kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৩ মে ২০১৯। ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৭ রমজান ১৪৪০

পাগলা ফখরুর খোলা চিঠি

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৯ ডিসেম্বর, ২০১৮ ২১:০৯ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



পাগলা ফখরুর খোলা চিঠি

আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারকাতুহু। আমি পুরাতন ঢাকার একজন অধিবাসী আমি একজন মুক্তিযোদ্ধা, অসহায়, গরিব, সর্বহারা ও যাযাবর। আমি দীর্ঘদিন যাবত শ্বাসকষ্ট রোগে ভুগছি। আমার নাম শেখ ফখরুদ্দীন আহম্মদ ওরফে পাগলা ফখরু। পাগলা ফখরু উপাধি দিয়েছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তিনি তৎকালীন ঢাকা সচিবালয়ের ভেতরে আমাকে ডেকে বলেছিলেন, 'এই হলো আমার পাগল ছেলে আমার পাগলা ফখরু।' সেই বাবা আজ আমার বেঁচে নেই। 

সম্প্রতি একটি জাতীয় দৈনিকের প্রথম পাতায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বুজির 'আবার আসিব ফিরে এই সংসদে; শিরোনামে একটি সংবাদ দেখতে পাই। আমি তখন মহান রাব্বুল আলামিনের কাছে ফরিয়াদ করি এবং প্রার্থনা জানাই। হে আমার রব, আমার পলন কর্তা, আমার সৃষ্টি কর্তা, তুমি প্রধানমন্ত্রী, আওয়ামী লীগের সভানেত্রী, জননেত্রী শেখ হাসিনাক বুজির মনের আশা পূরণ করে দাও। উনি আশা প্রকাশ করেছেন আবার আসিব ফিরে এই সংসদে। তারপর উনি জীবনানন্দের সেই কবিতা ... 'আবার আসিব ফিরে ধানসিঁড়িটির তীরে-এই বাংলায়। ...'

জাতির পিতার এই বাংলায় জন্ম, শেখ হাসিনা বুজির এই বাংলায় জন্ম,  উনি থাকছেন এই বাংলায়। শেখ হাসিনা বুজির কণ্ঠের সঙ্গে কণ্ঠ মিলিয়ে আমি তার এই কথা আবারও বলতে চাই। 

'আবার আসিব ফিরে, এই সংসদের ভেতরে, আল্লাহ সর্ব শক্তিমান এই সংসদ নতুন করে করবে আমাকে দান। আমি বাংলাদেশের উন্নয়নের জন্যে করিতেছি যে সব কাজ। এই বাংলাদেশের জনগণ ভাইয়েরা, নৌকায় ভোট দিয়ে রাখবে জাতির পিতার লাজ। এই সবুজ বাংলার জন্য জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমান নিজের জীবন ও বংশের জীবন এই দেশকে করে গেছেন দান। তার বংশের প্রদীপ জ্বালাবার কেহ রইলো না ভাই আজ। এই বাংলাদেশের জনগণ ভাইয়েরা শেখ বংশের প্রদীপ জ্বালাবে আজ। আমি নারী হয়ে এই বাংলাদেশের উন্নয়নের জন্য করিতেছি যেই সব কাজ। এই বাংলার কিছু মীর জাফরের জন্য, বন্ধ হয়ে যাচ্ছে এই সব কাজ। 

আমি পাগলা ফখরু রাব্বুল আমালামিনের কাছে প্রার্থনা করিতেছি আজ। হে রাব্বুল আলামিন তুমি আমার বুজি জননেত্রী এই বাংলাদেশের প্রধামন্ত্রী শেখ হাসিনা বুজির মাথায় হাত রেখে রাখো তার সেই লাজ। নতুন করে ফিরে যেন করতে পারে এই দেশের উন্নয়নের জন্য সম্পূর্ণ সেই কাজ। আমি পাগলা ফখরু এই দেশের মা, বাবা, ভাই, বোন ও ছেলে মেয়েদের কাছে বলে যাচ্ছি, যে সব কথা আজ। এই নৌকার হাল ধরে ভোট দিয়ে এই দেশের উন্নয়নের জন্য তোমরা কর সবাই মিলে সেই কাজ।

এই নতুন প্রজন্মের ছেলে-মেয়েরা দেখবে সোনার বাংলাদেশ। গর্ব আমরা গর্ব সবাই গর্ব করি আজ। একদিন সারা বিশ্ব দেশের হয়ে থাকবে বাংলাদেশের মাথার তাজ। এই দেশে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ, এই দেশ মুক্তিযোদ্ধার বাংলাদেশ, এই দেশ সালাম, বরকত রফিক জব্বারের বাংলাদেশ। এই দেশ ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনের বাংলাদেশ। এই দেশ ১৮ কোটি মানুষের বিজয়ে স্বাধীন বাংলাদেশ।

জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু। বাংলাদেশ দীর্ঘজীবী হোক।

ইতি, শেখ ফখরুদ্দীন আহম্মেদ ওরফে পাগলা ফখরু।


(নাগরিক মন্তব্য বিভাগে প্রকাশিত লেখা ও মন্তব্যের দায় একান্তই সংশ্লিষ্ট লেখক বা মন্তব্যকারীর, কালের কণ্ঠ কর্তৃপক্ষ এজন্য কোনোভাবেই দায়ী নন।)

মন্তব্য