kalerkantho

শুক্রবার । ৬ কার্তিক ১৪২৮। ২২ অক্টোবর ২০২১। ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

তুরস্কের বিখ্যাত মসজিদে কোরআন হিফজের সমাপনী অনুষ্ঠান

অনলাইন ডেস্ক   

৪ অক্টোবর, ২০২১ ১৭:২৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



তুরস্কের বিখ্যাত মসজিদে কোরআন হিফজের সমাপনী অনুষ্ঠান

তুরস্কের বিখ্যাত সেলিমিয়া মসজিদে পবিত্র কোরআন হিফজ সম্পন্নকারীদের নিয়ে সমাপনী অনুষ্ঠান হয়েছে। পাঁচ শতাব্দীর পুরনো এড্রিন শহরের বিখ্যাত মসজিদে তা অনুষ্ঠিত হয়। তুরস্কের ধর্মবিষয়ক প্রধান ড. আলি ইরবাস হাফেজদের মধ্যে সম্মাননা সনদ বিতরণ করেন। 

১৫৬৯-১৫৭৫ সালে অটেমান শাসনামলে সেলিমিয়া মসজিদ নির্মাণ করা হয়। বিখ্যাত অটোমান স্থাপত্যবিদ মিমার সিনান এই মসজিদটি নির্মাণ করেন। মসজিদটি তার জীবনের সবচেয়ে সুন্দর স্থাপনা বলে এক বিবৃতিতে তিনি জানান।

পবিত্র কোরআন হিফজ তথা মুখস্থ করা ইসলামের অতি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। এতে সাধারণত তিন বা চার বছর সময় লাগে। অবশ্য অনেক মেধাবী ছেলে-মেয়েরা আরো কম সময়ে হেফজ সম্পন্ন করে। সাধারণত ৭-১৩ বছর বয়সের মধ্যে ছেলে-মেয়েরা পবিত্র কোরআন হেফজ সম্পন্ন করে। প্রতিদিন ভোর থেকে রাত পর্যন্ত নিয়মতান্ত্রিকভাবে তাঁদের পড়াশোনা করতে হয়। 

আলজাজিরা নেটের এক প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, ২০০২ সালে তুরস্কে ১৬৭৭টি কোরআন হেফজের মাদরাসা ছিল। এখন তা বৃদ্ধি পেয়ে ১৮ হাজার ৬৭৫-এ দাঁড়িয়েছে। তুরস্কের ধর্ম বিভাগের তথ্য মতে, প্রতিবছর এসব মাদরাসায় ১৫ হাজারের বেশি হাফেজ কোরআন পাঠ সম্পন্ন করে। 

গত ২০ বছর যাবত তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান সরকারের পৃষ্ঠপোষকতায় হিফজ মাদরাসার সংখ্যা আগের চেয়ে অনেক বৃদ্ধি পায়। মূলত ‘আদর্শ ও নিষ্ঠাবান প্রজন্ম’ তৈরির ভাবনা থেকে তুরস্ক সরকার এই উদ্যোগ গ্রহণ করে। এরদোয়ান নিজেও পবিত্র কোরআন হিফজ করেন। তাঁর বাবার ইচ্ছা ছিল তিনি একজন হাফেজ হবেন। 



সাতদিনের সেরা