kalerkantho

সোমবার। ২৭ মে ২০১৯। ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ২১ রমজান ১৪৪০

মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সম্পদ জালিয়াতির চেষ্টার অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৪ এপ্রিল, ২০১৯ ১৯:৩৪ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সম্পদ জালিয়াতির চেষ্টার অভিযোগ

গাজীপুর সদরের দক্ষিণ ছায়াবিথী এলাকার মুক্তিযোদ্ধা হারুন-অর-রশীদ ভূঁইয়ার সম্পত্তি আত্মসাতের অপচেষ্টা চালাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছে তার পরিবার। বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর-রুনি মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে তার স্ত্রী কানিজ ভূঁইয়া এই অভিযোগ করেন। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, হারুন-অর-রশীদের ছেলে আশিফ রশিদ, ফুফাতো বোন সুরাইয়া বেগম, দুই বোন গুলনাহার বেগম ও জিন্নাত আরা বেগম। 

সংবাদ সম্মেলনে কানিজ ভূঁইয়া বলেন, ‘২০১৬ সালে আমার স্বামীর দুই ভাই পাঁচ বোন মিলে তার আরেক বোনের সাক্ষর জাল করে ভুয়া পাওয়ার অব এটর্নির (৫৮৫৪) মাধ্যমে পৈত্রিক সম্পত্তি থেকে নাম বাদ দিয়ে ৮ দশমিক ২৫ একর সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত করার চেষ্টা চালায়। কাজী আলিম উদ্দিন ও মো. মুজিবর রহমানের পরিকল্পনায় এই তৎপরতা এখনও চলছে।’ 

পরিবারের নিরাপত্তা নিয়ে চিন্তিত উল্লেখ করে কানিজ ভূঁইয়া বলেন, ‘জালিয়াত চক্রের কারণে আমার পরিবার চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। এর সাথে জড়িতরা আমাদের ক্ষতি করতে পারে। তাই গত ১০ মার্চ গাজীপুর সদর থানায় জিডি (নং ৪৯৯) করা হয়েছে।’

হারুন-অর-রশীদের ছেলে আশিফ রশিদ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘কোর্টের রায়ের পরও আমাদের জমির ভুয়া কাগজ বানিয়ে বিক্রির পায়তারা চলছে। এতে আমাদের পরিবারের সদস্যদের সাথে একটি কুচক্রিমহল এক হয়েছে। পুলিশের কাছে গিয়েও কোন সহযোগিতা পাইনি। তাহলে আমরা কোথায় যাবো। রাজনৈতিক শক্তির কাছে কি সব কিছু ব্যর্থ?’

অভিযোগ আছে সম্পত্তি দখলের এই চক্রের নেতৃত্ব দিচ্ছেন গাজীপুর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি কাজী আলিম উদ্দিন।

এই বিষয়টি নিয়ে কথা বললে কাজী আলিম উদ্দিন কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘হারুণ ভাইয়ের কোন সম্পতি জালিয়াতির সাথে আমি জড়িত নয় বরং উনার পরিবার নির্দিষ্ট যায়গার চাইতে বেশি যায়গা দখল করে আছে। আর জমি বায়নার বিষয়টি উনার পরিবারের সদস্যরাই করেছে। আমি শুধু সাথে ছিলাম। ওনার পরিবারের কেউ জালিয়াতি করেছে কিনা সেটা তারা বলতে পারে। তার দুই ভাই জিলানুর রশীদ ও হাসানুর রশীদের সাথে আমি ছিলাম।’

মুক্তিযোদ্ধা হারুন-অর-রশীদ ১৯৫০ সালে জয়দেবপুরে জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৭১ সালের ২৭ মার্চ দ্বিতীয় ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্ট টাঙ্গাইলের উদ্দেশ্যে যাত্রা করলে সহায়তা প্রদান ও ১৯ মার্চ পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী প্রতিরোধে জয়দেবপুরে প্রথম সশস্ত্র যুদ্ধে তিনি নেতৃত্ব দেন। ২০১৩ সালের ২৬ এপ্রিল শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।

মন্তব্য