kalerkantho

স্পর্শকাতর মন্তব্যের পর সাফা কবীর আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমেও খবর হলেন

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৭ এপ্রিল, ২০১৯ ১৯:৩৩ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



স্পর্শকাতর মন্তব্যের পর সাফা কবীর আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমেও খবর হলেন

টেলিভিশন নাটকের একজন শীর্ষ বাংলাদেশি  অভিনেত্রী ও মডেল সাফা কবির। চলতি সপ্তাহে একটি প্রাইভেট রেডিও স্টেশনে ধর্ম নিয়ে মন্তব্য করেন তিনি। তিনি বলেন, মৃত্যুর পরের জীবনে তিনি বিশ্বাস করেন না।

সাফার এমন মন্তব্য ব্যাপক বিতর্কের জন্ম দেয়। দেশীয় বিভিন্ন গণমাধ্যম এ নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করে। একই বিষয় নিয়ে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমেও খবর হয়েছেন তিনি। 

ব্রিটিশ গণমাধ্যম ডেইলি মেইল এর অনলাইন ভার্সনে সাফাকে নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। এতে  বলা হয়েছে, নাস্তিকতা নিয়ে মন্তব্যের জন্য বাংলাদেশি অভিনেত্রী সাফা কবীরকে সেদেশে  ক্ষমা চাইতে বাধ্য করা হয়েছে। দেশটিতে নাস্তিক পরিচয় থাকার অভিযোগে বেশ কয়েকজনকে হত্যা করা হয়েছে। 

ডেইলি মেইলের ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, চলতি সপ্তাহে বাংলাদেশের একটি প্রাইভেট রেডিও স্টেশনে একটি ইন্টারভিউ দেন সাফা কবীর। এতে তিনি মন্তব্য করেন, 'মৃত্যুর পরের জীবনে আমি বিশ্বাস করি না। প্রকৃতপক্ষে, আমি যা দেখি না, তাতে বিশ্বাস করি না।' তিনি বলেন, 'স্বর্গে ও নরক প্রসঙ্গে কেউ কেউ তাঁদের মুসলিম বিশ্বাস প্রত্যাখ্যান করেছেন।' 

বলা হয়, সাফার ওই মন্তব্যের খবর দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। ভাইরাল হয় ইন্টারভিউয়ের ফুটেজটি। নানা মন্তব্য করে ব্যবহারকারীরা। এসব মন্তব্যের অধিকাংশই তাঁর বিরুদ্ধে।'   

গতকাল মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) নিজের মন্তব্যের জন্য ফেসবুকে ক্ষমা চান ২৪ বছর বয়সী এই অভিনেত্রী। এতে নিজের নাস্তিক পরিচয়কে অস্বীকার করেন তিনি।

প্রতিবেদনে ঘটনার পূর্বাপর বিবরণ দেওয়া হয়। এতে স্থান পায় সাফার ফেসবুকে দেওয়া স্টাটাসও। বলা হয় সাফা লিখেছেন, 'যদি কোনো ভুল করে থাকি, তবে সৃষ্টিকর্তার কাছে ক্ষমা চাই আমি। তিনি সবচেয়ে দয়ালু এবং ক্ষমাশীল। তিনি অবশ্যই আমাকে ক্ষমা করবেন। 

সাফা আরো লিখেছেন, 'যদি আমার কোনো কথা কারো বিশ্বাসে আঘাত করে থাকে তবে আমি দুঃখিত এবং তার জন্য আমি ক্ষমা চাই।' 

ফেসবুকে সাফার ওই পোস্টে ৬০ হাজার মন্তব্য পড়েছে। 

ডেইলি মেইলের প্রতিবেদনে আরো লেখা হয়েছে, নাস্তিকতা বাংলাদেশে ব্যাপকভাবে নিষিদ্ধ। গত কয়েক বছরে সেখানে নাস্তিক পরিচয় থাকার অভিযোগে প্রায় ডজন মানুষকে নিষ্ঠুরভাবে আক্রমণ ও হত্যা করেছে সন্দেহভাজন ইসলামী চরমপন্থিরা।  

অনেক নেতৃস্থানীয় নাস্তিক দেশ পালিয়ে গেছে এবং পশ্চিমা দেশগুলোতে নির্বাসনে বসবাস করছে। 
মঙ্গলবার তিনি ফেসবুকে ক্ষমা চেয়েছেন। এতে  নাস্তিক পরিচয়কে অস্বীকার করছেন এই অভিনেত্রী।  

প্রতিবেদনে সাফার কয়েকটি ছবিও প্রকাশ করেছে ডেইলি মেইল। 

সূত্র : ডেইলি মেইল 

মন্তব্য