kalerkantho

বুধবার। ৬ মাঘ ১৪২৭। ২০ জানুয়ারি ২০২১। ৬ জমাদিউস সানি ১৪৪২

ইসরায়েলের অধিকৃত এলাকার পণ্যও আমদানি করবে বাহরাইন

অনলাইন ডেস্ক   

৪ ডিসেম্বর, ২০২০ ১২:৫৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ইসরায়েলের অধিকৃত এলাকার পণ্যও আমদানি করবে বাহরাইন

বাহরাইনের শিল্প ও বাণিজ্যমন্ত্রী জায়েদ বিন রাশেদ আল জিয়ানি

ইসরায়েলের পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে ফিলিস্তিনের অধিকৃত অঞ্চল ও ইসরায়েলের ভেতরে উৎপাদিত পণ্যে বাহরাইন কোনো পার্থক্য করছে না বলে জানিয়েছেন দেশটির শিল্প ও বাণিজ্যমন্ত্রী জায়েদ বিন রাশেদ আল জিয়ানি। এদিকে দীর্ঘদিন যাবত ইসরায়েলের দখল করা অঞ্চলের পণ্য সরবরাহ বন্ধের আহ্বান জানিয়ে আসছে ফিলিস্তিন। 

গতকাল বৃহস্পতিবার (৩ নভেম্বর) ইসরায়েলে সফররত বাহরাইন প্রতিনিধি দলের সদস্য আল জিয়ানি রয়টার্সকে জানান, ইসরায়েলের যেকোনো পণ্যকে ইসরায়েলের পণ্য হিসেবে গণ্য করছে বাহরাইন। এর উৎপাদস্থল দেখা হচ্ছে না বলে জানান তিনি।

ইসরায়েলের সংবাদ মাধ্যম জানায়, ফিলিস্তিনের অধিকৃত অঞ্চল ও ইসরায়েলের ভেতরের অঞ্চলে উৎপন্ন পণ্য আমদানিতে বাহরাইন কোনো পার্থক্য করবে না জানিয়েছেন দেশটির বাণিজ্য ও শিল্প মন্ত্রী। বরং এটিকে ইসরায়েলের পণ্য হিসেবে আখ্যায়িত করা হবে বলে জানান তিনি।

এদিকে প্যালেস্টাইন লিবারেশন অর্গানাইজেশন (পিএলও)-এর নির্বাহি পরিষদের সদস্য আবু ইউসুফ প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, এটি জাতিসংঘ ও আন্তর্জাতিক আইনের পুরোপুরো লঙ্ঘনের শামিল।

এছাড়াও তিনি আরব রাষ্ট্রগুলোকে ইসরায়েলের পণ্য আমদানি থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানিয়ে বলেন, এতে আরব দেশেল নিজস্ব বাজার ও অর্থনৈতিক অগ্রগতি বাধাপ্রাপ্ত হবে।

ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ বিশ্বের অনেক দেশ দখল করা এলাকার পণ্যকে ইসরায়েলের পণ্য হিসেবে স্বীকৃতি দেয় না। বরং গ্রাহকের অবগতির সুবিধার্থে পণ্যের উৎপাদস্থল চিহ্নিত করে রাখা হয়। অবশ্য যুক্তরাষ্ট্র ইসরায়েলের যেকোনো পণ্যকে ইসরায়েলের পণ্য হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে।

২০১৬ সালের ডিসেম্বরে প্রকাশিত জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের সিদ্ধান্ত মতে, ১৯৬৭ সালের পর থেকে ইসরায়েল কর্তৃক ফিলিস্তিনের দখল করা ভূখণ্ড যেখানে পূর্ব জেরুজালেম বা আল কুদস আশ শরিফ অবস্থিত তাতে ইসরায়েলি বসতি স্থাপন আন্তর্জাতিক আইনে লঙ্ঘনে শামিল। এবং তা দ্বিরাষ্ট্রীয় সংকট সমাধান ও স্থায়ী শান্তি প্রতিষ্ঠার প্রধান অন্তরায়। তাই বসতি স্থাপনে ইসরায়েলকে কোনো ধরনের সহায়তা করা থেকে বিরত থাকার সব দেশের জন্য জরুরি।

সূত্র : রয়টার্স  

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা