kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০২২ । ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ৮ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ১০ ফুটের অজগর, ধরে গোসল করাল শিক্ষার্থীরা

পরে অবমুক্ত

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

২১ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ১৩:১৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ১০ ফুটের অজগর, ধরে গোসল করাল শিক্ষার্থীরা

সোহরাওয়ার্দী মোড়ে সাপটিকে নিয়ে গোসল করানো হচ্ছে। ছবি: ভিডিও থেকে নেওয়া

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) ক্যাম্পাসে প্রায় ১০ ফুট লম্বা একটি অজগর সাপ উদ্ধার করা হয়েছে। মঙ্গলবার (২০ সেপ্টেম্বর) রাত ১১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদ সংলগ্ন হানিফ কটেজের পানির পাইপ থেকে এই অজগরটি উদ্ধার করা হয়।

অজগর সাপটিকে নিরাপদে ক্যাম্পাসের জনমানবহীন গহিন অরণ্যে অবমুক্ত করা হয়েছে। এর আগে এটিকে ধরে গোসল করানো হয়।

বিজ্ঞাপন

শিক্ষার্থীরা সাপটি ধরে বিশ্ববিদ্যালয়ের সোহরাওয়ার্দী মোড়ে নিয়ে গোসল করান। এর একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। চবি ঝুপড়ি নামের একটি ফেসবুক গ্রুপে আবদুল্লাহ মুনাব্বির নামের একজন ভিডিওটি শেয়ার করেছেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজনীতিবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ‘কেন্দ্রীয় মসজিদের পূর্ব দিকের হানিফ কটেজের পানির পাইপের ভেতর থেকে প্রায় ১০ ফুট লম্বা ওই অজগর সাপটি উদ্ধার করেন চবির প্রাণিবিদ্যা বিভাগের কয়েকজন শিক্ষার্থী। পরে এটিকে ক্যাম্পাসের গহিন নিরাপদ স্থানে অবমুক্ত করে দেওয়া হয়। ’

ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী আব্দুল্লাহ মুনাব্বির বলেন, ‘অজগরটির অস্তিত্ব জানতে পেরে কটেজের বাসিন্দারা সঙ্গে সঙ্গেই খবর পাঠান চবির প্রাণিবিদ্যা বিভাগে। এরপর প্রায় দুই ঘণ্টার প্রচেষ্টায় সাপটিকে উদ্ধার করা হয়। ’

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের শিক্ষার্থী এবং ভেনম রিসার্চ সেন্টারের শিক্ষানবিশ গবেষক রফিকুল ইসলাম। বিশেষজ্ঞ ছাড়া এ ধরনের বিপজ্জনক কাজ থেকে সাধারণ শিক্ষার্থীদেরকে দূরে থাকার আহ্বান জানিয়ে তিনি কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘এটি বার্মিজ পাইথন প্রজাতির সাপ। এটি লম্বায় প্রায় ১০ ফুট। কেন্দ্রীয় মসজিদের পাশের একটি কটেজের পাইপের মধ্যে সাপটিকে প্রথম দেখা যায়। এরপর বেশ কিছু শিক্ষার্থী এটিকে উদ্ধার করে নিরাপদ স্থানে ছেড়ে দেয়। ’

গত ছয় মাসে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস থেকে প্রায় সাতটি বিশালাকৃতির অজগর ধরা পড়েছে। তবে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের জীববৈচিত্র্য রক্ষার্থে সবগুলোকেই ক্যাম্পাসের জনমানবহীন গহিন অরণ্যে ছেড়ে দেওয়া হয়।



সাতদিনের সেরা