kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৭ জুন ২০১৯। ১৩ আষাঢ় ১৪২৬। ২৩ শাওয়াল ১৪৪০

জ্ঞান ফেরেনি নার্সের ভুল ইনজেকশনে অচেতন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীর, আনা হলো ঢাকায়

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২২ মে, ২০১৯ ২১:০৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



জ্ঞান ফেরেনি নার্সের ভুল ইনজেকশনে অচেতন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীর, আনা হলো ঢাকায়

নার্স ভুল ইনজেকশন দেওয়ার পর গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সেই শিক্ষার্থীকে ঢাকা মেডিকেলে স্থানান্তর করা হয়েছে। 

মরিয়ম সুলতানা মুন্নী (২০) নামের ওই শিক্ষার্থী সমাজবিজ্ঞান বিভাগের ২য় বর্ষে পড়েন। ইনজেকশন দেওয়ার পর তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হয় বলে অভিযোগ করছেন মুন্নীর স্বজনরা। 

জানা গেছে, খুলনার শহিদ শেখ আবু নাসের বিশেষায়িত হাসপাতালে ৩০ ঘণ্টা তাকে নিবিড় পরিচর্চা কেন্দ্রে (আইসিইউ) রাখা হয়। সেখানে তার অবস্থার উন্নতি না হলে বুধবার বিকেলে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয় তাকে।

নার্সের ভুল ইনজেকশনে মুন্নী অচেতন হওয়ার ঘটনায় তার চাচা বাদী হয়ে গোপালগঞ্জ সদর থানায় একজন চিকিৎসক ও দুই নার্সের বিরুদ্ধে হত্যাচেষ্টার মামলা করেছেন।  

মুন্নীর বাবা মোশারফ হোসেন জানান, পিত্ত থলির পাথরজনিত সমস্যা নিয়ে তার মেয়ে সোমবার গোপালগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি হয়। মঙ্গলবার মুন্নীর শরীরে অস্ত্রোপচারের কথা ছিল।

তিনি আরো বলেন, হাসপাতালের নার্স শাহনাজ পারভিন গ্যাসের ইনজেকশনের বদলে আমার মেয়েকে অজ্ঞান করার ইনজেকশন দেন। সঙ্গে সঙ্গে মুন্নী অজ্ঞান হয়ে যায়।

তিনি আরো বলেন, গোপালগঞ্জ জেনারেল হাসপতালের চিকিৎসকরা বোর্ড বসিয়ে তাকে খুলনা আবু নাসের বিশেষায়িত হাসপতালে নিয়ে যেতে বলেন। পরে তাকে সেখানে নিয়ে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) রাখা হয়। জ্ঞান হারানোর ৩৩ ঘণ্টা পার হলেও মুন্নীর জ্ঞান ফেরেনি। তার অবস্থার কোনো উন্নতি না হওয়ায় শহিদ আবু নাসের হাসপতালের চিকিৎসকরা তাকে ঢাকা নেওয়ার পরামর্শ দেন।

গোপালগঞ্জ সদর থানার এসআই ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মুকুল হোসেন সারদার বলেন, বুধবার বিকেলে ওই ছাত্রীর চাচার অভিযোগটি মামলা হিসেবে নথিভুক্ত করা হয়েছে।


খবরটি ইউনিকোড থেকে বাংলা বিজয় ফন্টে কনভার্ট করা যাবে কালের কণ্ঠ Bangla Converter দিয়ে

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা