kalerkantho

বুধবার । ২৩ অক্টোবর ২০১৯। ৭ কাতির্ক ১৪২৬। ২৩ সফর ১৪৪১                 

নিউ জিল্যা‌ন্ডের হিমঘ‌রে তিন বাংলা‌দে‌শির মর‌দেহ

কূটনৈতিক প্রতিবেদক   

২৩ মার্চ, ২০১৯ ১৩:৩৬ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



নিউ জিল্যা‌ন্ডের হিমঘ‌রে তিন বাংলা‌দে‌শির মর‌দেহ

ফাইল ছবি

ক্রাইস্টচার্চের মসজিদে সন্ত্রাসী হামলার ঠিক এক সপ্তাহ পর গতকাল শুক্রবার শোকাচ্ছন্ন পুরো নিউ জিল্যান্ড। গতকাল বিকাল সাড়ে ৩টায় (নিউজিল্যান্ড সময় রাত সাড়ে ১০টায়) ক্রাইস্টচার্চ থেকে বাংলাদেশের অনারারি কনসাল ইঞ্জিনিয়ার শফিকুর রহমান অণু টেলিফোনে কালের কণ্ঠকে জানান, জুমার নামাজের আজান পুরো দেশজুড়ে টেলিভিশনে প্রচার করা হয়েছে। পুরো নিউ জিল্যান্ডে দুই মিনিট নীরবতা পালিত হয়েছে। এখনও বিভিন্ন বর্ণ-ধর্মের লোকজন সমবেদনা জানাতে আসছেন।

বাংলাদেশের অনারারি কনসাল জানান, ‘এখন পর্যন্ত সরকারিভাবে ৫ জন বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন। শুক্রবার (গতকাল) সবারই জানাজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। দু’জনের পরিবার (ময়মনসিংহের বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক ড. আবদুস সামাদ ও সিলেটে হুসনে আরা পারভিন) নিউজিল্যান্ডে তাদের মরদেহ দাফন করার ইচ্ছা প্রকাশ করেছিল। তাদের নিউ জিল্যান্ডেই কবর দেওয়া হয়েছে।’

তিনি জানান, ‘বাকি তিন জন (নারায়ণগঞ্জের ওমর ফারুক, চাঁদপুরের মোজাম্মেল হক ও নরসিংদীর জাকারিয়া ভুঁইয়া), যাদের পরিবার মরদেহ বাংলাদেশে নিয়ে যাওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে তাদের মরদেহ হিমঘরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তাদের পরিবারগুলোর সম্মতিতে ও অন্যান্য আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করে যত দ্রুত সম্ভব মরদেহগুলো বাংলাদেশে পাঠানো হবে।’

ওই তিনজনের মরদেহ কবে নাগাদ বাংলাদেশে পৌঁছাতে পারে জানতে চাইলে অনারারি কনসাল জানান, এটি নির্ভর করছে তাদের স্বজনরা মরদেহ কবে নেবেন তার ওপর। তাদের অনেকে নিউজিল্যান্ডে ইতোমধ্যে পৌঁছেছেন। আবার অনেকে নিউ জিল্যান্ডে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করবে।

তিনি বলেন, ‘তাদের আসা ও আমাদেরও কিছু আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করতে হবে। এখন যদি কালকে পাঠাতে বলে আমি কাল পাঠাতে পারবো না। আগামী মঙ্গল/বুধবারের আগে কাউকে পাঠানোর সম্ভাবনা নেই। আগামী মঙ্গলবার, তাদের পরিবার যদি চায় পাঠাতে পারবো।’

বাংলাদেশের অনারারি কনসাল জানান, ‘শুক্রবার (গতকাল) নিউ জিল্যান্ডে টেলিভিশনে আজান প্রচার হয়েছে, আমাদের জুমার নামাজ দেখানো হয়েছে। মানুষের স্বতঃস্ফূর্ত উপস্থিতি দেখানো হয়েছে।’

তিনি জানান, পুরো নিউ জিল্যান্ডে শোকের আবহ ছিল। সহমর্মিতা ও সম্মিলিত প্রয়াস ছিল। 

বাংলাদেশের অনারারি কনসাল জানান, ‘নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী  (জেসিন্ডা আরডের্ন) আমাদের ওই স্পটে (ক্রাইস্টচার্চে) ছিলেন। মোটামুটি সব মসজিদে বড় ধরনের উপস্থিতি ছিল।’

তিনি জানান, ‘আমি যে মসজিদে নামাজ পড়েছি সেখানে প্রচুর অমুসলিমও এসেছিলেন। তারা আমাদের কথা শুনেছেন। আমাদের সঙ্গে একাত্মতা পোষণ ও আমাদের প্রতি সহমর্মিতা প্রকাশ করেছেন’।

তিনি আরো জানান, ‘মুসলমানরা তো ছিলেন অন্যান্য ধর্ম ও বর্ণের লোকজনও নির্বিশেষে এসেছিলেন।’

অনারারি কনসাল কালের কণ্ঠের সঙ্গে যখন কথা বলছিলেন তখন নিউ জিল্যান্ড সময় রাত সা‌ড়ে ১০টা। তি‌নি জানান, ‘এখনো সব ধর্মের লোকজন আমাদের সমবেদনা জানাতে আসছে। ওরা ফুল দিয়ে যাচ্ছে।’

তিনি আরো জানান, নিউ জিল্যান্ডের যে মসজিদে সবচেয়ে বেশি মুসলমানদের উপস্থিতি দেখা যায় আজ শনিবার সেখানে একটি অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়েছে। সেখানে হাজারেরও বেশি লোক সমাগম হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

অনারারি কনসাল জানান, আজকের অনুষ্ঠানে নিউ জিল্যান্ডের সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও বর্তমানে অকল্যান্ড সিটির মেয়র থাকবেন। নিউ জিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীও সেখানে উপস্থিত থাকার ব্যাপারে সম্মতি দিয়েছেন। আরো অনেক প্রশাসনিক ও সম্প্রদায়ের লোকজন সেখানে থাকবেন।

তিনি জানান, ‘আমরা  তাঁদের সঙ্গে মতবিনিময় করবো। আমাদের অভিজ্ঞতা ও অনুভূতি জানাবো।’

তিনি আরো জানান, ‘দিন দিন আমাদের মধ্যে আস্থা ফিরে আসছে। নিউ জিল্যান্ডের জনগণ, বিশেষ করে প্রধানমন্ত্রী ও তাঁর মন্ত্রিসভা আমাদের পাশে যেভাবে দাঁড়িয়েছেন তাতে আমরা স্বস্তি বোধ করছি। 
নিউজিল্যান্ডের উপ প্রধানমন্ত্রীকে আঙ্কারায় ইসলামী সহযোগিতা সংস্থার (ওআইসি) বৈঠকে প্রতিনিধিত্ব করতে পাঠানো হয়েছে। 

বাংলাদেশের অনারারি কনসাল জানান, ক্রাইস্টচার্চে হামলার পরদিন গত শনিবার বাংলাদেশি এক ছাত্র নিউ জিল্যান্ডে একটি দুর্ঘটনায় পানিতে ডুবে মারা যায়। গতকাল তার মরদেহ নিউজিল্যান্ড থেকে বাংলাদেশের উদ্দেশে পাঠানো হয়েছে এবং আজ শনিবার ঢাকায় পৌঁছার কথা রয়েছে। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা