kalerkantho

মঙ্গলবার । ৩ কার্তিক ১৪২৮। ১৯ অক্টোবর ২০২১। ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

ব্রিটিশ পার্লামেন্টে মুসলিম এমপির কান্নাজড়িত কণ্ঠে বক্তব্য

অনলাইন ডেস্ক   

১১ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ১৩:৫৪ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ব্রিটিশ পার্লামেন্টে মুসলিম এমপির কান্নাজড়িত কণ্ঠে বক্তব্য

কান্নাভেজা কণ্ঠে মুসলিম হওয়ায় নানা বিদ্বেষমূলক নানা রকম ঘৃণ্য আচরণের মুখোমুখী হওয়ার কথা জানিয়েছেন ব্রিটিশ লেবার পার্টির এমপি জারাহ সুলতানা। ব্রিটিশ পার্লামেন্টে ‘ইসলামফোবিয়া’-এর সংজ্ঞা নিয়ে বিতর্ক হলে তিনি নিজের রাজনৈতিক জীবনে ঘৃণা ও দুর্ব্যবহারের শিকার হওয়ার কথা বলেন। বৃহস্পতিবার (৯ সেপ্টেম্বর) লন্ডনের কভেন্ট্রি সাউথের এমপি আবেগময়ী বক্তব্য প্রদান করেন। 

কেঁদে কেঁদে জারাহ সুলতানা বলেন, ‘আমাকে একজন চিঠি লিখেছেন, ‘সুলতানা, তুমি ও তোমার মুসলিম গোষ্ঠী মানবতার জন্য সত্যিই ভয়ঙ্কর।’ আরেকজন লিখেছেন যে আমি যেখানেই যাব সেখানে ক্যান্সারের মতো থাকব। ইউরোপ শিগগির তোমাকে বমি করে ফেলবে।’ আরেকজন আমাকে ‘সহানুভূতিশীল সন্ত্রাসী ও পৃথিবীর আবর্জন’ বলে অভিহিত করেছেন। তাদের এসব কথা অসংসদীয় ভাষা হিসেবে তৈরি হয়েছে।’ 

ওয়েস্টমিনিস্টার হলরুমে সুলতানা বলেন, ‘নির্বাচিত হওয়ার আগে, আমি একজন মুসলিম নারী হওয়ার কারণে অনেক বেশি নার্ভাস ছিলাম। আমি বিশিষ্ট মুসলিমদের ওপর নির্যাতনের দৃশ্য দেখে বেড়ে ওঠেছি। আমি জানতাম যে আমার পথচলা সহজ নয়।’ 

সুলতানা আরো বলেন, ‘যখন তরুণ বয়সী মেয়েরা আমাকে এ ব্যাপারে জিজ্ঞেস করে, আমি তাদের বলতে চাই, আমি দুশ্চিন্তা করে ভুল করেছি। কারণ তারাও তাদের অমুসলিম বন্ধু ও সঙ্গীদের মাধ্যমে একই চ্যালেঞ্জের মুখোমুখী হবে। তবে সংসদের সংক্ষিপ্ত সময়ে আমার এমন অভিজ্ঞতা হয়নি।’

আমি উপলব্ধি করেছি যে, ‘একজন মুসলিম নারী, স্পষ্টবাদী ও ডানপন্থী হতে হলে আপনাকে বর্ণবাদ ও ঘৃণার শিকার হতে হবে। অনেকে এমন আচরণ করেন যেন আমি এ দেশের শত্রু  হয়ে জন্ম নিয়েছি। যেন এ দেশের সঙ্গে আমার যোগসূত্র নেই।’ 

এর আগে আফগানিস্তানে বেআইনি যুদ্ধ শুরু করায় সাবেক প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ারের সমালোচনা করায় সুলতানার প্রতি অনেক ঘৃণ্য মনোভা দেখানো হয়। 

আবেগপ্রবণ বক্তব্যে সুলতানা আরো বলেন, ‘ইসলামোফোবিয়া শূন্যতা থেকে আসে না। এটি কোনো প্রাকৃতিক বা বিষয় নয়। বরং তা উপর থেকে শেখানো হয়। আরো দুঃখজনক বিষয় হলো, যখন একটি ডানপন্থী অনলাইন অ্যাকাউন্ট থেকে আমার সঙ্গে বর্ণবাদী আচরণ করা হয়, মুসলিমদের হামলাকারী সেনা বলে আখ্যায়িত করে, সেই সময় একজন কনজারভেটিভ এমপি তাদের বর্ণবাদী আচরণের জন্য বাইরে ডেকে নয়, বরং আমাকে অপমান করে এসবের উত্তর দেন।’ 

তিনি আরো বলেন, ‌‘ব্রিটেনে বর্তমানে ইসলামফোবিয়া চরম বাস্তবতা। এ বিষয় সম্পর্কে আমরা সবাই ভালো জানি। তবে এর মোকাবেলা বিচ্ছিন্নভাবে করা যাবে না।’

‘যেসব ব্যক্তিরা এসব ছড়াচ্ছে তারা কেবল মুসলিমদের লক্ষ্য করছে এমনটি নয়। বরং তারা কৃষ্ণাঙ্গদের টার্গেট করছে, তারা ইহুদি জনগোষ্ঠীকে টার্গেট করছে, তারা জিপসি, রোমা ও ট্রাভেলার সম্প্রদায়কে টার্গেট করছে, তারা অভিবাসী ও শরণার্থীদের টার্গেট করে কাজ করছে।’ 

সূত্র : আনাদোলু এজেন্সি



সাতদিনের সেরা