kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৩ মাঘ ১৪২৮। ২৭ জানুয়ারি ২০২২। ২৩ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

আবরার হত্যায় ২০ জনের মৃত্যুদণ্ডের পক্ষে না তসলিমা

অনলাইন ডেস্ক   

৮ ডিসেম্বর, ২০২১ ২১:৩৯ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



আবরার হত্যায় ২০ জনের মৃত্যুদণ্ডের পক্ষে না তসলিমা

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যা মামলায় ২০ জনকে মৃত্যুদণ্ড ও ৫ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। আজ বুধবার ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-১-এর বিচারক আবু জাফর মো. কামরুজ্জামান এ রায় ঘোষণা করেন।

এই রায়ে খুশি আবরারের পরিবার। তবে দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের পরিবার উচ্চ আদালতে আপিল করবেন বলে জানা গেছে।

বিজ্ঞাপন

এদিকে, এই রায়ে নিজের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন লেখিকা তসলিমা নাসরিন। তিনি একজনের হত্যার অপরাধে ২০ জনকে ফাঁসির পক্ষে না। এটাকে রাষ্ট্রী হত্যাকারীদের চেয়ে ২০ গুন বেশি অন্যায় করেছে বলে দাবি তার।

তসলিমা নাসরিন তার ফেসবুক ভেরিফাইড পেজে আবরার হত্যাকাণ্ডের রায় নিয়ে এক স্ট্যাটাসে এসব কথা বলেন। এসময় তিনি নিহত আবরারকে জামায়াতপন্থী ছাত্র এবং আসামিদের আওয়ামী লীগপন্থী ছাত্র বলে আখ্যা দিয়েছেন।

তসলিমা নাসরিনের ফেসবুক স্ট্যাটাসটি হুবাহু তুলে ধরা হলো :

বাংলাদেশের প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের এক জামায়াতপন্থী ছাত্র আবরারকে কয়েকজন আওয়ামী লীগ পন্থী ছাত্র পিটিয়েছিল। পেটাতে পেটাতে এক সময় ওরা দেখলো আবরার ছেলেটি মরে গেছে। আবরার হত্যার বিচারের রায় বেরোলো আজ। ২০ জনের মৃত্যুদণ্ড আর ৫ জনের যাবজ্জীবন! 

আওয়ামীলীগপন্থী ছাত্ররা যে অন্যায় করেছিল, আওয়ামীলীগপন্থী রাষ্ট্র সেই অন্যায়ের চেয়ে ২০ গুণ বেশি অন্যায় করছে। ছাত্ররা ১ জনকে হত্যা করেছিল, রাষ্ট্র তার প্রতিশোধ নিতে গিয়ে ২০ জনকে হত্যা করবে। ছাত্ররা কাউকে যাবজ্জীবন দেয়নি, রাষ্ট্র ৫ জনকে দেবে। ছাত্রদের চেয়ে রাষ্ট্র নিঃসন্দেহে বেশি নৃশংস, বেশি ভয়ংকর।  

মানুষ জেনে বুঝে বা ভুল বুঝে, কুশিক্ষায় আক্রান্ত হয়ে, ক্রোধান্বিত হয়ে, বেপরোয়া হয়ে, মাথা গরম করে কখনও কখনও খুন করে। কিন্তু রাষ্ট্র খুন করলে ঠাণ্ডা মাথায় করে। রাষ্ট্র যদি খুন করে- তাহলে সর্বনাশ, কারণ মানুষের খুন অবৈধ, রাষ্ট্রের খুন বৈধ। এই খুনকে সমালোচনা করার বিধান নেই। আসলে রাষ্ট্রের দায়িত্ব জনগণকে খুন না করার, অপরাধ না করার শিক্ষা দেওয়া, জনগণকে শান্তির পথ দেখানো, সৌহার্দের বন্ধন দৃঢ় করতে শেখানো, উদারতা শেখানো। সেখানে রাষ্ট্রই যদি খুন করে, জনগণ তো খুন করাই শিখবে।

আওয়ামী লীগ সরকার হয়তো ভেবেছে তাদের শাসন ব্যবস্থায় নিজের দলের লোককে এমন ভয়াবহ শাস্তি দিলে লোকে বাহবা দেবে, আওয়ামী লীগকে নিরপেক্ষ দল বলবে। না, তা বলার কোনও কারণ নেই। এই দল বহুবার প্রমাণ করেছে যে, এই দল আর যা-ই হোক, নিরপেক্ষ নয়। নিরপেক্ষতা দেখাতে গিয়ে প্রাণনাশী হওয়া কিন্তু অক্ষমাযোগ্য অপরাধ।



সাতদিনের সেরা