বলেন, এটি জনগণের বাজেট নয়। অদূরদর্শী ও দুর্বলভাবে প্রণীত বাজেট যা দেশের প্রকৃত সমস্যা মোকাবিলার কোনো চেষ্টা নেই।

রেজা কিবরিয়া বলেন, এই সরকারের বাজেট আমাদের নাগরিকদের ইচ্ছার প্রতিফলন নয় এবং এটি যে দেশের প্রয়োজনীয়তা পূরণের লক্ষ্যে প্রণয়ন করা হয়নি এটাতে অবাক হওয়ার কোনো কারণ নেই। সুতরাং একটি সত্যিকারের প্রতিনিধিত্বশীল সরকার গঠনের লক্ষ্যে অনতিবিলম্বে দেশে অবাধ ও সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচন আয়োজন করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

গণফোরাম সাধারণ সম্পাদক বলেন, বাজেট কেবল সরকারের পরবর্তী বছরের আয়-ব্যয়ের হিসাব নয়। এটি আসন্ন বছরগুলোতে সরকারের নীতি কৌশল কি হবে তারও একটি গুরুত্বপূর্ণ দলিল। বাজেটকে সরকারের অর্থনৈতিক কার্যক্রম সম্প্রসারণ এবং আর্থিক ও সামষ্টিক অর্থনীতির স্থিতিশীলতাকে সহায়তা করার অন্যতম দলিল হিসেবেও বিবেচনা করতে হবে।

রেজা কিবরিয়া বলেন, এই বাজেট দুটি বিবেচনায় হতাশাজনক। (১) এটি রাজস্ব ও ঋণের সঠিক প্রাক্কলন প্রদানে এবং সাম্প্রতিক বছরগুলোয় বাজেট ঘাটতি বিবেচনায় নিতে ব্যর্থ হয়েছে। (২) এ বাজেট বিগত বছরগুলোর হঠকারী বাজেট ও সামষ্টিক অর্থনৈতিক নীতির ফলে আর্থিক খাতে ও সার্বিক অর্থনীতিতে সৃষ্ট আসন্ন সংকট উদ্ভূত ঝুঁকি সম্পর্কে অজ্ঞতা প্রদর্শন করা হয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা