kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৭ জুন ২০১৯। ১৩ আষাঢ় ১৪২৬। ২৩ শাওয়াল ১৪৪০

সংসদ বর্জন অগ্রহণযোগ্য

৪ মে, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বিএনপির নির্বাচিত সংসদ সদস্য ও দলটির অবশেষে সংসদে যাওয়ার ঘটনা দেশের রাজনীতির জন্য অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ ও তাৎপর্যমণ্ডিত। বিএনপি এখন সংসদে আছে, সেটিই খুব কাজের কথা। সদ্য বিলুপ্ত পার্লামেন্টে একটা ‘বিরোধী দল’ রাখতে কত কী-ই না করা হয়েছিল। তাতে যে দেশের রাজনীতির পালে হাওয়া লাগানো গেছে, সে কথা কেউই স্বীকার করবে না। বাংলাদেশের জাতীয় রাজনীতির প্রধান আওয়ামী লীগ ও বিএনপি। তাই দল দুটির একটিও দেশীয় রাজনীতির অঙ্গনে অপাঙেক্তয় হয়ে পড়লে তাতে দেশের গণতন্ত্রেরই ব্যাপক ক্ষতি। বিগত ও বর্তমান সংসদের একরকম অচলাবস্থার পেছনে বিএনপির নির্বাচন বর্জন ও ফলাফল বর্জনের আত্মঘাতী সিদ্ধান্তের দায়ও কম দেখি না। গণতান্ত্রিকব্যবস্থায় সংসদ ‘বর্জন’ করে কখনো কোনো দলের পক্ষে মাঠে টিকে থাকা সম্ভব নয়। আশা করি, বিএনপি সেটি বুঝতে পেরেই সংসদে আসার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ২০১৮ সালের নির্বাচনের মতো বিএনপি ২০১৪ সালের নির্বাচনে অংশ নিলে দেশের গণতন্ত্র ও রাজনৈতিক ক্ষেত্রে এতটা দেউলিয়াত্বের চিত্র ফুটে উঠত না। একদলীয় শাসন ব্যবস্থা কোনো গণতান্ত্রিক দেশের জন্য ভালো নয়। রাজনীতির মাঠে গণতন্ত্রচর্চায় তীব্র প্রতিদ্বন্দ্ব্বিতা থাকতে হবে। তা না হলে গণতন্ত্র ভূলুণ্ঠিত হলে আখেরে তার মাসুল গুনতে হয় জনগণকেই। দেশের স্বার্থে, মানুষের অধিকারের স্বার্থে কখনো সংসদ ‘বর্জন’ না করার প্রতিজ্ঞা থাকা দরকার।

মুফতি আব্দুল্লাহ আল হাদী

ব্যাংক কলোনি, সাভার, ঢাকা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা