kalerkantho

শনিবার । ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ । ৯ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ২৭ সফর ১৪৪৪

কিভাবে সামলানো উচিত বিষণ্ণতায় আক্রান্ত বন্ধুকে?

অনলাইন ডেস্ক   

১১ আগস্ট, ২০২২ ২০:১২ | পড়া যাবে ৬ মিনিটে



কিভাবে সামলানো উচিত বিষণ্ণতায় আক্রান্ত বন্ধুকে?

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, আনুমানিক ২৮০ মিলিয়ন মানুষ হতাশার সঙ্গে লড়াই করে। তাই এটিকে সারা বিশ্বের অন্যতম প্রধান রোগ বলে স্বিকৃতি দেওয়া হয়েছে। বিষণ্ণতা ভুক্তভোগীকে সব কিছু থেকে বিচ্ছিন্ন এবং অপ্রতিরোধ্য পরিস্থিতির মধ্যে ফেলে পারে। আপনার সমর্থন একজনের মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যার প্রভাব কমাতে বিশেষ সাহায্য করবে।

বিজ্ঞাপন

এ জন্য বিষণ্ণ ব্যক্তিকে কী বলতে হবে আর কী বলা যাবে না তা জানা প্রয়োজন।

কোনো বন্ধু যদি আপনাকে বলে, সে বিষণ্ণতার সঙ্গে লড়াই করছে বা তার কঠিন সময় কাটছে, এ সময় আপনার কী বলা উচিত তা জানা থাকা প্রয়োজন। আমরা নিঃসন্দেহে আমাদের বন্ধুদের এবং পরিবারের পাশে থাকতে চাই। যাতে তারা তাদের কঠিন সময়ে আমাদের ওপর আস্থা রাখে; কিন্তু কখনো কখনো বলার জন্য সঠিক শব্দ বা উপযুক্ত পরামর্শ খুঁজে পাওয়া কঠিন হতে পারে।  

এমন পরিস্থিতিতে আমরা ভুল কথা বলতে চাই না বা আমাদের কথায় অনিচ্ছাকৃতভাবে কাউকে বিরক্ত বা কষ্ট দিতে চাই না। কী বলতে হবে তা শেখা মানসিক স্বাস্থ্য সম্পর্কে একটি অর্থপূর্ণ কথোপকথনে সহায়ক হতে পারে। যারা বিষণ্ণায় ভুগছে এটা তাদের বুঝতে সাহায্য করতে পারে যে তারা একা নন।

এটা মনে রাখা গুরুত্বপূর্ণ যে হতাশা নিয়ে সবার অভিজ্ঞতা এক নয়, এবং বিষণ্ণতায় আক্রান্ত কাউকে বলার জন্য উপযুক্ত শব্দ খুঁজে পাওয়া প্রায়শই তাদের পরিস্থিতির ওপর নির্ভর করে। নিচে ডা. চৌধুরী এবং ডা. হোগানব্রুয়েনের পরামর্শকে শুরুতে ব্যবহার করতে পারেন, তবে আপনার বন্ধুর প্রয়োজনীয় সহায়তা পেতে আপনার একজন বিশ্বস্ত প্রাপ্তবয়স্কের সাহায্যের প্রয়োজন হতে পারে।

আপনি যদি কোনো বন্ধু বা প্রিয়জনের সম্পর্কে চিন্তিত হন, বা সংকটে থাকা কারো সম্পর্কে জানেন, তবে আপনার উচিত একজন বিশ্বস্ত প্রাপ্তবয়স্কের সঙ্গে কথা বলা এবং সাহায্য তালিকাভুক্ত করা।  

এ সম্পর্কে ড. চৌধুরী বলেছেন, 'যদি আপনি কারো নিরাপত্তা নিয়ে চিন্তিত হন, তাহলে অবশ্যই একজন বিশ্বস্ত প্রাপ্তবয়স্কের কাছে যাওয়ার এবং আরো সাহায্য নেওয়ার সময় এসেছে। এমনকি যদি এর অর্থ বন্ধুর আস্থা ভঙ্গ করা হয় তবুও তা করা উচিত ৷' 'এ পরিস্থিতিতে তাদের নিরাপত্তা বা অন্য কারো নিরাপত্তার মূল্য নেই। '

বিষণ্ণ ব্যক্তিকে কী বলা উচিত হবে আর কী বলা যাবে না তা সম্পর্কে কিছু আলোচনা তুলে ধরা হলো..

তাদের অনুভূতি বোঝার চেষ্টা করুন এবং কথা শুনুন

বিষণ্ণতার সঙ্গে লড়াই করছেন এমন একজন বন্ধু বা প্রিয়জনের জন্য আপনি যা করতে পারেন তা হলো, তাদের কথা শুনুন। আপনার তাদের সমস্যার সমাধান করার দরকার নেই। যেমনটি ড. হোগানব্রুয়েন বলেন। আপনি যখন সক্রিয়ভাবে শোনেন, তখন তারা আপনাকে যা বলছে তার উত্তরে কথা বলেন। আপনার নিজের কথার মাধ্যমে তাদের অনুভূতির সঙ্গে যুক্ত হোন। যাতে তারা বুঝতে পারে যে আপনি তাদের বুঝতে পারছেন এবং কথা চালিয়ে যেতে আগ্রহী।

'আমি তোমাকে শুনছি, মনে হচ্ছে আপনি এখন ভালো করছেন না- এমন কথা বলা খুব সহজ। কিন্তু আপনি যাকে শুনছেন তার ওপর সত্যিই এটা বিরূপ প্রভাব ফেলবে, 'ড. হোগানব্রুয়েন আরো বলেন। মনে রাখবেন যে বিষণ্ণতায় আক্রান্ত কারো রোগ নিরাময় করা আপনার কাজ নয়। তাদের পেশাদার সহায়তা এবং ওষুধের প্রয়োজন হতে পারে, আপনি তাদের এ কাজে সঙ্গী হতে পারেন।

তাদের কী প্রয়োজন জিজ্ঞাসা করুন

ধরুন কেউ আপনাকে বলেছে, সে হতাশাগ্রস্ত বা মোকাবেলা করার জন্য লড়াই করছে। তক্ষুনি তার সমস্যা সমাধানের দিকে ঝাঁপিয়ে পড়ার পরিবর্তে, তাদের কী প্রয়োজন হতে পারে তাদের জিজ্ঞাসা করুন। ডা. হোগানব্রুয়েন উল্লেখ করেছেন, ‘বিষণ্ণতার একটি সাধারণ উপসর্গ এটিকে বোঝার মতো মনে হয়, তাই কেউ হয়তো বাইরে সরাসরি প্রকাশ করতে পারে না। তাই কোনো ধরনের সাহায্য-সহায়তা চাইতে পারে না। প্রয়োজন জিজ্ঞাসা করলে আপনার কাছে সমস্যার কথা বলা সেই ব্যক্তি বুঝতে পারে আপনি তার সমস্যার সমাধান করতে চান। ফলে তাদের যা প্রয়োজন তা তারা মুখে বলার সুযোগ পাবে।

সাহায্য পাওয়ার উপায় বলে দিন

'লোকেরা প্রায়শই জানে না বা ভুলে যায় বিষণ্ণতা যেকোনো রোগের মতোই চিকিৎসাযোগ্য, যেমন হাঁপানি বা ডায়াবেটিস,' ড. চৌধুরী ব্যাখ্যা করে বলেন, ‘একটি শারীরিক অবস্থার মতোই, মানসিক স্বাস্থ্যের অবস্থারও বিভিন্ন চিকিৎসার মাধ্যমে উন্নতি করা যেতে পারে, পেশাদার কাউন্সেলিং থেকে শুরু করে স্ব-যত্ন এবং ওষুধ পর্যন্ত। আপনি যদি আপনার বন্ধুর বিষণ্ণতার কথা শুনে থাকেন এবং বুঝতে পারেন যে তারা পরামর্শের জন্য প্রস্তুত, তাহলে তাদের হাতের কাছের এই সংস্থানগুলোর কথা মনে করিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করুন, যার মধ্যে রয়েছে থেরাপি, স্কুল কাউন্সেলরের সঙ্গে কথা বলা, টেলিহেলথ, অনলাইন সহায়তা গ্রুপ, মানসিক স্বাস্থ্য অ্যাপ্লিকেশন, এবং ওয়েবসাইট। ’

তাদের অনুভূতিকে তাচ্ছিল্য বা ছোট করবেন না

বিষণ্ণতা এবং মানসিক স্বাস্থ্যের অবস্থার কোনো অন-অফ সুইচ নেই। এবং এটি বোঝানো ক্ষতিকর যে তারা যা করছে বা যেটা নিয়ে বিষণ্ণ সেটা ভুল। ডক্টর চৌধুরী এবং ড. হোগানব্রুয়েন বলেন, 'এটি থেকে বের হয়ে যাও' বা 'এটি থেকে দূরে থাকো'-এর মতো শব্দ ব্যবহার করা কাউকে নিজেকে ছোট মনে করাতে পারে।

অনুমান এড়িয়ে চলুন

এটি সর্বদা স্পষ্ট নয় যে কেউ-ই হতাশার সঙ্গে লড়াই করছে, তাই ধরে নেবেন না, কেউ ঠিক আছে কারণ তারা বাইরে থেকে ঠিক আছে বলে মনে হচ্ছে। কিছু মানুষ অন্যদের তুলনায় তাদের আবেগ লুকাতে খুব পটু।

'মানুষের মনে সত্যিকার অর্থে কী চলছে তা যদি আপনি শুনতে পান, তবে আপনি খুব অবাক হবেন, যেহেতু আপনি তাদের মাথায় বাস করেন না তাই আপনি কখনোই পুরো গল্পটা জানেন না,' ড. চৌধুরী বলেন।

যদি কেউ আপনাকে বলে যে সে হতাশায় ভুগছে, তাদের বিশ্বাস করুন এবং তাদের প্রয়োজনীয় সাহায্য সংস্থানগুলো খুঁজে পেতে সহায়তা করার চেষ্টা করুন।

ব্যক্তিগতভাবে কথা বলার চেষ্টা করুন

টেক্সট বা ফোনে এই কথোপকথন করা যায়, তবে মুখোমুখি কথা বলা খুব বেশি উপকারী। 'টোন এবং তীব্রতার পরিপ্রেক্ষিতে টেক্সটিংয়ের মাধ্যমে অনেক কিছু হারিয়ে যায়,' হোগানব্রুয়েন ব্যাখ্যা করেন।

যদি কেউ আপনাকে টেক্সট করে এবং শেয়ার করে যে তারা হতাশাগ্রস্ত, আপনি তাদের কল করতে বলতে পারেন। আপনি নিজেই তাদের কল করতে পারেন। যেহেতু হতাশা লুকানোও হতাশার লক্ষণ, তাই কেউ যদি ফোনে কথা বলতে চায়ও, তাদের কল করতে দ্বিধা হতে পারে। তাই আপনারই উচিত তার সঙ্গে দ্রুত যোগাযোগ করা।

কী কী পথ খোলা আছে জেনে নিন

থেরাপি উল্লেখযোগ্যভাবে ব্যক্তিদের বিষণ্ণ, উদ্বেগ বা যেকোনো মানসিক স্বাস্থ্যের অবস্থা সুস্থ করতে এবং হতাশার উপসর্গ কমাতে সাহায্য করতে পারে। ডা. হোগানব্রুয়েন উল্লেখ করেছেন, অ্যাসোসিয়েশন ফর বিহেভিওরাল অ্যান্ড কগনিটিভ থেরাপিস তাদের ওয়েবসাইটে একটি থেরাপি ফাইন্ডার অফার করে, যেখানে আপনি আপনার জিপ কোড টাইপ করতে পারেন এবং ১০ থেকে ৭৫ মাইলের মধ্যে একজন মানসিক স্বাস্থ্যের পেশাদারকে খুঁজে পেতে পারেন।

দুর্ভাগ্যবশত, থেরাপি ততটা অ্যাক্সেসযোগ্য বা সাশ্রয়ী নয় যতটা হওয়া উচিত। যা-ই হোক, বিকল্প কিছু কম খরচের ব্যবস্থাও রয়েছে।

সূত্র : সেভেন্টিন।



সাতদিনের সেরা