kalerkantho

রবিবার । ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ২৮ নভেম্বর ২০২১। ২২ রবিউস সানি ১৪৪৩

করোনাকালে কাবা প্রাঙ্গণে প্রথম জুমার নামাজের নজরকাড়া দৃশ্য

অনলাইন ডেস্ক   

২৩ অক্টোবর, ২০২১ ১২:৪১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



করোনাকালে কাবা প্রাঙ্গণে প্রথম জুমার নামাজের নজরকাড়া দৃশ্য

করোনাকালের প্রায় দুই বছর পর পবিত্র কাবা প্রাঙ্গণে সামাজিক দূরত্ব তুলে নিয়ে প্রথম জুমার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়েছে। পবিত্র মসজিদুল হারাম ও মসজিদে নববিতে পূর্ণ ধারণক্ষমতায় মুসল্লিদের নামাজ আদায়ের দৃশ্যে সবার চোখ জুড়ায়। গতকাল শুক্রবার (২২ অক্টোবর) করোনা বিষয়ক বিধি-নিষেধ শিথিল করার পর মক্কা ও মদনার পবিত্র দুই মসজিদে প্রথম জুমার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। 

কভিড-১৯ মহামারির প্রাদুর্ভাবের পর পুরো বিশ্ব থমকে দাঁড়ায়। করোনা সংক্রমণ রোধে ২০২০ সালের মার্চ থেকে দীর্ঘ সাত মাস শূণ্যতা বিরাজ করে পবিত্র মসজিদুল হারাম ও মসজিদে নববি প্রাঙ্গণে। এমন দৃশ্য দেশ-বিদেশের মুসল্লিদের মনে তীব্র কষ্ট ও বেদনাবোধ তৈরি করে। দীর্ঘ সময় পর সীমিত পরিসরে চালু হয় ওমরাহ ও নামাজ আদায়। স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণসহ আরোপিত হয় নানা ধরনের সতর্কতামূলক বিধি-নিষেধ।

সৌদি প্রবাসী বেসরকারি কর্মী আবদুল্লাহ মাহদি আরব নিউজকে বলেন, ‘এটি মহান আল্লাহর বড় অনুগ্রহের বিষয় যে আমরা পুনরায় মসজিদের ভেতর মানুষের ভিড়ের মধ্যে হাঁটাচলা করতে পারছি। যদিও এখনো সবাইকে মাস্ক পরতে হচ্ছে, তবুও এ পবিত্র প্রাঙ্গণ মুসল্লি ও ওমরাযাত্রীদের পদচারণায় মুখরিত।’ 

তিনি আরো বলেন, ‘করোনা সংক্রান্ত বিধি-নিষেধ শিথিল করার পর প্রথম শুক্রবার অনুষ্ঠিত জুমার নামাজের সময় পবিত্র কাবা প্রাঙ্গণ ও এর চারপাশের মসজিদুল হারামের আঙিনা দেখতে পাওয়া সত্যিই ভাগ্যের ব্যাপার যা কেবল মহান আল্লাহর বিশেষ অনুগ্রহে সম্ভব হয়েছে।’ 

গত শনিবার (১৬ অক্টোবর) সৌদির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় করোনা সংক্রান্ত বিধি-নিষেধ শিথিল করার ঘোষণা দেয়। পরদিন রবিবার (১৭ অক্টোবর) ফজরের নামাজের মাধ্যমে পবিত্র মসজিদুল হারাম ও মসজিদে নববিতে সামাজিক দূরত্ব তুলে নিয়ে পূর্ণ ধারণক্ষমতায় মুসল্লিদের উপস্থিতিতে দৈনন্দিন নামাজ শুরু হয়। 

মক্কার পবিত্র মসজিদুল হারাম পরিচালনা পর্ষদের ডেপুটি সেক্রেটারি ড. সাদ বিন মুহাম্মদ আল-মুহাইমিদ আরব নিউজকে জানান, পবিত্র দুই মসজিদের প্রেসিডেন্সি বিভাগ মসজিদ আগের মতো পরিপূর্ণ রূপে ফিরিয়ে আনার পরিকল্পনা বাস্তবায়নে নিজেদের সব ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করেছে। 

তিনি বলেন, ‘পবিত্র দুই মসজিদের জেনারেল প্রেসিডেন্সির সভাপতি শায়খ ড. আবদুর রহমান আল-সুদাইসের নির্দেশনা অনুযায়ী আমরা সব কাজ সম্পন্ন করেছি। পবিত্র মসজিদ প্রাঙ্গণ মুসল্লিদের জন্য নিরাপদ ও স্বস্তিদায়ক করতে আমরা সব ধরনের ব্যবস্থাপনা গ্রহণ করেছি। 

সূত্র : আরব নিউজ



সাতদিনের সেরা