kalerkantho

বিএনপি নেতা দুলুসহ গ্রেপ্তার প্রায় এক শ

বিভিন্ন স্থানে হামলা মামলা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১১:২৬ | পড়া যাবে ১৪ মিনিটে



বিএনপি নেতা দুলুসহ গ্রেপ্তার প্রায় এক শ

নির্বাচনী প্রচারণা চাঙ্গা হয়ে ওঠার মধ্যে গতকালও দেশের কয়েকটি স্থানে সংঘর্ষ হয়েছে নৌকা ও ধানের শীষের প্রতীকের কর্মী ও সমর্থকদের মধ্যে। আহত হয়েছে অনেকে। নির্বাচনী ক্যাম্প ভাঙচুরসহ পোস্টার ছেঁড়ার ঘটনা ঘটেছে। আগের দিনের হত্যাকাণ্ড-সংঘর্ষের ঘটনাসহ গতকাল হওয়া সংঘর্ষের ঘটনায় হওয়া মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৮৫ জনের বেশি লোককে। এদের প্রায় সবাই বিএনপির নেতাকর্মী ও সমর্থক। পাইপগান, গুলি, পেট্রলবোমাসহ তিন জামায়াত নেতাসহ গ্রেপ্তার হয়েছে চারজন। মঙ্গলবার রাত ও গতকাল বুধবার নাম উল্লেখ করে দুই শতাধিক এবং অজ্ঞাতপরিচয় হিসেবে আরো কয়েক শ ব্যক্তির বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। গতকাল রাজধানী থেকে গ্রেপ্তার করা হয় বিএনপি নেতা রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলুসহ মোহাম্মদপুর থানা বিএনপি সভাপতিকে। ঢাকা-১ আসনের বিএনপির প্রার্থী খোন্দকার আবু আশফাককে আটকের পর ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ। রাতে নেত্রকোনার আটপাড়ায় আওয়ামী লীগের নির্বাচনী মিছিলে বোমা হামলায় অন্তত ১০ নেতাকর্মী আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

কালের কণ্ঠ’র নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর :

রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু কারাগারে

বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলুকে গতকাল সকালে রাজধানীর গুলশানের নিজ বাসা থেকে আটক করে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। তিনি নাটোরের সাবেক সংসদ সদস্য ও উপমন্ত্রী ছিলেন। গ্রেপ্তারের পর বিকেলে তাঁকে ঢাকার সিএমএম আদালতে নেওয়া হয়। তাঁর জামিন আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিচারক আগামী ২৩ ডিসেম্বর শুনানির দিন ধার্য করে তাঁকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। 

জানতে চাইলে ডিবির যুগ্ম কমিশনার মাহবুব আলম কালের কণ্ঠকে বলেন, শেরেবাংলানগর থানার নাশকতার একটি মামলায় তাঁর বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট আছে। ওই মামলায় তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। 

আসন্ন সংসদ নির্বাচনে দুলু নাটোর-২ আসনে বিএনপির মনোনয়ন পেয়েছিলেন। তবে ফৌজদারি মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হওয়ায় তাঁর মনোনয়নপত্র বাতিল করে দেন রিটার্নিং কর্মকর্তা। পরে নির্বাচন কমিশন এবং উচ্চ আদালতে তাঁর আবেদন খারিজ হয়ে যায়। ওই আসনে দলের মনোনয়ন পেয়েছেন তাঁর স্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিন। দুলুর একান্ত ব্যক্তিগত সহকারী শামসুল আলম রনি কালের কণ্ঠকে বলেন, সকাল ১১টার দিকে গুলশানের বাসা থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করে গোয়েন্দা পুলিশ। তাঁকে গ্রেপ্তারের সময় সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে তাঁর মনোনয়নপত্রের বৈধতা প্রশ্নে শুনানি চলছিল।

ইসি থেকে ফেরার পথে গ্রেপ্তার বিএনপি নেতা

নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ জানিয়ে ফেরার পথে মোহাম্মদপুর থানা বিএনপির সভাপতি ওসমান গণি শাজাহানকে আটক করার অভিযোগ করা হয়েছে। গতকাল দুপুরে ওসমান গণিসহ ঢাকা-১৩ আসনের বিএনপি প্রার্থী আব্দুস সালাম নির্বাচন কমিশনে এসে নেতাকর্মীদের আটক, ধরপাকড়সহ বিভিন্ন অপতৎপরতার অভিযোগ করেন। দুপুর দেড়টার দিকে তাঁরা নির্বাচন কমিশন ভবন থেকে বেরিয়ে যান। আব্দুস সালাম এরপর নির্বাচন কমিশনে ফিরে এসে সচিবের কাছে অভিযোগ করেন, ইসি থেকে গুলশানে যাওয়ার পথে আইডিবি ভবনের সামনে তাঁর সঙ্গে থাকা ওসমান গণিকে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয়ে আটক করে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তবে এ বিষয়ে শেরেবাংলানগরের থানা পুলিশ জানিয়েছে, তারা এমন কোনো ব্যক্তিকে আটক করেনি।

ইসিতে উপস্থিত সাংবাদিকদের আব্দুস সালাম বলেন, বিষয়টি মর্মান্তিক ও দুর্ভাগ্যজনক। নিজের কাছেই নিজেকে অপরাধী মনে হচ্ছে। এভাবে চলতে থাকলে কিভাবে নির্বাচন হবে? তিনি বলেন, ‘আমি ইসি সচিবকে বলেছি, আপনাদের কাছে অভিযোগ দেওয়ার কিছুক্ষণ পরই কিভাবে আমার একজন কর্মী আটক হয়? এটা কি আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর অপতৎপরতার আরেকটা জ্বলন্ত প্রমাণ নয়? তার মানে কী, আমরা নির্বাচন কমিশনেও নিরাপদ না? আমরা কোথায় যাব?

আব্দুস সালাম আরো বলেন, ‘ওসমান গণির বিরুদ্ধে কোনো মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা নেই। সব মামলায় জামিন থাকা সত্ত্বেও তাঁকে এভাবে আটক করে নিয়ে গেছে।’ 

সারা দেশের খবর

ফরিদপুরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে কটূক্তির প্রতিবাদ করায় মঙ্গলবার বিএনপি সমর্থকদের হামলায় আওয়ামী লীগ নেতা ইউসুফ আল-মামুন নিহত হওয়ার ঘটনায় কোতোয়ালি থানায় হত্যা মামলা হয়েছে। নিহতের ভাই সোহরাব বেপারী মামলাটি দায়ের করেছেন। মামলায় ৪০ জনের নাম উল্লেখ এবং অজ্ঞাতপরিচয় আরো অনেককে আসামি করা হয়েছে। পুলিশ রাতেই অভিযান চালিয়ে এজাহারভুক্ত আসামি কাশেম বেপারীসহ কয়েকজনকে আটক করেছে। গতকাল বাদ জোহর ইউসুফ আল-মামুনের জানাজায় স্থানীয় সরকার মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেনসহ আওয়ামী লীগ নেতারা অংশ নেন।

নোয়াখালী সদর উপজেলার এওজবালিয়া ইউনিয়নে মঙ্গলবার যুবলীগ ৯নং ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক মো. হানিফ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় পুলিশ যুবদল নেতাসহ ছয়জনকে আটক করেছে। গতকাল জানাজা শেষে হানিফের দাফন সম্পন্ন হয়। স্থানীয় সংসদ সদস্য ও নৌকার প্রার্থী একরামুল করিম চৌধুরীসহ জানাজায় বিপুলসংখ্যক লোক অংশ নেন। জানাজার আগে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশে একরামুল করিম চৌধুরী এলাকাবাসীকে শান্ত থাকার অনুরোধ জানিয়ে বলেন, ‘আমরা এর জবাব বুলেটে নয়, ব্যালটে দেব।’ হানিফ হত্যার ঘটনায় আটককৃতরা হলেন সুবর্ণচর উপজেলা যুবদলের সভাপতি নিজাম উদ্দিন ফারুক, সাংগঠনিক সম্পাদক ইব্রাহিম খলিল, এওজবালিয়া ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ড যুবদলের সভাপতি মোহাম্মদ আলী, ইউনিয়ন বিএনপি সভাপতি শাহজাহানের দুই ভাই নাছির উদ্দিন, মহি উদ্দিন এবং বিএনপিকর্মী নুরুজ্জামান।

ঢাকা-১ (দোহার-নবাবগঞ্জ) আসনের বিএনপির প্রার্থী খোন্দকার আবু আশফাকের মিছিলে লাঠিপেটা করেছে পুলিশ। এ সময় প্রার্থী আবু আশফাকসহ অন্তত ১০ জন নেতাকর্মীকে আটক করে পুলিশ। রাতের দিকে আশফাককে ছেড়ে দেওয়া হয়। পুলিশের লাঠিপেটায় আহত হয় অন্তত ২৫ নেতাকর্মী। বুধবার বিকেলে দোহারের লটাখোলা করম আলী মোড় থেকে ধানের শীষ প্রতীকের মিছিল বের হলে এ ঘটনা ঘটে। দোহার থানার ওসি সাজ্জা হোসেন বলেন, বিএনপিপ্রার্থী আবু আশফাককে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আসা হয়। তিনি বলেন, বিএনপির নেতাকর্মীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল ছুড়েছে। ঘটনার পর পর সন্ধ্যার দিকে নৌকার প্রার্থী সালমান এফ রহমানের পক্ষে মিছিল বের করে স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। তারা দাবি করে, লটাখোলা করম আলী মোড়ে বিএনপির নেতাকর্মীরা নৌকার প্রার্থীর প্রচারে থাকা দুটি মোটরসাইকেল পুড়িয়ে দিয়েছে।

পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলা বিএনপির ৪৫ নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। বিশেষ ক্ষমতা ও বিস্ফোরক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এনামুল ইসলাম লিটু মঙ্গলবার রাতে এ মামলা করেন। এ মামলায় বিএনপির ২০ জন নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।  মামলায় অজ্ঞাতপরিচয় হিসেবে বিএনপির ৬০-৭০ জনকে আসামি করা হয়। মঙ্গলবার রাতে এক সংবাদ সম্মেলনে লিটু বলেন, আওয়ামী লীগ প্রার্থীর উঠান বৈঠকে অতর্কিতভাবে বিএনপির হামলায় আওয়ামী লীগের অসংখ্য নেতাকর্মী আহত হয়। উপজেলা বিএনপি সভাপতি কবির হোসেন তালুকদার দাবি করেন, ‘আওয়ামী লীগের লোকজনই আমাদের ওপর হামলা চালায়। এতে আমাদের ২০-৩০ জন নেতাকর্মী আহত হয়।’ 

নেত্রকোনার আটপাড়ায় আওয়ামী লীগের নির্বাচনী মিছিলে গতকাল সন্ধ্যা ৭টায় বোমা বিস্ফোরণে অন্তত ১০ নেতাকর্মী আহত হয়েছে। এদের মধ্যে পাঁচজনকে আটপাড়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। উপজেলা সদরের ইটাখালি বাজার এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। এলাকার কয়েকজন ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, আটপাড়া উপজেলা সদরের বুরজের বাজার এলাকা থেকে আওয়ামী লীগের একটি নির্বাচনী মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি ইটাখালি এলাকায় এলে দুর্বৃত্তরা পর পর তিনটি বোমা ছুড়ে মারে। এ ঘটনার জন্য আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা বিএনপিকে দোষারোপ করছে। তবে বিএনপির নেতাকর্মীরা তা অস্বীকার করেছে।

পটুয়াখালী-৪ আসনের রাঙ্গাবালী এবং কলাপাড়া উপজেলার বিভিন্ন স্থানে হামলা, ভাঙচুরের অভিযোগে পাল্টাপাল্টি সংবাদ সম্মেলন করেছে বিএনপি ও আওয়ামী লীগ। মঙ্গলবার রাঙ্গাবালী উপজেলায় দুই দলের হামলা-পাল্টা হামলায় আহত হওয়ার ঘটনায় রাতে রাঙ্গাবালী থানায় বিএনপির ৪৫ জনসহ অজ্ঞাতপরিচয় ৬০-৭০ নেতাকর্মীকে আসামি করে মামলায় পুলিশ ২০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে।

ময়মনসিংহের ভালুকার কাচিনা ইউনিয়নের বাটাজোর বাজারে মঙ্গলবার  বিএনপি অফিস ভাঙচুর, আওয়ামী লীগ অফিসে বোমা হামলা, দোকানে আগুন, ধাওয়াধাওয়ি, ঢিল-পাটকেল নিক্ষেপ এবং দুজন আহত হওয়ার অভিযোগ উঠেছে। ঘটনার জন্য এক পক্ষ অন্য পক্ষকে দায়ী করছে। ওই সব ঘটনায় আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে দায়ের করা মামলায় চারজনকে গতকাল গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার জাবরকোল গ্রামের এক আওয়ামী লীগ সমর্থকের বাড়িতে আগুন দেওয়ার অভিযোগ এনে বিএনপির ৩২ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হয়েছে। বালিয়াকান্দি ইউনিয়নের জাবরকোল গ্রামের কামাল মিয়া সোমবার রাতে তাঁর বাড়িতে প্রবেশ করে হুমকি ও আগুন দেওয়ার অভিযোগ এনে উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক খোন্দকার মশিউল আযম চুন্নুসহ নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে এই মামলা করেন। চুন্নু বলেন, এটি একটি সাজানো মামলা। বালিয়াকান্দি থানার এসআই হিরণ কুমার বিশ্বাস জানান, ওই মামলার এজাহারনামীয় সাতজনসহ অজ্ঞাতপরিচয় আসামিদের মধ্যে আরো তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

পিরোজপুরে পাইপগান, গুলি, পেট্রলবোমা, ককটেল ও দেশীয় অস্ত্রসহ জামায়াতে ইসলামীর তিন নেতাকে আটক করেছে পুলিশ। তাঁদের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইন ও বিস্ফোরক আইনে পৃথক দুটি মামলা দায়ের করে গতকাল বুধবার আদালতে পাঠানো পাঠানো হয়েছে। আটককৃতরা হলেন জামায়াতের রুকন ও পিরোজপুর জেলা জামায়াতের অর্থ সম্পাদক মো. সোহরাব হোসেন জুয়েল (৪৮), জেলা জামায়াতের সদস্য মো. শওকত আলী (৪২) ও মো. নুরুল ইসলাম (৩৫)। পুলিশ তাঁদের কাছ থেকে একটি পাইপগান, ছয় রাউন্ড গুলি, পাঁচটি পেট্রলবোমা, চারটি ককটেল, চারটি রামদা, তিনটি চাপাতি, তিনটি ডেগার (চাকু), ১৬টি জিআই পাইপ ও দুটি হকিস্টিক উদ্ধার করেছে। এ সময় তাঁদের ব্যবহৃত একটি মাইক্রোবাসও আটক করা হয়। পুলিশ জানায়, পিরোজপুর বাইপাস সড়ক এলাকায় মঙ্গলবার দুপুরে বাগেরহাটের দিক থেকে আসা একটি মাইক্রোবাসকে থামার জন্য সিগন্যাল দিলে সেটি অমান্য করে দ্রুত পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। পুলিশ ধাওয়া করে তিনজনকে আটক করে। পিরোজপুর সদর থানার ওসি এস এম জিয়াউল হক জানান, আটক তিনজন নাশকতার উদ্দেশ্যে অস্ত্র ও গোলাবারুদ মাইক্রোবাসে করে নিয়ে আসছিলেন।

সিলেটের বিয়ানীবাজার থানা পুলিশ মুড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান উপজেলা জামায়াত নেতা আবুল খয়েরকে গ্রেপ্তার করেছে। বিয়ানীবাজার থানার ওসি অবনী শংকর কর বলেন, আবুল খায়ের বিয়ানীবাজার থানায় দায়েরকৃত দুটি নাশকতা মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি।

সিরাজগঞ্জের তাড়াশের বারুহাস ইউনিয়নের বিনোদপুর বাজারে বিকেলে বিএনপির নির্বাচনী সভায় বিএনপি প্রার্থী আব্দুল মান্নান তালুকদারের গাড়িসহ দুটি মাইক্রোবাস ভাঙচুর করার অভিযোগ করা হয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ওই ভাঙচুর করার সময় পুলিশের কোনো ভূমিকা দেখা যায়নি।

জামালপুর সদর উপজেলার দিগপাইত ও কেন্দুয়া ইউনিয়নে বিএনপির প্রার্থী শাহ মো. ওয়ারেছ আলী মামুনের নির্বাচনী কার্যালয়ে নৌকা প্রতীকের পোস্টার লাগানো, কার্যালয় দুটি বন্ধ করে দেওয়া এবং ধানের শীষের পোস্টার ছিঁড়ে পুড়িয়ে ফেলার অভিযোগ করা হয়েছে। মঙ্গলবার গভীর রাতে সংঘটিত এ ঘটনার জন্য ওয়ারেছ আলী আওয়ামী লীগ প্রার্থী মো. মোজাফফর হোসেনের বিরুদ্ধে আচরণবিধি লঙ্ঘনের পৃথক দুটি অভিযোগ করেছেন রিটার্নিং অফিসারের কাছে। তবে মোজাফফর হোসেন কালের কণ্ঠকে বলেছেন, ‘এসব মিথ্যা অপপ্রচার মাত্র। বিএনপির অভ্যন্তরীণ কোন্দলের কারণে এসব ঘটনা ঘটে থাকতে পারে।’

সদর উপজেলার শিয়ালকোল ইউনিয়নের ধুকুরিয়া গ্রামে মঙ্গলবার গভীর রাতে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি জগদীশ চন্দ্র সাহার বাড়ি লক্ষ্য করে ককটেল বিস্ফোরণ ও গুলিবর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। স্থানীয় ইউপি সদস্য আতাউর রহমান রতন জানান, গভীর রাতে মোটরসাইকেলযোগে ১০-১২ জন বিএনপির ও জামায়াত সন্ত্রাসী জগদীশের বাড়ির পেছনে তিনটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায় এবং দুই রাউন্ড গুলিবর্ষণ করে। সদর থানার ইন্সপেক্টর নুরুল ইসলাম জানান, পুলিশ ককটেলের আলামত উদ্ধার করেছে।

গাজীপুরের কালিয়াকৈরে বিএনপির গণসংযোগে হামলা করার অভিযোগ উঠেছে আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে। গতকাল সকালে সফিপুর বাজার এলাকায় ধানের শীষের পক্ষে গণসংযোগ চলার হামলায় শতাধিক বিএনপি নেতাকর্মী আহত হয়েছে বলে দলটি দাবি করেছে। তবে কালিয়াকৈর পৌর আওয়ামী লীগের দাবি, বিএনপির নেতাকর্মীরা নৌকা প্রতীকের নির্বাচনী প্রচারণায় হামলা চালিয়ে  গাড়ি ভাঙচুর ও নেতাকর্মীদের আহত করেছে। দুপুরে উপজেলা বিএনপি ও বিকেলে কালিয়াকৈর পৌর আওয়ামী লীগ পাল্টাপাল্টি সংবাদ সম্মেলন করে। সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি প্রার্থী চৌধুরী তানভীর আহমেদ সিদ্দিকী বলেন,  আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা অতর্কিতে হামলা চালায়। অভিযোগ অস্বীকার করে আওয়ামী লীগ বলেছে, উল্টো বিএনপি নেতাকর্মীরাই সফিপুর বাজার এলাকায় আওয়ামী লীগের গণসংযোগে হামলা চালিয়ে গাড়ি ভাঙচুর ও কর্মীদের আহত করেছে।

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি প্রার্থীর পোস্টার লাগানোকে কেন্দ্র করে গতকাল দুপুরে সংঘর্ষ হয়। এতে উভয় পক্ষের অন্তত ১৭ জন আহত হয়। আহতদের মধ্যে রাসেল ও সাগর নামে দুজনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

রাজশাহীর চারঘাটে পোস্টার ছেঁড়া ও লাগানোকে কেন্দ্র করে নৌকা ও ধানের শীষ সমর্থকদের মধ্যে পৃথক দুটি সংঘর্ষে ৯ জন আহত হয়। এই ঘটনায় দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। উপজেলার বামনদিঘা গ্রামে ধানের শীষ সমর্থকরা পোস্টার লাগাতে গেলে নৌকার সমর্থকদের বাধার মুখে ফিরে যায়। পরে নৌকার সমর্থকরা বামনদিঘা উত্তরপাড়ায় পোস্টার লাগাতে গেলে বিএনপি সমর্থকরা বাধা দেয়। এতে সংঘর্ষে উভয় দলের ছয়জন আহত হয়। এদিকে প্রায় একই সময় বনকিশোর গ্রামের ফরিদপুর মোড়ে পোস্টার ছেঁড়াকে কেন্দ্র করে দুই দলের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে তিনজন আহত হয়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলা যুবদলের যুগ্ম সম্পাদক মো. নূর আলমকে মঙ্গলবার রাতে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তাঁর বিরুদ্ধে একাধিক মামলা আছে বলে পুলিশ জানিয়েছে। এদিকে জাতীয় পার্টির প্রার্থী রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া টিপুর নির্বাচনী প্রচারণায় বাধা দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। মঙ্গলবার রাতে লাঙল প্রতীকের মাইক নিয়ে প্রচারণায় বের হলে উপজেলার কালীকচ্ছ এলাকায় বাধার সম্মুখীন হয়। সরাইল থানার ওসি মো. মফিজ উদ্দিন বলেছেন, গ্রেপ্তার হওয়া নূরে আলমের বিরুদ্ধে আগেই একাধিক মামলা আছে। তিনি বলেন, প্রচারে বাধা দেওয়ার ঘটনা শুনে সেখানে পুলিশ ছুটে যায়।

ফরিদপুর-৩ (সদর) আসনে বিএনপির প্রার্থী চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফের অন্তত ১৫টি নির্বাচনী কার্যালয় ভাঙচুরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। মঙ্গলবার রাতে শহরের বিভিন্ন পাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। শহর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা জানান, রাতে শহরের টেপাখোলা বেলতলা, বৈরাগী স্কুল, পশ্চিম খাবাসপুর মেডিক্যাল হাসপাতাল এলাকা, আদমপুর ও গঙ্গাবর্দী এলাকাসহ বিভিন্ন স্থানে ধানের শীষ প্রতীকের প্রায় ১৫টি নির্বাচনী কার্যালয় ভাঙচুর করা হয়েছে। ধানের শীষের প্রার্থী ও বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ বলেন, নির্বাচনী পরিবেশ উত্তপ্ত করার জন্য সব ধরনের পন্থাই বেছে নেওয়া হচ্ছে। প্রতিনিয়ত বিএনপির নেতাকর্মীদের সাদা পোশাকে পুলিশ হয়রানি করছে। রিটার্নিং অফিসারের কাছে অভিযোগ জানিয়েও প্রতিকার পাওয়া যাচ্ছে না। কোতোয়ালি থানার ওসি এ এফ এম নাসিম জানান, বিএনপির নির্বাচনী কার্যালয় ভাঙচুর করার কোনো খবর আমার  জানা নেই। এ ব্যাপারে থানায় গতকাল সন্ধ্যা পর্যন্ত কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি।

নওগাঁর রাণীনগরে বিএনপির নির্বাচনী ক্যাম্প ভাঙচুর করার অভিযোগ উঠেছে। নির্বাচন উপলক্ষে উপজেলার পারইল ইউনিয়নের বগারবাড়ী নামক বাজারে একটি নির্বাচনী ক্যাম্প করা হয়। মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে সন্ত্রাসীরা ক্যাম্পের চেয়ার-টেবিল ভাঙচুরসহ খুঁটি ও ছাউনির কাপড় তছনছ করে বলে পারইল ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি নুর মোহম্মদ জানান।

ময়মনসিংহ-২ (ফুলপুর-তারাকান্দা) আসনের ধানের শীষ প্রার্থী শাহ শহীদ সারোয়ার সংবাদ সম্মেলন করে অভিযোগ করেছেন, মঙ্গলবার ফুলপুর সদরে তাঁর মিছিলে নৌকার প্রার্থীর নেতাকর্মীরা হামলা চালিয়ে ১০ জনকে আহত করেছে। পরে পুলিশ একটি গায়েবি মামলা দিয়ে রাতে তাঁর বাসার মেহমান এমদাদুল হক মিলনসহ সাত নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে।

নাটোরের বড়াইগ্রামে ছাত্রলীগ ও যুবলীগকর্মীদের হামলায় যুবদল ও ছাত্রদলের দুই কর্মী আহত হয়েছে। গতকাল সকালের দিকে বনপাড়া-হাটিকুমরুল মহাসড়কে উপজেলার রাজ্জাক মোড়ে এ ঘটনা ঘটে।

কুমিল্লায় নৌকা প্রতীকের প্রচারণায় হামলার অভিযোগে কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের সাবেক ও বর্তমান কাউন্সিলরসহ বিএনপি-যুবদল-ছাত্রদলের ৬১ নেতাকর্মীকে আসামি করে দুটি মামলা হয়েছে। সদর দক্ষিণ মডেল থানায় মামলা দুটি করেছেন নগর আওয়ামী লীগের সিনিয়র সদস্য খোরশেদ আলম। এতে অভিযোগ করা হয়েছে, গত সোমবার নৌকা সমর্থকদের নিয়ে তিনি নগরীর ২২ নম্বর ওয়ার্ডের লক্ষ্মীপুরে গণসংযোগ শেষে পদুয়ার বাজার ফেরার পথে দৈয়ারা রেলগেট এলাকায় আসামিরা হামলা করে। আসামি রুবেল হোসেনের ছোড়া গুলিতে কচুয়া গ্রামের জয়নাল আবদীনের ছেলে ছাত্রলীগের কর্মী সায়মন হাসান সানী আহত হয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা