kalerkantho

রবিবার । ১৫ ফাল্গুন ১৪২৭। ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১। ১৫ রজব ১৪৪২

যুক্তরাজ্যের সীমান্তে আটকে পড়া

বড়দিনে ট্রাক চালকদের খাবার দিলেন মুসলিম স্বোচ্ছাসেবীরা

অনলাইন ডেস্ক   

২৫ ডিসেম্বর, ২০২০ ১২:০৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বড়দিনে ট্রাক চালকদের খাবার দিলেন মুসলিম স্বোচ্ছাসেবীরা

বড়দিনের ছুটির সময় যুক্তরাজ্যের সীমান্তবর্তী ডোভার বন্দর পথে আটকে পড়া মালবাহী যানের দীর্ঘ সারি। এ সময় চালকদের খাবার সরবরাহ করেছে মুসলিম স্বেচ্ছাসবকরা। সম্প্রতি যুক্তরাজ্যে নতুন ধরনের করোনা সানাক্ত হওয়ার পর ফ্রান্স এ পথ দিয়ে চলাচলে বিধিনিষেধ আরোপ করে। 

এম টুইয়েন্টি রোডে আটকে থাকা ট্রাক ও ট্রলির চালকদের মধ্যে ৪২০টি নাস্তার প্যাকেট বিতরণ করা হয়। সামনের দিনে আরো বেশি খাবার প্রদান করা হবে জানিয়েছে দ্য মুসলিম চ্যারিটিস ফোরাম (এমসিএফ)।

বড়দিনের উৎসবে প্রতিদিন তিন হাজারের বেশি খাবার বিতরণ করার পরিকল্পনা আছে। ছুটির সময় পরিবার থেকে বহুদূরে জ্যামে আটকা পড়া গাড়ি চালকদের তা দেওয়া হবে।

গত বুধবার সন্ধার পর থেকে হাজারের বেশি মালবাহী যান যুক্তরাজ্য ছেড়ে গেলেও অনেক যান ডোভার বন্দরে আটকা পড়ে আছে। যুক্তরাজ্যে নতুন ধরনের করোনা সনাক্তের পর ফ্রান্স এই পথ দিয়ে পারাপারে বিধিনিষেধ জারি করে।

মুসলিম চ্যারিটিস ফোরাম (এমসিএফ)-এর প্রধান নির্বাহী ফাদি ইতানি বলেন, ‘অপ্রত্যাশিতভাবে মালবাহী যান চালকদেরকে পরিবার-পরিজন থেকে দূরে নববর্ষ ও ক্রিস্টমাস উৎসব অতিবাহিত করতে হচ্ছে। এটি খুবই দুঃখজনক।

আর করোনা মহামারির সময় প্রয়োজনীয় খাবার আমদানি-রপ্তানির কাজে নিয়োজিত চালকরা দেশের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এই কঠিন সময় তাদের সহায়তায় এগিয়ে খুবই জরুরি। তাই আমরা খাবার, পানীয় ও প্রয়োজনীয় সবকিছু সরবরাহ করছি।’

এমসিএফ ছাড়াও আল খাইর ফাউন্ডেশন চার শ প্যাক চিকেন ও ভাতের ব্যবস্থা করে। তাছাড়া শতাধিক নাস্তা প্যাকে ব্যাবস্থাও করা হয়। গতকাল বৃহস্পতিবার এসব খাবার লন্ডন থেকে উপকূলে আটকে পড়া চালকদের জন্য আনা হয়।

খাবার সরবরাহের সময় স্বাস্থ্যকর্মীদের পুলিশ নিরাপত্তার ব্যবস্থা করে। সাত কিলোমিটারজুড়ে আটতে থাকা মালাবাহী যানের সব চালকের কাছে নিরাপদে খাবার পৌঁছে দিতে পুলিশ বিশেষভাবে সহায়তা করে।

আল খাইর ফাউন্ডেশনের বিশেষ প্রজেক্ট প্রধান ইমরান নিসার বলেন, ক্রিস্টমাসের দিনসহ যতদিন সব ট্রাক চলা যাবে না ততদিন পর্যন্ত আমরা খাবার সরবরাহের পরিকল্পনা নিয়েছি। এখানের অনেকের যথেষ্ট পরিমাণ খাবারও  পানিও নেই। তাই আমাদের সামান্য খাবারও তাদের কাছে অনেক গুরুত্বপূর্ণ।’

সূত্র : ফাইভ পিলার্স

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা