kalerkantho

রবিবার। ১৬ জুন ২০১৯। ২ আষাঢ় ১৪২৬। ১২ শাওয়াল ১৪৪০

প্রকৃত কারণ উদ্ঘাটন করে আইন প্রয়োগ জরুরি

৬ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঢাকায় অগ্নিকাণ্ড এক নিয়মিত ঘটনায় পরিণত হয়েছে। এরই মধ্যে আবার খবর বেরিয়েছে রাজধানীর অন্তত প্রায় ৭০ হাজার বহুতল ভবন রয়েছে অগ্নিকাণ্ডের ঝুঁকিতে। এই বিপুলসংখ্যক ভবনে যারা বাস করছে, অগ্নিকাণ্ড ঘটলে তাদের জীবন বাঁচবে কি না সে ব্যাপারে নিশ্চয়তা নেই। বনানীর যে ভবনটিতে অগ্নিকাণ্ডে ২৫ জন মানুষের প্রাণ গেছে, সেটি রাজউক অনুমোদিত নকশা অনুযায়ী নির্মিত হয়নি। রাজউক তাহলে এত দিন কী করেছে? বনানীর অগ্নিকাণ্ডে নিহত হওয়ার ঘটনা হত্যাকাণ্ড। দায়িত্বে অবহেলা পরিলক্ষিত হচ্ছে সর্বত্রই। একেকটি অগ্নিকাণ্ডের পর কিছুদিন কথাবার্তা হয়, হৈচৈ হয়, তদন্ত কমিটি হয়; কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয় না। কমিটির পর কমিটি সুপারিশ দিয়েই গেছে, কোনো সুপারিশই বাস্তবায়িত হয়নি। নিমতলী অগ্নিকাণ্ডের পর উচ্চপর্যায়ের কমিটি ১৭ দফা সুপারিশ করেছিল। সেগুলো বাস্তবায়িত হলে নিশ্চয়ই চকবাজার ট্র্যাজেডি দেখতে হতো না। অগ্নিসংকেত, জরুরি নির্গমন পথ, অগ্নিনির্বাপণের ব্যবস্থা ইত্যাদি ছাড়া একটি বহুতল ভবন কিভাবে দাঁড়িয়ে থাকে আমরা বুঝতে পারি না। আগুন যাতে না লাগে, সে ব্যাপারে সাধারণ মানুষকে সতর্ক হতে হবে। একটা দুর্ঘটনা ঠিক দুর্ঘটনাই। কিন্তু সাধারণ মানুষ, বিশেষত ভবনের বাসিন্দারা সতর্ক হলে দুর্ঘটনা এড়ানো সম্ভব। সব অগ্নিকাণ্ডের প্রকৃত কারণ উদ্ঘাটন করে তা থেকে ক্ষয়ক্ষতি এড়ানোর সব ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হোক।

মেনহাজুল ইসলাম তারেক

মুন্সীপাড়া, পার্বতীপুর, দিনাজপুর।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা