kalerkantho

বুধবার । ২২ মে ২০১৯। ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৬ রমজান ১৪৪০

ইলিয়াস নিখোঁজের সাত বছর আজ, পরিবার এখনো প্রতীক্ষায়

বিশ্বনাথ (সিলেট) প্রতিনিধি    

১৭ এপ্রিল, ২০১৯ ১৪:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ইলিয়াস নিখোঁজের সাত বছর আজ, পরিবার এখনো প্রতীক্ষায়

আজ থেকে সাত বছর আগে ২০১২ সালের এই দিনে রাজধানীর বনানী থেকে নিখোঁজ হন সিলেট জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য এম ইলিয়াস আলী। একই সঙ্গে তাঁর গাড়িচালক আনসার আলীও ওই দিন থেকে নিরুদ্দেশ। সাত বছর পেরিয়ে গেলেও তাঁদের খোঁজ পায়নি পরিবার।

দল-মত-নির্বিশেষে সব বয়সের নারী-পুরুষ আশায় আছে তাদের চিরচেনা সেই প্রিয় মানুষটি আবার তাদের মধ্যে ফিরে আসবেন। ইলিয়াস আলী নিখোঁজ হওয়ার বিষয়টি মানতে নারাজ অনেকেই।

কাউকে দেখলেই ইলিয়াস আলীর মা সূর্যবান বিবি জড়িয়ে ধরে হাউমাউ করে কাঁদেন। ছেলের খবর জানতে চান। পরিবারের সদস্যদের বিশ্বাস, এখনো বেঁচে আছেন ইলিয়াস আলী। যেকোনো সময় তিনি ফিরবেন।

এ ব্যাপারে ইলিয়াস আলীর সহধর্মিণী তাহসিনা রুশদীর লুনা বলেন, “যখনই টেলিভিশনের সামনে বসি সংবাদের স্ক্রলের দিকে  চেয়ে থাকি। একটা ব্রেকিং নিউজের জন্য অপেক্ষা করি, যেখানে লেখা থাকবে ‘ইলিয়াস আলীকে পাওয়া গেছে’। আমরা প্রতিটি মুহূর্ত তাঁর ফেরার অপেক্ষায় আছি।”

২০১২ সালের ১৭ এপ্রিল রাতে নিজের গাড়িতে করে বনানী থেকে বাসায় ফিরছিলেন ইলিয়াস আলী। গাড়ি চালাচ্ছিলেন চালক আনসার আলী। পরে ওই দিন রাতে মহাখালী থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় উদ্ধার করা হয় তাঁর গাড়ি। সে সময় এ ঘটনার প্রতিবাদে দেশজুড়ে শুরু হয় আন্দোলন। হরতাল, মিছিল, সভা-সমাবেশ, মানববন্ধন, গণস্বাক্ষর সংগ্রহসহ নানা কর্মসূচি পালিত হয়। হরতাল পালনের সময় সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলায় জনতার সঙ্গে পুলিশ ও আওয়ামী লীগের সংঘর্ষ হয়। পুলিশের গুলিতে নিহত হয় বিএনপির তিনকর্মী। আহত হয় শতাধিক। ঘটনার পর উপজেলার অজ্ঞাতপরিচয় আট হাজার মানুষকে আসামি করে মামলা করে পুলিশ।

মন্তব্য