kalerkantho

মঙ্গলবার । ২১ মে ২০১৯। ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৫ রমজান ১৪৪০

'১৮ এর আগে কোনো মেয়ের বিয়ে নয়- কাজীদের এ প্রশিক্ষণ দিতে হবে'

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৬ মে, ২০১৯ ২১:০১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



'১৮ এর আগে কোনো মেয়ের বিয়ে নয়- কাজীদের এ প্রশিক্ষণ দিতে হবে'

দেশের ব্যালবিবাহ বন্ধে ’১৮ এর আগে বউ নয়’ শিরোনামে পাঁচ বছর ব্যপী (২০১৩-২০১৮) একটি প্রচারাভিযান সফলভাবে সম্পন্ন করেছে। এ উপলক্ষে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন ও ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশের উদ্যোগে এক মূল্যায়ন আদান-প্রদান বিষয়ক সভার আয়োজন করা হয়। 

আজ বৃহস্পতিবার  বেলা একটা থেকে সাড়ে তিনটা পর্যন্ত এই সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় এই প্রচারাভিযানের মূল্যায়ন প্রতিবেদনে বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থা (এনজিও) থেকে প্রায় ৪০ জন প্রতিনিধি অংশগ্রহণ করেন। শিশুর নেতৃত্ববিকাশ, ধর্মীয় নেতার সচেতনা, বিবাহিত কিশোর-কিশোরীদের নিয়ে কাজ করা, ভবিষ্যতে এ ধরণের আর দীর্ঘমেয়াদি ও টেকসই প্রকপ্প নেয়া উচিত ছিল এই গবেষণার অন্যতম সুপারিশ। 

বিশেষ অতিথিও বক্তব্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক ড. শাহনাজ হুদা বলেন, ‘ব্যালবিবাহরোধে আইনের প্রণয়নের পাশাপাশি তাঁর যথাযথ প্রয়োগ এবং মনিটরিংয়ের বাবস্থা থাকা দারকার। 

এর পাশাপাশি ওয়ার্ল্ড ভিশনের অধিপরামর্শের (এডভোকেসি) উপ-পরিচালক সাবিরা সুলতানা বলেন, ‘ব্যালবিবাহরোধে শিশুর অংশগ্রহণ ও ক্ষমতায়ণের পাশাপাশি স্থানীয় শিশু সুরক্ষা সিস্টেমকে আরো শক্তিশালি এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে রিপোর্টং ও রেসপন্স মেকানিজম বাবস্থা ও তাঁর কার্যকারিতা করতে হবে।' 

জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সদস্য ও শিশু অধিকার কমিটির সদস্য মোস. নুরুন্নাহার ওসমানী বলেন, বাল্যবিবাহরোধে এখনও আমাদের অনেক কাজ করতে হবে। কাজীদের এই বিষয়ের উপর প্রশিক্ষণ দিতে হবে যাতে তারা ১৮ এর আগে কোন মেয়ে শিশুর বিয়ের ব্যবস্থা করতে না পারে।’ 

তিনি এসময় সার্বিকভাবে বাল্যবিবাহের বিরুদ্ধে জনগণকে সচেতন করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন। স্ত্রেলা রুপা মল্লিকের সঞ্চালনায় সভায় অন্যান্যদের মধ্যে জাতীয় মানবাধিকারের উপ-পরিচালক রবিউল ইসলামসহ বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থার কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য