kalerkantho

সোমবার। ২৭ মে ২০১৯। ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ২১ রমজান ১৪৪০

আরমানের মুক্তি চেয়ে করা রিটের শুনানি মঙ্গলবার

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২১ এপ্রিল, ২০১৯ ১৪:৪৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আরমানের মুক্তি চেয়ে করা রিটের শুনানি মঙ্গলবার

২৬ মামলার ভুল আসামি হয়ে প্রায় ৩ বছর কারাগারে থাকা মো. আরমানের মুক্তি চেয়ে হাইকোর্টে রিট করা হয়েছে। রিটের ওপর শুনানির জন্য আগামীকাল মঙ্গলবার দিন ধার্য করেছেন হাইকোর্ট।

জানা গেছে, এ বিষয়ে আজ রবিবার বিচারপতি জেবিএম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চে রিটটি দায়ের করেন মানবাধিকার সংগঠন ল অ্যান্ড লাইফ ফাউন্ডেশনের পক্ষে ব্যারিস্টার হুমায়ন কবির পল্লব। এ সময় আদালত আগামী মঙ্গলবার শুনানির জন্য দিন নির্ধারণ করেন। 

আরো জানা গেছে, রিটে নির্দোষ মো. আরমানকে কারাগারে রাখায় ক্ষতিপূরণ চাওয়া হয়েছে। একইসঙ্গে নির্দোষ আরমানের আটকাদেশ কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারির আরজি জানানো হয়েছে। 

এ বিষয়ে রিটের পক্ষের আইনজীবী ব্যারিস্টার হুমায়ুন কবির পল্লব বলেন, ‘কারাগারে আরেক জাহালম’ শিরোনামে একটি জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন যুক্ত করে রবিবার হাইকোর্টে রিটটি করে ‘ল’ অ্যান্ড লাইফ ফাউন্ডেশন। বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের হাইকোর্ট বেঞ্চে আবেদনটি উপস্থাপনের পর আগামী মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) শুনানির জন্য দিন ধার্য করেছেন।

এর আগে গত ১৮ এপ্রিল একটি জাতীয় দৈনিকে ‘কারাগারে আরেক জাহালম’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। প্রতিবেদনে বলা হয়, 'অপরাধী না হয়েও পাটকল শ্রমিক জাহালমকে জালিয়াতির ৩৩ মামলার আসামি হয়ে তিন বছর কারাভোগ করতে হয়েছিল। অনেক ঘাটের জল পেরিয়ে শেষ পর্যন্ত উচ্চ আদালতের হস্তক্ষেপে তিনি কারামুক্ত হন। চাঞ্চল্যকর এ ঘটনা এখন মানুষের মুখে মুখে। এর রেশ না কাটতেই আরেক জাহালম কাণ্ড বেরিয়ে এসেছে অনুসন্ধানে।

জানা গেছে, রাজধানীর পল্লবী থানার একটি মাদক মামলায় ১০ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামি মাদক কারবারি শাহাবুদ্দিন বিহারি এ মামলার প্রকৃত আসামি। কিন্তু তাঁর পরিচয়ে, তাঁর পরিবর্তে তিন বছর কারাভোগ করেন আরমান। শুধু পিতার নামে মিল থাকায় পুলিশ তাঁকে গ্রেপ্তার করে শাহাবুদ্দিন নামে আদালতে সোপর্দ করেছে বলে অভিযোগ তাঁর পরিবারের। অন্যদিকে প্রকৃত আসামি শাহাবুদ্দিন কারাগারের বাইরে মাদক কারবার চালিয়ে যাচ্ছেন।

মন্তব্য