kalerkantho

রবিবার । ১ কার্তিক ১৪২৮। ১৭ অক্টোবর ২০২১। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হতে বেশি করে ফলদ বৃক্ষরোপণ করুন : রাষ্ট্রপতি

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৫ জুন, ২০১৬ ১৮:২৭ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হতে বেশি করে ফলদ বৃক্ষরোপণ করুন : রাষ্ট্রপতি

রাষ্ট্রপতি মো.আবদুল হামিদ খাদ্য নিরাপত্তা ও পুষ্টি চাহিদা পূরণের পাশাপাশি অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হওয়ার লক্ষ্যে বেশি করে ফলদ বৃক্ষরোপণের জন্য দেশবাসীর প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানিয়েছেন।
ফলদ বৃক্ষরোপণ পক্ষ (১৬ থেকে ৩০ জুন) ও তিন দিনব্যাপী (১৬ থেকে ১৮ জুন) জাতীয় ফল প্রদর্শনী উপলক্ষে প্রদত্ত আজ এক বাণীতে তিনি এ আহবান জানান।
প্রতিবারের ন্যায় কৃষি মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে এ বছরও জুন মাসে দেশব্যাপী ‘ফলদ বৃক্ষরোপণ পক্ষ’ ও ‘জাতীয় ফল প্রদর্শনী’ অনুষ্ঠিত হচ্ছে জেনে সন্তোষ প্রকাশ করে রাষ্ট্রপতি বলেন,‘আমি এ উদ্যোগকে সাধুবাদ জানাই’।
তিনি বলেন,সভ্যতার শুরু থেকেই ফলের বহুবিদ ব্যবহার সর্বজনবিদিত। ফল বিভিন্ন ধরনের ভিটামিন ও খনিজ লবনের সবচেয়ে ভালো উৎস। ফলের ঔষধি গুণও যথেষ্ট। তাই দেহের পুষ্টি চাহিদা পূরণে ফলের কোনো জুড়ি নেই।
‘আমাদের দেশের মাটি ও জলবায়ু ফল উৎপাদনের জন্য অত্যন্ত অনুকূল’-এ কথা উল্লেখ করে আবদুল হামিদ বলেন, এখানে আম, জাম, কাঁঠাল, লিচু, কলা, পেঁপে, আনারস, আমড়া, লেবু, তাল, তরমুজ, আতা, কুল, কামরাঙা, সফেদা, নারিকেল, ডালিমসহ নানা জাতের ও স্বাদের ফল উৎপন্ন হয়। আজকাল বিদেশি ফল স্ট্রবেরি, আঙুর, কমলা, ম্যান্ডারিনও দেশে চাষ হচ্ছে।
রাষ্ট্রপতি বলেন, পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায়ও ফলদ বৃক্ষের রয়েছে অপরিসীম অবদান। তবে দেশীয় ফলের উৎপাদন ও বাজারজাতকরণে কীটনাশক ও প্রিজারভেটিভের অপরিকল্পিত ব্যবহার ইতোমধ্যে জনমনে নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। তাই এ ব্যাপারেও সকলকে সচেতন হতে হবে এবং জনস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর কার্যকলাপ থেকে বিরত থাকতে হবে।
তিনি বলেন,আমার বিশ্বাস,পরিকল্পিতভাবে অপ্রচলিত বিভিন্ন দেশীয় ফলের আবাদ বাড়ানোর মাধ্যমে ফল উৎপাদন ও পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষার পাশাপাশি বিপুল জনগোষ্ঠীর কর্মসংস্থানেরও সুযোগ সৃষ্টি করা সম্ভব বলে।
পুষ্টির পাশাপাশি আয় ও কর্মসংস্থানে ফলদ বৃক্ষের অবদান খুবই গুরুত্বপূর্ণ এ কথা উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি বলেন, এ প্রেক্ষাপটে ফলদ বৃক্ষরোপণ পক্ষের এবারের প্রতিপাদ্য ‘অর্থ পুষ্টি স্বাস্থ্য চান, দেশি ফল বেশি খান’ যথার্থ হয়েছে বলে তিনি মনে করেন।
মো.আবদুল হামিদ বলেন,‘জাতীয় ফল প্রদর্শনী’ নতুন প্রজন্মসহ আপামর জনগোষ্ঠীর কাছে ঐতিহ্যবাহী ও বৈচিত্র্যময় দেশীয় ফলের ভা-ার সম্পর্কে জানাতে ফলপ্রসূ ভূমিকা রাখবে বলে আমার বিশ্বাস। সংশ্লিষ্ট সবার আন্তরিক প্রচেষ্টার মাধ্যমে বাংলাদেশ দানাদার ফসলের ন্যায় ফল উৎপাদনেও স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করবে বলেও তিনি প্রত্যাশা করেন।
রাষ্ট্রপতি ‘ফলদ বৃক্ষরোপণ পক্ষ’ ও ‘জাতীয় ফল প্রদর্শনী’-২০১৬ এর সার্বিক সাফল্য কামনা করেন।



সাতদিনের সেরা