kalerkantho

বুধবার । ১০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৫ নভেম্বর ২০২০। ৯ রবিউস সানি ১৪৪২

প্যারিসে দুই মুসলিম নারীকে ছুরিকাঘাত, নিন্দায় আল আজহার

অনলাইন ডেস্ক   

২৩ অক্টোবর, ২০২০ ১২:৪৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



প্যারিসে দুই মুসলিম নারীকে ছুরিকাঘাত, নিন্দায় আল আজহার

প্যারিসের বিখ্যাত আইফেল টাওয়ারের কাছে দুই মুসলিম নারীকে ছুরিকাঘাতের ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়েছে মিশরের বিশ্ববিখ্যাত বিদ্যাপীঠ আল আজহার বিশ্ববিদ্যালয়। মহানবী মুহাম্মাদ (সা.)-এর ব্যাঙ্গচিত্র দেখিয়ে আলোচনা করায় শিক্ষকের হত্যাকাণ্ডের ঘটনার পর মুসলিমদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটে।

গতকাল বৃহস্পতিবার (২২ অক্টোবর) মুসলিম নারীর ওপর হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়ে এক টুইট বার্তায় জানায়, ‘ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে দুই মুসলিম নারীর ওপর উগ্রপন্থীদের ঘৃণ্য সন্ত্রাসী হামলার তীব্র নিন্দা জানায় আল আজহার কর্তৃপক্ষ।’

বিবৃতে আরো বলা হয়, সব ধরনের বিদ্বেষমূলক পাশবিক হামলা ও হত্যাকাণ্ডের নিন্দা জানায় আজহার কর্তৃপক্ষ। এ বিষয়ে আল আজহারের অবস্থান অত্যন্ত সুস্পষ্ট। হামলাকারী কিংবা অপরাধী কোন ধর্মের, তা কোনো বিবেচ্য বিষয় নয়। সব ধরনের ঘৃণা-বিদ্বেষ ও সন্ত্রাসী হামলার নিন্দা জানায়।

বিবৃতিতে আহত মুসলিম নারী ও তাঁদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে মহান আল্লাহর কাছে তাঁদের আশু রোগমুক্তি কামনা করা হয়।

শিক্ষক হত্যা ঘটনার পর থেকে ফ্রান্সের মুসলিম জনগোষ্ঠী ও ইসলামী প্রতিষ্ঠানের প্রতি তীব্র প্রতিক্রিয়া শুরু হয়। এরই জেরধরে দুই ফরাসি নারী কর্তৃক মুসলিম নারীকে ছুরিকাঘাতে হত্যাচেষ্টার ঘটনা ঘটে। আইফেল টাওয়ারের পাশে গত রবিবার (১৮ অক্টোবর) দুর্ঘটনা হলেও তা বুধবার গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়। মুসলিম বিদ্বেষ থেকেই এমনটি ঘটেছে বলে মনে করা হয়।

আইফেল টাওয়ারে বিকেলবেলা ঘুরে বেড়ানোর সময় আলজেরিয়া বংশোদ্ভূত কানজা ও তাঁর চাচাত বোন আমালকে তাঁদের শিশু সন্তানদের সামনে ছুরিকাঘাতে আহত করা হয়। হামলকারী দুই নারীর আটক ও তদন্ত শুরু হওয়ার খবর নিশ্চিত করে পুলিশ বিভাগ।

আঘাত হানা দুই নারী প্রথমে নিজেদের কুকুরকে মুসলিম নারীদের দিকে লেলিয়ে দেয়। এর কিছুক্ষণ পরই ছুরি দিয়ে বেশ কয়েক বার আঘাত করা হয়। আঘাতের সময় ফরাসী নারীরা উচ্চস্বরে বলছিল, ‘নোংরা আরব, তোমাদের দেশে ফিরে যাও।’

ছয় বার আঘাতের পর কানজকে হাসপাতালে নেওয়া হয়। তাঁর ফুসফুসে ক্ষত হয়েছে বলে জানা যায়। এদিকে আমালের দুই হাতের চিকিৎসার জন্য অস্ত্রপাচার করা হয়।

সূত্র : আল জাজিরা নেট

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা