kalerkantho

বৃহস্পতিবার  । ১৭ অক্টোবর ২০১৯। ১ কাতির্ক ১৪২৬। ১৭ সফর ১৪৪১       

রূঢ় আচরণের জন্য দুঃখ প্রকাশ ড. কামালের

রাষ্ট্রপতির সাক্ষাৎ কামনা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১৪:১২ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



রূঢ় আচরণের জন্য দুঃখ প্রকাশ ড. কামালের

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসে স্বাধীনতাবিরোধী দল জামায়াতে ইসলামী নিয়ে প্রশ্ন করায় এক সাংবাদিকের সঙ্গে রূঢ় আচরণের জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেন। গতকাল শনিবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তিনি ওই দুঃখ প্রকাশ করেন। এদিকে আগামীকাল সোমবার রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের সঙ্গে দেখা করতে চান ড. কামালসহ ঐক্যফ্রন্ট নেতারা। এ জন্য বঙ্গভবনে চিঠি দেওয়া হয়েছে।

বিবৃতিতে ড. কামাল হোসেন বলেন, ‘মহান শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস বাংলাদেশের সকল নাগরিকের জীবনে অসামান্য তাৎপর্যপূর্ণ। আমিও প্রত্যেক বছরের মতো এবারেও শহীদ বুদ্ধিজীবীদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে মিরপুরের স্মৃতিসৌধে গিয়েছি। এই দিনে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছিল, যার মধ্যে আমার অনেক ঘনিষ্ঠ বন্ধুরাও ছিলেন। ১৯৭২-৭৩ সালে বঙ্গবন্ধুর নির্দেশনায় স্বাধীনতাবিরোধী যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের জন্য প্রণীত আইনগুলোর সঙ্গে জড়িত থাকতে পারা আমার কাছে সর্বদাই বিশেষ আবেগ-অনুভূতির বিষয়। আমি বিশ্বাস করি, সর্বস্তরের মানুষ শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে শুধুই শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য যান।’

গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল আরো বলেন, “হঠাৎ করে বেদিতেই আমার কাছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে জামায়াতের অবস্থানের বিষয়ে জানতে চাওয়া হলো।

আমি তাৎক্ষণিক সবিনয়ে বলি, আজকের এই দিনে, যেখানে আমাদের গভীর অনুভূতির বিষয়, এই বিষয়ে এখানে কোনো মন্তব্য করতে চাই না। পুনরায় একই প্রশ্ন তুললে আমি একই মনোভাব ব্যক্ত করি। কিন্তু তৃতীয়বার ভিড়ের মধ্য থেকে কোথাও অনবরত দুই থেকে তিনবার আমি শুধু ‘জামাত জামাত’ শুনতে পাই। তখন আমার খুবই খারাপ লেগেছিল। এ বিষয়ে আমি প্রশ্নকর্তাকে থামানোর চেষ্টা করেছিলাম। যদি আমার বক্তব্য কোনোভাবে কাউকে আহত বা বিব্রত করে থাকে, তাহলে আমি আন্তরিকভাবে দুঃখিত।”

গত শুক্রবার সকালে মিরপুরে শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা জানাতে যান ড. কামালসহ ঐক্যফ্রন্ট নেতারা। স্মৃতিসৌধে ফুল দেওয়া শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন ড. কামাল। ওই সময় জামায়াত প্রসঙ্গে তাঁর অবস্থান নিয়ে প্রশ্ন করায় সাংবাদিকের ওপর চটে যান তিনি।

এদিকে বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান গতকাল সন্ধ্যায় জানান, শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ১০ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল ১৭ ডিসেম্বর রাষ্ট্রপতির সঙ্গে দেখা করতে চায়। সে জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করার অনুরোধ জানিয়ে গত ১৩ ডিসেম্বর চিঠি পাঠানো হয়েছে বঙ্গভবনে। বিএনপির প্যাডে লেখা ওই চিঠিতে সই করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসনের একান্ত সচিব এ বি এম আবদুস সাত্তার।

বিএনপির একাধিক নেতা জানান, নির্বাচন সামনে রেখে বিরোধী নেতাকর্মীদের ওপর হামলা, মামলা ও হয়রানির বিষয়ে ইসিতে অভিযোগ করেও ফল পাননি ফ্রন্ট নেতারা। বিষয়টি অবগত করতে এবং এর প্রতিকার চাইতে রাষ্ট্রপতির কাছে যাবেন তাঁরা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা