kalerkantho

শনিবার । ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ২৭ নভেম্বর ২০২১। ২১ রবিউস সানি ১৪৪৩

কালের কণ্ঠ'র সংবাদে অসহায় মনিরের পাশে দাঁড়াল ‘ওয়াননেস’

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৪ অক্টোবর, ২০২১ ১৭:০৭ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



কালের কণ্ঠ'র সংবাদে অসহায় মনিরের পাশে দাঁড়াল ‘ওয়াননেস’

একমাত্র ছেলে বিশাল শেখের জীবন বাঁচাতে লাড়াই করা দরিদ্র ও অসহায় বাবা মনির শেখের পাশে দাঁড়িয়েছে ‘ওয়াননেস চ্যারিটি ফাউন্ডেশন’ নামে একটি সংগঠন। শনিবার রাতে সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ফাহিম বিল্লাহ ফাহমী রাজধানীর পান্থপথে শমরিতা হাসপাতালে উপস্থিত হয়ে মনির শেখের হাতে নগদ ৩২ হাজার টাকা তুলে দেন। এ সময় সামনে মনির শেখকে আরো সহযোগিতার আশ্বাস দেন তিনি। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন কার্যকরী সদস্য আব্দুর রাকিব।

টাকা পেয়ে আবেগাপ্লুত মনির শেখ বলেন,  কালের কণ্ঠ'র সংবাদ দেখে আমার ছেলের চিকিৎসায় এগিয়ে আসে ওয়াননেস। আমি তাদের এই উপকারের কথা কখনো ভুলতে পারব না।  আজ বিকেলে আমার ছেলের অপারেশন। আর মাত্র ৭৫ হাজার টাকা হলেই আমার ছেলের চিকিৎসা হবে।  সবাই ওর জন্য দোয়া করবেন। 

উল্লেখ্য, মাত্র ১৩ বছরের বিশাল শেখ। গরিব বাবা-মায়ের ঘরে জন্ম নিলেও আদরের কমতি ছিল না তার। তাই সংসারে চরম অভাব থাকলেও ছেলেকে কাজ করতে দেননি বাবা মনির শেখ। ছেলেকে বড় মানুষ করার স্বপ্ন নিয়ে ভর্তি করিয়েছিলেন স্কুলে। কিন্তু অল্প কদিনেই ভেঙে যেতে বসে মনির শেখের সেই স্বপ্ন। পড়াশোনা তো দূরে থাক, ছেলের প্রাণ বাঁচানোই মনির শেখের জীবনের একমাত্র লড়াই হয়ে যায়। তার লড়াই নিয়ে গত ১৮ অক্টোবর একটি সংবাদ প্রকাশ করে কালের কণ্ঠ অনলাইন। এরপর অনেকেই মনির শেখের পাশে দাঁড়িয়েছেন।  রাজধানীর পান্থপথের শমরিতা হাসপাতালের পুরুষ ওয়ার্ডে ভর্তি আছে বিশাল শেখ। লিভার, প্যানক্রিয়েটিক ও বিলিয়ারি সার্জন অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ মোহসিন চৌধুরীর তত্ত্বাবধানে চিকিৎসাধীন। তার বাড়ি নওগাঁর আত্রাই উপজেলার ভোঁপাড়া ইউনিয়নের তিলাবদুরী গ্রামে। ভোঁপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ে ৮ম শ্রেণিতে পড়ে। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, হেপাটোবিলিয়ারি সিস্টেমের সমস্যায় আক্রান্ত বিশাল। দ্রুত অপারেশন না করালে হেপাটোবিলিয়ারি ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার  আশঙ্কা রয়েছে তার।

বাবা মনির শেখ বলেন, মাস দুয়েক আগে ফুটবল খেলতে গিয়ে বিশালের বুকে বলের আঘাত লাগে। এর পর থেকেই নিয়মিত বুকের ব্যথার কথা বলতে থাকে সে। সে সময় গ্রাম্য চিকিৎসকের কাছে নিয়ে গেলে তিনি কিছু ওষুধ দেন। এরপর ব্যথা না কমে দিন দিন বাড়তে থাকে। পরে আত্রাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে সেখান থেকে নওগাঁ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানকার চিকিৎসকরা বিশালকে রাজশাহী কিংবা ঢাকা নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন। পরে বিশালকে সিরাজগঞ্জের খাজা ইউনুস আলী মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল নিয়ে গেলে তার লিভারে সমস্যা বলে জানান চিকিৎসকরা। এরপর তাদের পরামর্শে ঢাকায় আসি। এখন চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, দ্রুত অপারেশন না করালে বিশালের ক্যান্সার হয়ে যেতে পারে। তখন তাকে বাঁচানো আরো কঠিন হয়ে যাবে। তাই দেশের বিত্তবানদের কাছে তার ছেলের জীবন বাঁচাতে সাহায্য চান।

বিশাল শেখের চিকিৎসার জন্য ০১৩১৫৫৮৪৩২২ (মনির শেখ) বিকাশ নাম্বারে সাহায্য পাঠানো যাবে।



সাতদিনের সেরা