kalerkantho

শনিবার । ১ অক্টোবর ২০২২ । ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

দুঃসাহসিক গবেষণা! আর্কটিক ঝড়ে বিমান চালালেন বিজ্ঞানীরা

অনলাইন ডেস্ক   

১১ আগস্ট, ২০২২ ১১:৩৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দুঃসাহসিক গবেষণা! আর্কটিক ঝড়ে বিমান চালালেন বিজ্ঞানীরা

ছবি: গবেষণা ফ্লাইট থেকে তোলা দৃশ্য

ইংল্যান্ডের বার্কশায়ারের রিডিং বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক নরওয়ের দক্ষিণে সামুদ্রিক বরফের ওপর আর্কটিক ঘূর্ণিঝড়কে রীতিমতো ধাওয়া করছেন। ঝড়ের সঙ্গে সামুদ্রিক বরফের পারস্পরিক আচরণটা কেমন হয় তা দেখাই লক্ষ্য তাদের। বিজ্ঞানী দল একজন বিশেষজ্ঞ পাইলট নিয়ে গ্রীষ্মের ঘূর্ণিঝড়ের মধ্য দিয়ে স্বল্প উচ্চতায় তাদের বিমান চালিয়ে গবেষণার কাজ চালান। ।

বিজ্ঞাপন

  

অধ্যাপক মেথভেন এক দশকেরও বেশি সময় ধরে ঘূর্ণিঝড় নিয়ে অধ্যয়ন করছেন। রিডিং ইউনিভার্সিটির এই আবহাওয়াবিদ বলেন, গ্রীষ্মকালীন আর্কটিক ঘূর্ণিঝড়কে কেন্দ্র করে বিমান চালিয়ে প্রথমবারের মতো এ গবেষণা পরিচালিত হয়। ঘূর্ণিঝড় খুব দ্রুত বরফ উড়িয়ে নেয়। এতে বরফ দ্রুত নষ্ট হয়ে যায়। ঝড় বরফের ওপর বেশ প্রভাব বিস্তার করে। একই সাথে বরফের রুক্ষতা, তাপমাত্রা এবং গতিবিধি ঝড়ের আচরণেও প্রভাব ফেলে। এমন পরিস্থিতিতে আবহাওয়ার পূর্বাভাস প্রদানের ক্ষেত্রে এই ঝড় ও বরফের মিথস্ক্রিয়া বিষয়ে তেমন ধারণা ছিল না বিজ্ঞানীদের। এ গবেষণা আবহাওয়ার পূর্বাভাস প্রদানের মডেলগুলোকে আরো পরিণত করবে।  

বিশ্ববিদ্যালয়টির পিএইচডি ছাত্র হান্না ক্রাড বলেন, ঝড় এবং বরফের এই পারস্পরিক আচরণ ধরতে হলে গবেষণা ফ্লাইটগুলোকে সামুদ্রিক বরফের ৩০০ ফুটেরও কম উচ্চতায় উড়তে হয়।  

ছবি : সমুদ্রে বরফের চলাচল

আর্কটিক ঘূর্ণিঝড়ের মধ্য দিয়ে সরাসরি বিমান চালিয়ে বিমানে থাকা যন্ত্রের মাধ্যমে তারা বাতাসের গতি, মেঘের আচ্ছাদন এবং ঝড়ের অস্থিরতা পরিমাপ করেন।

মেথভেন আরো বলেন, বৈশ্বিক উষ্ণায়নের ফলে আর্কটিকে দ্রুত পরিবর্তন হচ্ছে। আর্কটিকে বরফের পরিমাণ নব্বইয়ের দশকের গ্রীষ্মকাল থেকে নাটকীয়ভাবে হ্রাস পেয়েছে। গত দুই দশকে সালবার্ড উপকূল থেকে বরফ অনেক সরে গেছে। সমুদ্রের বরফের প্রান্ত এখন এখান থেকে প্রায় ৪০০ কিলোমিটার দূরে। দ্রুত পরিবর্তনশীল এই পাতলা বরফ আর্কটিক ঘূর্ণিঝড়ের ওপর প্রভাব ফেলতে পারে।  

সূত্র : বিবিসি



সাতদিনের সেরা