kalerkantho

রবিবার । ১০ মাঘ ১৪২৭। ২৪ জানুয়ারি ২০২১। ১০ জমাদিউস সানি ১৪৪২

ওমরাহযাত্রীদের সেবায় নিয়োজিত স্বেচ্ছাসেবকরা

অনলাইন ডেস্ক   

১৭ নভেম্বর, ২০২০ ১২:৪৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ওমরাহযাত্রীদের সেবায় নিয়োজিত স্বেচ্ছাসেবকরা

করোনাকালে সীমিত পরিসরে ওমরাহ পালনকারীদের সেবা দিতে বিপুল সংখ্যক স্বেচ্ছাসেবীরা কাজ করছেন। করোনারোধে দীর্ঘ আট মাস ওমরাহ বন্ধের পর মসজিদুল হারামে সীমিত পরিসরে ওমরাহ ও নামাজ আদায় চলছে।

মক্কার পবিত্র মসজিদুল হারামে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করে অনেক সেচ্ছাসেবীর বিভিন্ন সেবা প্রদানের তথ্য নিশ্চিত করেছে সৌদি আরবের রেড ক্রিসেন্ট কর্তৃপক্ষ (এসআরসিএ)।

মক্কার এসআরসিএ-এর প্রধান হানান আল শারমানি বলেন, ওমরার প্রথম সপ্তাহ থেকে ওমরাহ পালনকারীদে সেবা দিয়ে যাচ্ছে স্বেচ্ছাসেবাকর্মীরা।

সৌদি আরবের সব স্থান থেকে সাধারণ স্বেচ্ছাসেবক নেওয়া হয়। তবে করোনা মহামারির কারণে হাজিদের সর্বোত্তম সেবা দিতে কেবল মক্কায় অবস্থানরত স্বেচ্ছাসেবীদের নেওয়া হচ্ছে বলে জানান আল শারমানি।

করোনা মহামারিরোধে ওমরাহযাত্রীদের প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে প্রায় তিন শয়ের বেশি স্বেচ্ছাসেবী কাজ করছে। এছাড়াও তাঁরা ওমরাহযাত্রীদের মধ্যে স্বাস্থ্য বিষয়ক সচেতনা বৃদ্ধি ও স্বাস্থ্যবিধি বাস্তবায়নে বেশ তৎপর। ইংরেজি, উর্দু, বাংলা ও তার্কিশ ভাষাসহ অন্যান্য সব ভাষায় মানুষকে সেবা দেন তাঁরা।

ডায়াবেটিস, উচ্চরক্তচাপ, প্রেসারসহ নানা রোগের প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদান করেন স্বেচ্ছাসেকরা। পেশাগত শিষ্টাচারের মাধ্যমে রোগের চিকিৎসা প্রদান করা এবং প্রয়োজনের মুহূর্তে হাসপাতালে নেওয়ার ব্যবস্থা করা হয় বলে জানান আল শারমানি।

আল শারমানি আরো জানান, করোনা মহামারির আগে ওমরাহযাত্রীদের জন্য জায়নামাজ, চাদর, হালকা নাস্তাসহ নানা ধরনের উপহার দিতেন স্বেচ্ছাসেবীরা। কিন্তু মহামারির কারণে এখন তা বন্ধ রাখা হয়।

এসআরসিএ-এর মুখপাত্র আবদুল আজিজ বাদামাউন বলেন, শুক্রবার মসজিদুল হারামের বিভিন্ন স্থানে ২৬ জন পুরুষ স্বেচ্ছাসেবক ও ২০ জন নারী স্বেচ্ছাসেবক কাজ করেন। মসজিদের সব প্রান্তে সব ধরনের সেবা দেন তাঁরা। নামাজের স্থান ও  হলরুমেও তাঁরা সেবা প্রদান করেন।

সূত্র : আরব নিউজ

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা