kalerkantho

শনিবার  । ১৯ অক্টোবর ২০১৯। ৩ কাতির্ক ১৪২৬। ১৯ সফর ১৪৪১                     

সংসদ অধিবেশন

নিম্নমানের ক্রীড়াসামগ্রী বরাদ্দ নিয়ে ক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০৩:০৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নিম্নমানের ক্রীড়াসামগ্রী বরাদ্দ নিয়ে ক্ষোভ

সংসদ সদস্যদের নামে বরাদ্দকৃত ক্রীড়াসামগ্রীর মান নিয়ে জাতীয় সংসদ অধিবেশনে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সরকারদলীয় সদস্য আবদুল মান্নান। আর টেবিল চাপড়ে অন্য সংসদ সদস্যরা তাঁকে সমর্থন জুগিয়েছেন। অভিযোগের বিষয়টি স্বীকার করে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল বলেছেন, এবার শুধু মান বৃদ্ধি নয়, ক্রীড়াসামগ্রী বাড়ানোরও পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।

গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় সংসদ অধিবেশনে প্রশ্নোত্তর পর্বে প্রতিমন্ত্রী এই আশ্বাস দেন। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অধিবেশনে ক্রীড়াসামগ্রীর মান নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে আবদুল মান্নান বলেন, প্রতিবছর এমপিদের নামে খেলাধুলার যেসব সামগ্রী বরাদ্দ দেওয়া হয় সেগুলো খুবই নিম্নমানের। মান বৃদ্ধি করতে না পারলে এটা বন্ধ করে দেওয়া উচিত।
সরকারি দলের সদস্য আয়েন উদ্দিনের প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী জানান, দেশের খেলাধুলার মান উন্নয়নে প্রতিটি বিভাগে বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের (বিকেএসপি) আঞ্চলিক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র স্থাপনের পরিকল্পনা রয়েছে। 

জাতীয় পার্টির মশিউর রহমান রাঙ্গার সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জানান, খেলাধুলার মানোন্নয়নে ইউনিয়ন পর্যায়ে শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়াম নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে। এরই মধ্যে দেশের বেশির ভাগ উপজেলায় স্টেডিয়াম নির্মাণের কাজ শেষ হয়েছে। এই প্রকল্পের কাজ শেষ হওয়ার পর ইউনিয়ন পর্যায়ে এ ধরনের প্রকল্প গ্রহণের পরিকল্পনা আছে।

জাসদের শিরিন আখতারের অন্য সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী জানান, ভবিষ্যতে তৃণমূল পর্যায় থেকে জুডু ও তায়কোয়ান্দো খেলোয়াড় বাছাই করা হবে। আত্মরক্ষামূলক খেলা হিসেবে এগুলো এরই মধ্যে বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে।

সরকারি দলের সদস্য আহসানুল ইসলাম টিটুর সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল বলেন, ন্যাশনাল সার্ভিস প্রকল্পের আওতায় এ পর্যন্ত দেশের দারিদ্র্যপ্রবণ এলাকার অনেক যুবকের কর্মসংস্থান হয়েছে। ভবিষ্যতে সব উপজেলায় এই প্রকল্প গ্রহণের পরিকল্পনা রয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা