kalerkantho

বুধবার । ৪ কার্তিক ১৪২৮। ২০ অক্টোবর ২০২১। ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

অপপ্রচারকারীদের শাস্তি নিশ্চিত করা দরকার

ড. সেলিম মাহমুদ    

২২ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ১৪:১৫ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



অপপ্রচারকারীদের শাস্তি নিশ্চিত করা দরকার

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও ইউটিউবে কিছু কুলাঙ্গার বাংলাদেশবিরোধী অশ্লীল অপপ্রচার করে যাচ্ছে। বিদেশে অবস্থান করার কারণে তাদের সাময়িক সময়ের জন্য আইনের আওতায় আনা যাচ্ছে না। কিন্তু তাদের বিরুদ্ধে এখনই ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন। তারা আমাদের রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে হুমকি আর অপপ্রচার করে যাচ্ছে, এই কুলাঙ্গাররা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকন্যা রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনাকে ভিডিও বার্তায় হত্যার হুমকি দিয়ে যাচ্ছে, প্রতিনিয়ত বাংলাদেশবিরোধী ঘৃণা আর বিষোদ্গার ছড়াচ্ছে। কিছুক্ষণ আগে এক ভিডিও বার্তায় দেখলাম এক নরকের কীট আমাদের প্রিয় নেত্রী শেখ হাসিনাকে সরাসরি হত্যার হুমকি দিচ্ছে, পাশাপাশি রাষ্ট্রবিরোধী নানা অশ্লীল কথা বলছে। তাদের আর কোনো ছাড় নয়।

আমরা লক্ষ্য করছি, বেশ কিছু দিন ধরে বিএনপি ও তাদের সমমনা কিছু রাষ্ট্রবিরোধী ব্যক্তি বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনবরত আমাদের হুমকি দিয়ে যাচ্ছে, তারা এই সরকারের পতন ঘটাবে, সরকার পতনের পর তারা আওয়ামী লীগের লাখ লাখ মানুষকে হত্যা করবে, কাউকে দেশ থেকে পালাতে দেবে না, কেউ প্রাণে বাঁচবে না ইত্যাদি। এমনকি বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন অধ্যাপকও এই ধরনের ইঙ্গিত দিলেন। যাঁরা এ ধরনের কথা বলেন, তাঁদের অনেকেই দেশে আছেন। যাঁরা বিদেশে বসে এইগুলো বলছেন, তাঁদের আত্মীয়-স্বজনরা বাংলাদেশেই আছেন। এখন যাঁরা ক্ষমতায়, তাঁরা তো তাঁদের হত্যা করছেন না। তাঁদের আত্মীয়-স্বজনদের খুঁজে বের করার কথাও বলা হচ্ছে না। তাহলে তাঁরা হত্যা করার কথা কেন বলছেন? 
আওয়ামী লীগ হত্যার রাজনীতিতে বিশ্বাস করে না। বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াই জাতির পিতাকে হত্যা করে এ দেশে হত্যা আর ষড়যন্ত্রের রাজনীতি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। 

তবে এই কুলাঙ্গারদের যথোপযুক্ত শাস্তি নিশ্চিত করা এখন প্রয়োজন হয়ে পড়েছে। আমাদের রাষ্ট্র, বঙ্গবন্ধুকন্যা রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার মর্যাদা রক্ষায় এই রাষ্ট্রবিরোধী দুষ্টচক্রকে নির্মূল করতে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। বিদেশে বসে বাংলাদেশবিরোধী অপপ্রচারকারীদের বাড়িঘর বাংলাদেশে আছে। সেগুলো চিহ্নিত করা কঠিন কাজ নয়। তাঁদের আত্মীয়-স্বজনদেরও খুঁজে বের করা সম্ভব। নামে-বেনামে তাঁদের অনেকেরই বাংলাদেশে বাড়িঘর, সম্পত্তি এমনকি ব্যাবসায়িকপ্রতিষ্ঠান রয়েছে। তাঁদের সবার পরিচয়, ব্যাবসায়িকপ্রতিষ্ঠানের বিবরণ পাওয়া খুবই সহজ।

রাষ্ট্রবিরোধী এই দুষ্টচক্রটিকে আর ছাড় নয়। বাংলাদেশ রাষ্ট্রের মর্যাদা রক্ষায় তাঁদের বিরুদ্ধে কূটনৈতিক চ্যানেলসহ অন্য সব দিক থেকে ব্যবস্থা নেওয়া দরকার। সবার আগে এই অপপ্রচারকারী রাষ্ট্রদ্রোহীদের বাড়িঘর চিহ্নিত করা দরকার।

লেখক : তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ



সাতদিনের সেরা