kalerkantho

সোমবার। ১৭ জুন ২০১৯। ৩ আষাঢ় ১৪২৬। ১৩ শাওয়াল ১৪৪০

সরকারের ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ

১১ মে, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রমজান এলে আমাদের বাজারে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি পাওয়া স্বাভাবিক ঘটনায় পরিণত হয়েছে। পণ্য মজুদ করে এবং কৃত্রিম সংকট দেখিয়ে দ্রব্যের দাম বাড়িয়ে তারা সাধারণ মানুষের পকেট কেটে টাকা নিয়ে নেয়। অন্যদিকে সরকারের পক্ষ থেকে প্রতিবছরই রমজানে বাজার নিয়ন্ত্রণ করার প্রতিশ্রুতি থাকলেও শেষ পর্যন্ত তা ব্যর্থ হয়। রোজার মাসে বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখা সরকারের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ। চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় সরকারের পূর্বপ্রস্তুতি এবার বেশ ভালো। ছোলা, চিনি, তেল, খেজুর, ডালসহ যেসব পণ্যের ব্যবহার রোজায় বেড়ে যায়, সেসব চাহিদার চেয়ে বেশি আমদানি করা হয়েছে। তার পরও ব্যবসায়ীদের মুনাফাখোরি মনোভাব ও পরিবহনে চাঁদাবাজি ইত্যাদি কারণে নিত্যপণ্যের বাজার অস্থিতিশীল হয়ে উঠতে পারে। রোজাদারদের দুর্ভোগ বাড়িয়ে যারা ব্যবসা করার চক্রান্ত করছে, তাদের ব্যাপারে সজাগ থাকতে হবে। বাজার মনিটরিংয়ে হতে হবে আরো বেশি সক্রিয়। প্রয়োজনে সরকারি উদ্যোগে রোজা উপলক্ষে খোলাবাজারে পণ্য বিক্রির ব্যবস্থা করতে হবে। বাজারে মনিটরিং বাড়ানো, ভ্রাম্যমাণ আদালতের নিয়মিত অভিযান, অনিয়ম প্রমাণিত হলে বিক্রেতা ও ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ, নিত্যপণ্যের সরকারি মজুদ বাড়িয়ে তা ন্যায্য মূল্যে সরবরাহ করা, মনিটরিং ব্যবস্থাপনায় কোনো অবহেলা বা দুর্নীতি হচ্ছে কি না তা পর্যবেক্ষণ করতে হবে। সরকারের মনিটরিং কমিটির মধ্যে আন্তরিকতা, দক্ষতা ও সততা থাকলে অবশ্যই বাজার নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব।

সাকিব আল হাসান 

রৌমারী, কুড়িগ্রাম। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা