kalerkantho

শুক্রবার । ২৪ মে ২০১৯। ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৮ রমজান ১৪৪০

বাংলাদেশ তাক লাগিয়ে দিয়েছে বিশ্বকে

৩০ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



স্বাধীনতা পেতে অনেক মূল্য দিতে হয়েছে আমাদের। জীবন দিয়েছেন ৩০ লাখ শহীদ, সম্ভ্রম হারিয়েছেন দুই লাখ মা-বোন। বহু ত্যাগ ও রক্তের বিনিময়ে অর্জিত আমাদের এই বাংলাদেশ। দেখতে দেখতে কেটে গেল ৪৮ বছর। স্বল্পোন্নত দেশ থেকে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নশীল দেশের কাতারে। বেড়েছে মাথাপিছু আয়, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ। শিশুমৃত্যুর হার কমেছে, গড় আয়ু বেড়েছে, মানব উন্নয়ন সূচক ভালো অবস্থানে রয়েছে, বেড়েছে বিনিয়োগ। সমৃদ্ধ হচ্ছে আমাদের অর্থনীতি। জিডিপি প্রবৃদ্ধির হার সাতের ওপরে। আসছে প্রচুর রেমিট্যান্স। জাতিসংঘের অর্থনৈতিক ও সামাজিক কাউন্সিলের (ইকোসক) মানদণ্ড অনুযায়ী উন্নয়নশীল একটি দেশের মাথাপিছু আয় হতে হবে কমপক্ষে এক হাজার ২৩০ মার্কিন ডলার, বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় এখন এক হাজার ৬১০ মার্কিন ডলার। মানবসম্পদ সূচকে ৬৬ পয়েন্ট প্রয়োজন হলেও বাংলাদেশ অর্জন করেছে ৭২.৯ পয়েন্ট। এসবই বাংলাদেশের অর্জন। বাংলার উদ্যমী আর স্বাপ্নিক ১৬ কোটি মানুষকে এই অর্জন ধরে রাখার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। স্বাধীনতা-পরবর্তীকালে তৎকালীন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হেনরি কিসিঞ্জার বাংলাদেশকে তলাবিহীন ঝুড়ি বলে উপহাস করেছিলেন। সেই তলাবিহীন ঝুড়ি বাংলাদেশকেই এখন উন্নয়নের রোল মডেল মানেন বিশ্বমোড়লরা। স্বাধীনতার ৪৮ বছরে বাংলাদেশ যেসব খাতে বিশেষ অর্জন করেছে সেসবের মধ্যে রয়েছে—নারী ও শিশু উন্নয়ন, নারীর ক্ষমতায়ন, ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠন, কৃষিতে প্রবৃদ্ধি ও খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা, প্রবাসী আয়, জাতিসংঘ শান্তি মিশনে অংশগ্রহণ, বিদু্যুৎ খাতে সাফল্য, শিক্ষায় অগ্রগতি, স্বাস্থ্যসেবায় সাফল্য, শিল্প ও বাণিজ্য খাতে অগ্রগতি, সামাজিক নিরাপত্তা খাতে অগ্রগতি এবং ভূমি ব্যবস্থাপনা ও মন্দা মোকাবেলায় সাফল্য। মাথাপিছু আয়, মানব উন্নয়ন সূচকে অগ্রগতি এবং কম অর্থনৈতিক ঝুঁকি—এই তিন বিষয়েই উন্নতি করে বাংলাদেশ তাক লাগিয়ে দিয়েছে বিশ্বকে।

এ কে এম আলমগীর

ও আর নিজাম রোড, চট্টগ্রাম।

মন্তব্য