kalerkantho

রবিবার । ৩ জুলাই ২০২২ । ১৯ আষাঢ় ১৪২৯ । ৩ জিলহজ ১৪৪৩

ইফাদের আঞ্চলিক পরিচালকের বাংলাদেশ সফর

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২১ মে, ২০২২ ১৮:১৬ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



ইফাদের আঞ্চলিক পরিচালকের বাংলাদেশ সফর

নবনিযুক্ত ইফাদের এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের পরিচালক রিহানা রিফাত রাজা রোম প্রতিনিধিদলের সঙ্গে যশোর জেলায় প্রকল্প অংশগ্রহণকারীদের সঙ্গে দেখা করেন। ছবি : সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

ইন্টারন্যাশনাল ফান্ড ফর এগ্রিকালচারাল ডেভেলপমেন্টের (ইফাদ) এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের পরিচালক রিহানা রিফাত রাজা গত সপ্তাহে বাংলাদেশ সফর করেন। গত ৯ মে নিয়োগের পর এটি ছিল এই অঞ্চলে তাঁর প্রথম দাপ্তরিক সফর। এই সফরের উদ্দেশ্য ছিল সরকারের প্রতিনিধি, প্রধান উন্নয়ন অংশীদার, বাংলাদেশে নিযুক্ত ইফাদ কর্মকর্তাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ এবং বাংলাদেশে চলমান প্রকল্পগুলো পরিদর্শন করা। ইফাদের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

 

ঢাকায় ইফাদ প্রতিনিধিদল সরকারের অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের অতিরিক্ত সচিব ও উইং প্রধান অমল কৃষ্ণ মন্ডলের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। ইফাদের ২০২২-২০২৪ রিপ্লেনিশমেন্ট চক্রে দুই মিলিয়ন মার্কিন ডলার প্রদানে অঙ্গীকার করার জন্য রিহানা রাজা বিশেষভাবে বাংলাদেশ সরকারের প্রশংসা করেন। এটি ছিল গত ৪২ বছরে বাংলাদেশের সদস্যপদের ইতিহাসে তহবিলের জন্য সর্বোচ্চ অঙ্গীকার।

রিহানা রাজা ইফাদের বাংলাদেশ পোর্টফোলিওর অধীনে বাস্তবায়িত কার্যক্রম পরিদর্শন করেন। বাংলাদেশ পোর্টফোলিওটি ১.২৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়োগের মাধ্যমে আটটি চলমান প্রকল্পের সমন্বয়ে গঠিত, যার মধ্যে ইফাদের অর্থায়ন রয়েছে ৪৭৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার, যার ফলে বাংলাদেশ বিশ্বব্যাপী ইফাদের দ্বিতীয় বৃহত্তম কর্মসূচিতে পরিণত হয়েছে।

“ইফাদ বিনিয়োগের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের মতো দেশকে অগ্রাধিকার দেয় যা কিনা তার বর্তমান এবং ভবিষ্যৎ উন্নয়ন লক্ষ্যে জলবায়ু পরিবর্তন, নারী ও যুব ক্ষমতায়ন, পুষ্টি ও খাদ্য নিরাপত্তার ক্ষেত্রে উন্নয়ন কর্মকাণ্ড করতে আগ্রহী,” বলেন রিহানা রাজা। তিনি জাতীয় অংশীদারদের জোরদার বাস্তবায়ন দক্ষতারও প্রশংসা করেন, যা বাংলাদেশের মতো একটি বৃহৎ ও সম্প্রসারিত উন্নয়ন পোর্টফোলিওর সাফল্যের চাবিকাঠি।

রিহানা রাজা, ২০ বছরেরও বেশি অভিজ্ঞতা সম্পন্ন অর্থনীতিবিদ, উদ্ভাবনী অর্থনৈতিক গবেষণা প্রণয়ন ও পরিচালনার পাশাপাশি মানব উন্নয়ন, শাসনপদ্ধতি এবং পরিষেবা সরবরাহে কৌশলগত সহায়তা প্রদানে কাজ করেছেন। চলতি মাসে ইফাদে যোগদানের আগে রিহানা রাজা যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন ডিসির আরবান ইনস্টিটিউটের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। তিনি এর আগে বিশ্বব্যাংকের একজন সিনিয়র অর্থনীতিবিদ হিসেবে এবং জর্জ ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ের এলিয়ট স্কুল অফ ইন্টারন্যাশনাল অ্যাফেয়ার্সে অতিরিক্ত অনুষদ সদস্য হিসেবে কাজ করেছেন।

“বাংলাদেশ গ্রামীণ উন্নয়ন, নারী ও যুবকদের ক্ষমতায়ন, খাদ্য ব্যবস্থার রূপান্তর এবং জলবায়ু স্থিতিস্থাপকতা গড়ে তোলার ক্ষেত্রে অসাধারণ কাজ করে চলেছে- যা টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ কার্যক্রম। এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের নবনিযুক্ত পরিচালকের প্রথম সফর হিসেবে বাংলাদেশকে বেছে নেওয়াই বলে দেয় বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে ইফাদের দীর্ঘস্থায়ী এবং সফল অংশীদারিত্বের গুরুত্ব,” বলেন আর্নো হ্যামেলিয়ার্স বাংলাদেশে ইফাদের কান্ট্রি ডিরেক্টর।  

বাংলাদেশে বিশ্বব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টর মার্সি টেম্বনের সঙ্গে এক বৈঠকে রিহানা রাজা বাজারে ক্ষুদ্র কৃষকদের অভিগম্যতা বাড়ানো এবং বাংলাদেশে কৃষি উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধিতে পারস্পরিক অংশীদারিত্বের কথা তুলে ধরেন। তিনি জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবিলায় দীর্ঘমেয়াদী সহনশীলতা তৈরি করতে এবং সবার জন্য খাদ্য ও পুষ্টি নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সেক্টরব্যাপী সহযোগিতামূলক প্রচেষ্টার গুরুত্বের ওপরও জোর দেন।

রিহানা রাজা এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর এডিমন গিনটিংয়ের সঙ্গেও সাক্ষাৎ করেন। তাঁরা একটি নতুন সহ-অর্থায়ন প্রকল্প নিয়ে আলোচনা করেন যা ছোট-বড় জলসম্পদ ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর দক্ষতা বৃদ্ধির মাধ্যমে জলবায়ু সহনশীলতা গড়ে তুলবে এবং এই উদ্যোগটি পূর্ববর্তী বাস্তবায়িত একটি প্রকল্পে অংশীদারিত্বের সাফল্যের ওপর ভিত্তি করে পরিকল্পনা করা হয়েছে।

এই সফরে রিহানাসহ ইফাদের প্রতিনিধিদল পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউন্ডেশনের (পিকেএসএফ) বাস্তবায়িত প্রমোটিং এগ্রিকালচারাল কমার্শিয়ালাইজেশন অ্যান্ড এন্টারপ্রাইজেস (পেইস) প্রকল্পের অধীনে যশোর জেলার উন্নয়ন কর্মকাণ্ড পরিদর্শন করেন। রিহানা রাজা প্রকল্পাধীন ক্ষুদ্র ঋণগ্রহীতা, প্রশিক্ষণার্থী ও প্রযুক্তি পরিষেবা গ্রহীতাদের সঙ্গে দেখা করেন। এই সব কার্যক্রম তাদের পরিবারের আয় বৃদ্ধি ও টেকসই জীবিকা নিশ্চিত করতে কিভাবে সহায়তা করেছে এই বিষয়ে রিহানা আলোচনা করেন।  

বাংলাদেশ সফরে রিহানা রাজার সঙ্গে ইফাদের অপারেশনাল পলিসি অ্যান্ড রেজাল্ট ডিভিশনের ডিরেক্টর নাইজেল ব্রেট এবং এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের প্রধান পোর্টফোলিও উপদেষ্টা লিয়াম ফ্রান্সিস কিকা যোগ দেন।



সাতদিনের সেরা